টরেন্ট হচ্ছে একটি অনলাইন ফাইল শেয়ারিং প্রোটোকল বা প্রযুক্তি । যেটি P2P অর্থাৎ পিয়ার টু পিয়ার প্রযুক্তি ব্যবহার করে । পিয়ার টু পিয়ার নেটওয়ার্ক প্রযুক্তির মাধ্যমে ফাইল শেয়ারকারীগন একে অপরের কম্পিউটিং পাওয়ার ব্যান্ডউইড্থ শেয়ার করে থাকে । পিয়ার টু পিয়ারে আপনি এবং আমি যদি কোন ফাইল শেয়ারিং করি তখন আপনি আর আমি হচ্ছি ক্লায়েন্ট । আমরা সার্ভারকে কে ডাউনলোড এবং আপলোডের জন্য রিকোয়েস্ট করি । আরো ভালো ভাবে বোঝাতে ধরুন – কোন একটি এফটিপি সার্ভারে একটি ফাইল বা প্রোগ্রাম রাখা আছে যা আমরা কয়েক জন এই মূহুর্তে ডাউলোড করছি । এখানে আমরা হচ্ছি ক্লায়েন্ট এবং এফটিপি সার্ভার কে রিকোয়েস্ট করছি ফাইল টির জন্য । এখন যত বেশী ক্লায়েন্ট এবং রিকোয়েস্ট বাড়বে ততবেশী ততবেশী চাপ এপটিপি সার্ভারটির উপর পড়বে এবং পারফরমেন্স ধীর গতীর হয়ে পড়বে । এটিকে বলে ফিক্সড ক্লায়েন্ট সার্ভার আর্কিটেকচার । আর পি টু পি তে ব্যাপারটি পুরোপুরি উল্টো । এখানে যত বেশী ক্লায়েন্ট এবং রিকোয়েস্ট বাড়বে শেয়াররিং পারফরমেন্স ততবেশী বৃদ্ধি পাবে । কারন ফিক্সড ক্লায়েন্ট সার্ভার আর্কিটেকচারে কেউ কারো ব্যান্ডউইড্থ শেয়ার করেনা কিন্তু পিটুপি বা টরেন্টে একে অপরের ব্যান্ডউইড্থ শেয়ার করা হয় ।
সামনে যাবার আগে টরেন্টের কিছু বিষয় সম্পর্কে অবগত করিয়ে নেই :
# টরেন্টঃ .torrent :
টরেন্ট অর্থাৎ এক্সটেনশন যুক্ত ফাইল হচ্ছে একটি মেটা ফাইল বা প্রয়োজনীয় তথ্য সমৃদ্ধ একটি ফাইল । যেখানে টরেন্ট এর মাধ্যমে যেই ফাইল ডাউনলোড করা হবে সেইফাইল সম্বন্ধিত কিছু তথ্য যেমন ফাইলটির নাম , ফাইলটির আকার এবং ট্র্যাকার ইউআরএল (যেটি সম্পর্কে পরে বলছি) থাকে ।
# পিয়ারঃ peer or leecher :
পিয়ার হচ্ছে যেই কম্পিউটারের সাথে আপনি যুক্ত এবং যে বিটটরেন্ট ক্লায়েন্ট ব্যাবহার করে আপনি টরেন্টের মাধ্যমে ফাইল ডাউনলোড করছেন । পিয়ার কে লিচার ও বলা হয় । লিচার মানে একজন বা কয়েকজন একটি নির্দিষ্ট ফাইল শেয়ার করছে আর আপনি তাদের থেকে ফাইলটির অংশ ডাউনলোড করছেন । আপনি যখন টরেন্টের মাধ্যমে ফাইল ডাউনলোড শুরু করলেন তখন আপনার কাছে ফাইলটির কোন অংশই নেই । আপনি সিডার বা ফাইলটি শেয়ার কারী হতে ফাইলটি ডাউনলোড করছেন । তাই আপনি হচ্ছেন পিয়ার বা লীচার ।
# সিড এবং সিডারঃ seed or seeder
সিডার হচ্ছেন তিনি যিনি বিটটরেন্ট ক্লায়েন্ট ব্যবহার করে উক্ত ফাইলের সম্পূর্ন অংশ ডাউনলোড করছেন বা করছেন এবং একই সাথে ফাইলের যতটুকু অংশ ডাউনলোড করা হয়েছে তা অন্য পিয়ারদের সাথে শেয়ার করছেন । একটি টরেন্ট এর ডাউনলোড স্পিড উক্ত টরেন্টের সিডারের সংখ্যার উপর নির্ভর করে । সিডার বা শেয়ারকারীর সংখ্যা যত বেশী ডাউনলোড স্পিড বা পারফরমেন্স তত বেশী হবে ।
# সোয়ার্মঃ swarm

