বর্তমান সময়ে “ইউটিউব” শব্দটি আমাদের দৈনন্দিন জীবনের প্রচলিত শব্দগুলোর মধ্যে একটি হয়ে দাঁড়িয়েছে। বর্তমানে সারা বিশ্বে এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া ভার যারা ইউটিউব চিনেনা। বর্তমান এই প্রযুক্তির যুগে আমরা ইউটিউব-এর উপর অনেকভাবে নির্ভরশীল হয়ে পড়েছি। এখন আমরা কোনো বিষয় সম্পর্কে জানতে এবং কোনো বিষয়ে কোনোকিছু শিখতে চাইলে সর্বপ্রথম ইউটিউব-এ সেই বিষয়টি অনুসন্ধান করি এবং তার যথাযথ উত্তর হিসেবে ভিডিও পেয়ে যাই। এখন সারা বিশ্বে অনেক মানুষ ইউটিউবিং করছেন এবং ইউটিউবিং-এর মাধ্যমে তারা অনেক জনপ্রিয়তাও লাভ করেছেন। বাংলাদেশেও কিন্তু এখন ইউটিউবারের সংখ্যা কম নয়, আমাদের দেশেও অনেক ইউটিউবার আছেন যারা ইউটিউবিং-এর মাধ্যমে অনেক জনপ্রিয়তা অর্জন করেছেন এবং ইউটিউবিং-কে তাদের পেশা হিসেবে বেছে নিয়েছেন। এই সময়ে অনেক নতুন এবং পুরনো ইউটিউবার আছেন যারা নিজের ইউটিউব চ্যানেলটিকে একটি উন্নত পর্যায়ে নিয়ে যেতে অনেক পরিশ্রম করছেন কিন্তু সফলতা অর্জন করতে পারছেন না, এই লেখাটি তাদের চ্যানেলকে একটি উন্নত পর্যায়ে পৌছে দিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে বলে আমার ধারনা।

একটি স্বার্থহীন লক্ষ্য


আপনার ইউটিউব চ্যানেলটিকে একটি উন্নত পর্যায়ে নিয়ে যেতে হলে আপনার প্রথমেই প্রয়োজন একটি স্বার্থহীন লক্ষ্য। প্রথমে টাকা আয় করার কথা ভুলে নিজের ক্রিয়েটিভিটি নিয়ে কাজ করুন। প্রথম থেকেই আপনি যদি টাকা আয় করার জন্য কোনোরকম অন্যায্য কাজ করেন তাহলে আপনার চ্যানেলের দর্শক’রা আপনার উপর থেকে তাদের বিশ্বাস হারিয়ে ফেলবে, যা হবে আপনার এবং আপনার চ্যানেলের জন্য অনেক ক্ষতিকর একটি বিষয়। তাই আমার মতে, প্রথম থেকে টাকা আয় করার কথা ভাববেন না। প্রথমে নিস্বার্থভাবে কাজ করে দর্শক’দের বিশ্বাস ও ভালোবাসা অর্জন করুন। এতেই আপনার চ্যানেলটি সফলতার দিকে একধাপ এগিয়ে যাবে।

কন্টেন্ট কোয়ালিটি


ইউটিউব চ্যানেলকে উন্নতকরণে একটি গুরুত্বপূর্ণ বৈশিষ্ট্য রাখে চ্যানেলের কন্টেন্ট কোয়ালিটি। আপনার চ্যানেলের কন্টেন্ট কোয়ালিটি যদি ভালো হয় তাহলে অবশ্যই দর্শক’রা আপনার চ্যানেলের ভিডিওগুলো দেখতে আগ্রহী থাকবেন। ভালো কন্টেন্ট কোয়ালিটি ছাড়া কোনো চ্যানেলই সফলতার পথে অগ্রসর হতে পারে না। আমার মতে ৪০% ইউটিউব চ্যানেলই তাদের দর্শক হারায় খারাপ কন্টেন্ট কোয়ালিটির জন্য। তাই আপনার চ্যানেলের কন্টেন্ট কোয়ালিটি (যেমনঃ ভিডিও কোয়ালিটি, ভয়েজ কোয়ালিটি ইত্যাদি।) ভালো করার চেষ্টা করুন। আপনার চ্যানেলের কন্টেন্ট কোয়ালিটি ভালো হলে দর্শক’রা অবশ্যই আপনার চ্যানেলের ভিডিওগুলো দেখেতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করবেন। এর মাধ্যমেই আপনি এবং আপনার চ্যানেল দর্শক’দের মনে জাইগা দখল করতে পাররে।

ক্রিয়েটিভ কিছু করা


আপনার ইউটিউব চ্যানেলকে ভালো পর্যায়ে নিয়ে যেতে হলে অবশ্যই আপনাকে ক্রিয়েটিভ কিছু করতে হবে। অন্যদের ভিডিও নকল করবেন না, নিজে কিছু ক্রিয়েটিভ করুন। আপনি যদি এমন কোনো বিষয়ে ভিডিও বানান যা ইউটিউব-এ প্রথম থেকে আছে তাহলে আপনাকে আপনার ভিডিও’তে ক্রিয়েটিভ কিছু করতে হবে যাতে দর্শক’রা আপনার ভিডিও’টাই দেখতে আগ্রহী বোধ করে। আপনার ভিডিও’র কোনো মুহূর্তে ১ সেকেন্ডের জন্যও যেন কোনো দর্শক বিরক্তি বোধ না করে এই ব্যাপারে খেয়াল রাখুন। প্রত্যেক ভিডিও’তে নিজের সর্বোত্তম ক্রিয়েটিভিটির প্রদর্শন করুন এবং এর মাধ্যমেই দর্শক’দের হৃদয়ে জাইগা করে নিন।

