রগ ফোন!

কম্পিউটার গেমিঙের দুনিয়ায় আসুসের সাব ব্র্যান্ড ROG হচ্ছে সকল ইউজার এবং গেমারদের কাছে অতি সুপরিচিত নাম। জিপিউ, মাদারবোর্ড থেকে শুরু করে প্রায় সকল পেরিফেরালসেই আমরা এখন ‘Republic Of Gamers’ বা ROG ব্র্যান্ডটি দেখতে পাচ্ছি। কম্পিউটার গেমিঙে আধিপত্য বিস্তারের পর এবার পোর্টেবল গেমিং অর্থাৎ স্মার্টফোন গেমিঙের দুনিয়ার প্রবেশ করছে ROG তাদের সব্য নতুন গেমিং ফোনের মাধ্যমে। জি হ্যাঁ, ROG তাদের Computex 2018 এর প্রেস কনফারেন্সে ঘোষণা করল তাদের নতুন ROG Phone । খুবই সিম্পল নাম হলেও ফোনের ইনিশিয়াল পারফর্মেন্স সিমপ্লি এমেজিং।

স্পেসিফিকেশন:

সাধারণ স্পেসিফিকেশন

ROG ফোনে ব্যাবহার করা হবে ল্যাটেস্ট এবং সুপারফাস্ট Qualcomm Snapdragon 845 প্রসেসর যা চলবে আল্টিমেটলি ২.৯৫ গিগাহার্টজ পর্যন্ত যা যে কোন ফোনের জন্য প্রায় একদমই ওভারকিল। তবে এই প্রসেসরের সাথে কি ধরণের Adreno জিপিউ কম্প্যাটিবল হবে তা জানা যায় নি তবে বলা যাচ্ছে এটিও একেবারে ল্যাটেস্ট ও পাওয়ারফুলই হবে। এছাড়া ফোনটিতে প্রোভাইড করা হয়েছে ৮ জিবি র‍্যাম যা আপনাকে নিশ্চিত করবে স্মুথ মাল্টি টাস্কিং। এছাড়া ধারণা করা হচ্ছে মডেল ভেদে আপনারা স্টোরেজ পেতে পারেন ১২৮ জিবি থেকে ৫১২ জিবি পর্যন্ত। এটা ছাড়াও পেছনে পাচ্ছেন ডুয়াল ক্যামেরা সেটাপ আর ফিঙ্গারপ্রিন্ট রিডার। আর আপনি যেন কোন বাধা বিপত্তি ছাড়াই লং টাইম গেমিং করে যেতে পারেন সেজন্য এতে দেয়া হয়েছে ৪ হাজার মিলি এম্প আওয়ার ব্যাটারি। অন্যান্য সাধারণ ফিচার নিয়ে এখনো কোন কনফার্মেশন পাওয়া যায় নি তবে মূল ওভারভিউতে আপনাদের সব জানানো হবে।

ডিস্পেলে

যেহেতু গেমিং ফোন, এর মূল দুইটি ফিচারের মধ্যে একটি হচ্ছে ফোনের সুপারকুল ডিসপ্লে। এই ফোনে দেয়া হয়েছে ৬ ইঞ্চি ১৮ঃ৯ এসপেক্ট রেশিওর ২১৬০*১০৮০ পিক্সেলের সুপার এমোলেড ডিসপ্লে। এই সাধারণ এমোলেড ডিসপ্লের স্পেসিফিকেশন দেখে অনেকের মনে হয়ত একটি চিন্তা আসতে পারে এ আর এমন কি? কিন্তু এই ডিসপ্লেটি কোন সাধারণ ডিসপ্লে নয়। এটি হচ্ছে যে কোন ফোনের ইতিহাসে সবচেয়ে ফাস্ট ডিসপ্লে।

বিভিন্ন গেমিং ফোনে ১০০/১২০ হার্টজ ডিসপ্লে দেখা গেলেও তাদের রেসপন্স টাইম সাধারণ ফোনের মতই ছিল। ROG ফোনের ডিসপ্লে রিফ্রেশ রেট করা হয়েছে ৯০ হার্টজ অর্থাৎ যে কোন গেম এমনকি পাবজিও আপনারা আলট্রা সেটিংসে ৯০ ফ্রেমস পার সেকেন্ডে স্মুথলি খেলতে পারবেন। কিন্তু ডিসপ্লে রেসপন্সটাইম ঠিক না থাকলে এই হাই রিফ্রেশ রেট তেমন একটা কাজে দেয় না। তাই প্রিমিয়াম এবং ল্যাগ ফ্রি গেমিঙের কথা চিন্তা করে ডিসপ্লের ইনপুট টাইম কমিয়ে আনা হয়েছে সর্বনিম্ন ১ মিলিসেকেন্ডে। অর্থাৎ এই ফোনে গেমিঙের সময় আপনাকে কোন প্রকার ল্যাগের সম্মুখীন হতে হবে না।

বডি ফিচার

অন্যান্য সাধারণ ফোনে আমরা নীচে কেবল একটি মাইক্রো ইউএসবি বা ইউএসবি টাইপ সি পোর্ট দেখতে পাই। ROG Phone এ দেয়া হয়েছে একটি নয়, দুটিও নয়, একেবারে ৩ টি ইউএসবি টাইপ সি পোর্ট। বেশিরভাগ সময় দেখা যায় গেমিং এর সময় আপনি আপনার ফোনকে চার্জ দিতে পারছেন না। তাই ফোনের দুই পাশে থাকা পোর্টের মাধ্যমে গেমিঙের সময় খুব সহজেই ফোনকে চার্জ দিতে পারবেন। এছাড়া ফোনের চার কর্নারে চারটি খাজ কাটার মত অংশ রয়েছে। এগুলো গেমিঙের সময় শোল্ডার বাটন হিসেবে কাজ করবে।