সোয়ার্ম হচ্ছে একটি নির্দিষ্ট ফাইলের জন্য যতগুলো সিডার বা শেয়ারকারী এবং লীচার বা ডাউনলোডকারী একে অপরের সাথে
connected থাকেতাদের সম্মিলিত সংখ্যা । অর্থাৎ টরেন্টের মাধ্যমে একটি ফাইল যদি ১০ জন সিডার শেয়ার করে এবং ৫ জন লীচার তা ডাউনলোড করে তবে মোট পনেরজনের এই মধ্যবর্তী যোগাযোগ কে সোয়ার্ম বলে ।
# ট্র্যাকারঃ tracker
টরেন্টের মাধ্যমে যখন ফাইল ডাউনলোড করা হয় তখন সিডার এবং লীচারদের মধ্যে যোগাযোগ রক্ষার ক্ষেত্রে একটি সার্ভার থাকে । এই সার্ভারটিই হচ্ছে ট্র্যাকার । টরেন্ট তৈরীর সময় একটি ট্র্যাকার সার্ভার ইউআরএল উল্লেখ করে দেয়া হয় । এই ট্র্যাকার টি ট্র্যাক করতে থাকে বর্তমানে টরেন্টটির কয়জন সিডার এবং লীচার আছে । যা আপনার বিটটরেন্ট ক্লায়েন্টের মাধ্যমে আপনি জানতে পারেন বর্তমানে উক্ত টরেন্টের জন্য কয়টি সিডার বা লীচার আছে ।
ট্র্যাকারের উদাহরণ : http://torrent.ubuntu.com:6969/announce
এখন টরেন্ট প্রযুক্তিটা উদাহরণের মাধ্যমে আরেকটু বিস্তারিত বলিঃ
ধরুন ফয়সাল , অমি , লাভলু , ইমরান , হাসিন এরা পাঁচজন একটি নির্দিষ্ট টরেন্ট ফাইল ডাউনলোড করছে । ফয়সাল টরেন্ট টি তৈরী করেছে এবং file.torrent ফাইলটি সে কোন টরেন্ট সাইটে আপলোড করে দিয়েছে । মনে রাখবেন file.torrent টরেন্ট ফাইলটি ছোটআকারের হয়ে থাকে কিলোবাইট বা ১ মেগাবাইট । এতে শুধূ ফয়সালের কম্পিউটারে রাখা একটি ফাইল (যেটা টরেন্টের মাধ্যমে শেয়ার করা হচ্ছে) এর অবস্থান , ফাইলটির নাম,আকার , ট্র্যাকার ইউআরএল ইত্যাদি তথ্য আছে । এখন ফয়সাল বিটটরেন্ট ক্লায়েন্ট এর মাধ্যমে ফাইলটা শেয়ার বা সিড করছে । প্রথমে চারজন ফয়সাল থেকে ফাইলটির কিছু অংশ ডাউনলোড করলো । এখন সকলেরই কাছে ফাইলটির কিছু কিছু অংশ আছে । এখন সকলেই যতটুকু অংশ ডাউনলোড করেছে তা অন্যদের ডাউনলোড করতে দিচ্ছে অর্থাৎ শেয়ার বা সিড করছে এবং নিজেও অবশিষ্ট অংশ ফয়সাল সহ অন্যদের কাছ থেকে ডাউনলোড করছে । এখন দেখছেন আগে সিডার ছিল ফয়সাল একজন এখন সকলেই একেকজন সীডার হয়ে গিয়েছে । এভাবে সিডার যত বাড়তে থাকবে ডাউনলোড পারফরমেন্স তত বাড়তে থাকবে । একটা সময় আসবে যখন সকলেরই কাছে কাঙ্খিত ফাইলটি সম্পূর্ণ থাকবে । অর্থাৎ আগে যে ফাইল শুধু ফয়সালের কাছে ছিল এখন তা অনেকজনের কাছে আছে । এখন চাইলে কেউকেউ সিডিং বন্ধকরে দিতে পারে তার বিটটরেন্ট ক্লায়েন্ট থেকে । বা চাইলে সিডিং করা চালু রাখতে পারে যাতে অন্যরা তা ডাউনলোড করতে পারে । মনে রাখবেন অন্যরা সিডিং করছিল বলেই আপনি তা ডাউনলোড করতে পেরেছেন । তাই আপনার উচিৎ হবে আপনার ও সিড করা যতক্ষন সম্ভব হয় । টরেন্ট ক্লায়েন্ট থেকে টরেন্টটি মুছে ফেললে বা ক্লায়েন্ট টি বন্ধ করে দিলে সিডিং বন্ধ হয়ে যাবে ।