আত্মবিশ্বাসী হয়ে উঠুন


একটি ইউটিউব চ্যানেলকে ভালো পর্যায়ে নিয়ে যেতে হলে অবশ্যই আপনাকে আত্মবিশ্বাসী হতে হবে। আপনার ইউটিউব চ্যানেলের প্রত্যেক ভিডিও’তে আপনার আত্মবিশ্বাসের প্রদর্শন করুন এবং নিজেকে একজন আত্মবিশ্বাসী মানুষ হিসেবে আপনার চ্যানেলের দর্শক’দের কাছে নিজেকে উপস্থাপন করুন, এতে আপনার চ্যানেলের দর্শক’রাও আপনার উপর আত্মবিশ্বাসী হয়ে উঠবে এবং আপনার প্রতি তাদের বিশ্বাসও বাড়বে। আপনার প্রতি দর্শক’দের আত্মবিশ্বাস বৃদ্ধি পেলে তারা নিজে থেকেই আপনার ভিডিও’র প্রতি আকৃষ্ট হবেন।

প্রচলিত বিষয়গুলো নির্ণয় করা


আপনার চ্যানেলকে এগিয়ে নিয়ে যেতে হলে আপনাকেও সময়ের সাথে তাল মিলিয়ে চলতে হবে। বর্তমানে সময়ে দর্শক’রা কি বিষয় নিয়ে জানতে আগ্রহী তা জেনে আপনাকে ভিডিও বানাতে হবে এবং এতেই দর্শক’রা আপনার ভিডিওগুলো দেখতে উৎসাহী বোধ করবেন।

আকর্ষণীয় থাম্বনেইল


একটি ভিডিও’কে আরও আকর্ষণীয় করে তুলে তার থাম্বনেইল। আপনার ভিডিও’র থাম্বনেইল যদি ভালো হয় তাহলে দর্শক’রা আপনার ভিডিও’র প্রতি আকৃষ্ট হবেন। বেশিরভাগ দর্শকই ভিডিও দেখেন সেই ভিডিও’র থাম্বনেইলটা যদি ভালো হয় তাহলে। তাই আপনার চ্যানেলকে উন্নত পর্যায়ে নিয়ে যেতে হলে আপনাকেও আপনার ভিডিওগুলোর জন্য আকর্ষণীয় থাম্বনেইল ব্যবহার করতে হবে। থাম্বনেইলগুলো এমনভাবে বানাতে হবে যাতে সেইসব থাম্বনেইল দর্শক’দের নজর কেরে নেই। এর মাধ্যমেই আপনার চ্যানেলের খ্যাতি বৃদ্ধি পাবে।

সঠিক প্রচারণা


আপনার চ্যানেলকে একটি ভালো পর্যায়ে নিয়ে যেতে হলে অবশ্যই আপনাকে আপনার চ্যানেলের ভিডিওগুলো প্রচারণা করতে হবে। প্রচারণা না করলে কেউ আপনার ভিডিও’র সম্পর্কে জানতে পারবে না তাই নিজের ভিডিও’র প্রচারণা-কে বেশি গুরুত্ব দিন। বর্তমানে কোনো কিছুর প্রচারণার জন্য অন্যতম জাইগা হলো সামাজিক যোগাযোগ ওয়েবসাইটগুলো। কারণ বর্তমানে এটাই এমন একটা জাইগা যেখানে সব শ্রেণির লোকেদের অবস্থান। তাই আমার মতে সামাজিক যোগাযোগ ওয়েবসাইটগুলোতে আপনার চ্যানেল এবং ভিডিওগুলোর প্রচারণা করুন আশা করছি এতে আপনি আপনার ভিডিও’তে অনেক দর্শক পাবেন।
আশা করছি এই লেখাটি আপনার ইউটিউব চ্যানেলকে একটি উন্নত পর্যায়ে নিয়ে যেতে সাহায্য করবে। লেখাটি ভালো লাগলে অন্যদের সাথে শেয়ার করুন এবং অন্যকেও পড়ার সুযোগ দিন। অনেক অনেক ধন্যবাদ লেখাটি পড়ার জন্য।

9 thoughts on "ইউটিউব চ্যানেল উন্নয়নে আপনার যা করণীয়!"

  1. Alone Life IMDAD SHUVRO Author says:
    ভাই ইউটিউব চ্যানেলে Monitazation Enable করতে পারতেছি না কি করবো,,??


    1. Prokash Singha Prokash Singha Author Post Creator says:
      ভাইয়া, এটা ইউটিউবেরই একটি সমস্যার কারণে হচ্ছে। কিন্তু অনেক তাড়াতাড়িই ইউটিউব এই সমস্যার সমাধান করবে।
  2. Kamrul Kamrul Contributor says:
    খুব সুন্দর ভাবে বুঝিয়ে দিয়েছেন।
    খুব ভাল লাগলো…
    1. Prokash Singha Prokash Singha Author Post Creator says:
      ধন্যবাদ, ভাইয়া।
  3. AL Mamun AL Mamun Contributor says:
    অসংখ ধন্যবাদ
    1. Prokash Singha Prokash Singha Author Post Creator says:
      স্বাগতম, ভাইয়া।
  4. Ashraful Ashraful Author says:
    Apnar ki YouTube account ase?
    1. Prokash Singha Prokash Singha Author Post Creator says:
      আগে ছিল ভাইয়া, কিন্তু বর্তমানে ইউটিউব-এ কাজ করতে চাচ্ছি না।
  5. আমি একটা youtube চ্যানেল কিনতে চাই কেউ বিক্রি করতে চাইলে রিপ্লে করুন।

Leave a Reply