এবার ডাউন বা রিয়ার ফেসিং না করে দুটি ফ্রন্ট ফেসিং স্টেরিও স্পীকার দিয়েছে ROG । যাতে গেমিঙের সময় ROG Phone এ গেমের সাউন্ডের ইমারশনে হারিয়ে যেতে পারেন। আর চিন্তা করবেন না, ট্রেন্ডের সাথে মিল রেখে হেডফোন জ্যাক সরানোর তথাকথিত সাহস ROG এখানে দেখায়নি।

কুলিং ফিচার

এই ফোনের দ্বিতীয় স্পেশাল ফিচার হচ্ছে ফোনটির কুলিং সিস্টেম। যেহেতু সম্পূর্ণ গেমিং অরিয়েন্টেড একটি ফোন হাই এন্ড কম্পোনেন্টকে ঠান্ডা এবং কার্যক্ষম রাখার জন্য খুব ভাল মানের প্রিমিয়াম কুলিং প্রয়োজন।

এই ফোনটির ইন্টারনাল কম্পোনেন্টকে ঠান্ডা রাখার জন্য ফোনের মধ্যে দেয়া হয়েছে ম্যাসিভ 3D ভেপার কুলিং চেম্বার। এই কুলিং চেম্বার আপনার ফোনের ভেতরে যত হিট জমা হবে খুব দ্রুত তা বের করে দিতে পারবে।

এছাড়া গেমিঙের সময় ফোন যেন বেশি গরম না হয়ে যায় তার জন্য ROG প্রোভাইড করেছে স্পেশাল কুলিং ফ্যান ডক। এই কুলিং ফ্যান আপনি কন্ট্রোল করতে পারবেন ROG Game Center এপটির দ্বারা।

আরজিবি লাইটিং

২০১৮ সালে আরজিবি লাইটিং ছাড়া এখন খুব কম জিনিসই কল্পনা করা যায়। কিন্তু ফোনের মধ্যেও এখন আমরা আরজিবি ট্রেন্ড দেখতে যাচ্ছি। ফোনের পেছনে রয়েছে ROG লোগো যা আরজিবি লাইটিং ইলুমিনেটেড। এর কালারকে আপনি আপনার পছন্দ অনুযায়ী কাস্টোমাইজ করে নিতে পারবেন।

এছাড়াও আপনি ফোনের সাথে যে কুলিং ফ্যান পাবেন তার লোগতেও পাবেন আরজিবি লাইটিং। হেডফোন জ্যাক সরানোর ট্রেন্ডে না গেলেও আরজিবির ট্রেন্ড স্মার্টফনে ঠিকই আনল ROG।

অন্যান্য এক্সেসরিজ

এখন যে এক্সেসরিজের কথাগুলো বলব তা ROG Phone এর সাথে আপনারা পাবেন না। বরং আপনাদের আলাদা করে কিনে নিতে হবে। শুরুতেই হচ্ছে আসুস ডুয়াল ডক স্ট্রিমিং ডিভাইস। এই ডিভাইসের মাধ্যমে আপনি দুটি ফোন সাইমুল্টেনিয়সালি কানেক্ট করে যে কোন স্ট্রিমিং ওয়েবসাইট গেম স্ট্রিম করতে পারবেন।

এছাড়াও ROG গেম ভাইস নামক কোম্পানির সাথে পার্টনার আপ করে তৈরি করেছে ফোনের জন্য স্পেশালাইজড গেমপ্যাড যা কানেক্ট করা যাবে ইএসবি সি পোর্টের মাধ্যমে।

এছাড়াও ROG তৈরি করেছে একটি ডেস্কটপ ডকিং সিস্টেম। এই ডিভাইসে ফোন কানেক্ট করে আপনি সম্পূর্ণ একটি গেমিং ডেস্কটপ ফিল পাবেন ফোন থেকেই। এই ডকে বিভিন্ন ধরণের পোর্ট আর ফিচার দেয়া হয়েছে।

Rog Dual Stream Dock

               Rog Gamepad

   Rog Desktop Dock      

দাম ও লঞ্চ ডেট

এই ফোনের ইনিশিয়াল দাম সম্পর্কে তেমন কিছু একটা জানা যায় নি। তবে ধারনা করা হচ্ছে দাম অন্যান্য ফ্ল্যাগশিপ ফোনের আশেপাশেই হবে। ROG Phone এই বছর অর্থাৎ ২০১৮ সালের আগস্ট মাসের মধ্যেই রিলিজ পেতে পারে।

খাতা কলমে ROG Phone অন্যান্য কিছু ফোনের থেকে অনেক ভাল মানের স্পেসিফিকেশন অফার করছে। যদি সবকিছু ঠিক থাকে তাহলে এই ফোন হয়ে উঠতে পারে এই জেনারেশনের আল্টিমেট গেমিং স্মার্টফোন।

**Note: All the pictures are taken from Engadget YouTube Channel.

5 thoughts on "আসুসের নতুন গেমিং ফোন রগ। দেখে নেওয়া যাক এর স্পেসিফিকেশন।"

  1. Md Jahid Md Jahid Contributor says:
    দাম টাই জানতে পারলাম না
    1. Raj gh Author Post Creator says:
      ৭০ হাজার (Approximately)
      1. tishat Contributor says:
        সামর্থ্য নাই কিনার😃😃
  2. Shihab21 Contributor says:
    বড় লোকের ফোন☺☺
    1. Raj gh Author Post Creator says:
      হুম

Leave a Reply