ব্যাস এই হল গিয়ে টরেন্ট শেয়ারিং পদ্ধতি বা প্রযুক্তি ।
এখন জানতে চাইতে পারেন আমি কেন বললাম এটি ” অনলাইন ফাইল শেয়ারিং এ এক অপ্রতিরোধ্য প্রযুক্তি ”
টরেন্টের কিছু উপকারীতাও আছে এবংকিছু অপকারীতাও আছে । যেমন টরেন্টের মাধ্যমে একদিকে যেমন ফাইল শেয়ারিং করা যায় তেমনি
এই প্রযুক্তির কল্যানে পাইরেসীও করা যায় । শেয়ারিং পদ্ধতিতে যে কেউ যেকোন কিছুই শেয়ার করতে পারে সেটা সফটওয়্যার হোক , মিউজিক হোক ,মুভি হোক বা গেম হোক । এখানে নির্দিষ্ট কাউকে ধরা সম্ভব নয় । কারন টরেন্ট কোন কোম্পানী নয় যেটা একটি ফাইল শেয়ারিং পদ্ধতি মাত্র । কাজা বা ন্যাপস্টার পি ২ পি শেয়ারিং সার্ভিস দেয় । তারা যেহেতু একটি প্রতিষ্ঠান তাই তাদের কে কোন কিছু করা হতে বিরত রাখা সম্ভব । কিন্তু টরেন্ট কে নয় । কারন টরেন্ট না কোন নির্দিষ্ট কোম্পানী , না কোন নির্দিষ্ট সার্ভারে সংরক্ষিত , না কোন নির্দিষ্ট ব্যাক্তি দ্বারা শেয়ার কৃত । তাই হলিউড ও টরেন্টের কাছে হার মানতে বাধ্য হচ্ছে।
ওয়ার্নার ব্রাদার্সের সাথে bittorrent.com এর চুক্তি হয়েছে । এখন থেকে তাদের রিলিজকৃত চলচ্চিত্র গুলো টরেন্টের মাধ্যমেই সরবরাহ করছে bittorrent.com একটি নির্দিষ্ট মূল্যে , রিলিজ হবার সাথে সাথেই । তবে এটিও তেমন কার্যকর নয় । যখন যে কেউ ফ্রি ডাউনলোড করতে পারবে এটা তবে অর্থের বিনিময় ডাউনলোড করবে কেন ?
এখন বিটটরেন্ট ক্লায়েন্ট আপনার প্রয়োজন হবে টরেন্ট ডাউনলোডের জন্য । এখানে কিছু বিটটরেন্ট ক্লায়েন্টের নাম এবং ওয়েব এ্যাড্রেস দিলাম ।
ক্লায়েন্ট লিংক গুলি এইখানে। বাকি পোস্ট এই লিংকের কমেন্টে। দেয়া সাথে আছে টরেন্ট ডাওনলোডের টিউটোরিয়াল এবং ভাল কিছু টরেন্ট সাইটের লিংক। note: মনে রাখবেন টরেন্ট ডাওনলোডের সময় নেটওয়ার্ক সেটিংস থেকে আপলোড স্পিড ১দিবেন

6 thoughts on "টরেন্ট – অনলাইন ফাইল শেয়ারিং এবং লেটেস্ট মুভি পাওয়ার এক অপ্রতিরোধ্য প্রযুক্তি।"

  1. TASNIM Tasnim Author says:
    সব সময়

    স্ক্রিনশট দিবেন

  2. Mizanur Rahman Md Mizan Contributor says:
    Trickbd knodin ki amr post gulo approved krbna
  3. md shojib md shojib Contributor says:
    are vai khash banglai bolle aro sohoj hoto
    1. মোঃ আশিকুর রহমান arparvez Author Post Creator says:
      ভাই আমি কি হিন্দিতে লিখছি?
  4. maxwel Contributor says:
    vai pc te chalaya speed payna vai kon vpn use korbo plz bolen….
    1. মোঃ আশিকুর রহমান arparvez Author Post Creator says:
      vai upload speed limit 1 den oikhane 0deya ase. r. jokhon download diben tokhon ( seeds) koto guli seed kom hole speed kom paiben

Leave a Reply