আসসালামুয়ালাইকুম। কেমন আছেন বন্ধুরা। আজকে আমি আপনাদের সাথে শেয়ার করব কীভাবে আপনার আন্ড্রয়েড ৪.২.২ থেকে ৫.০.২ ভার্সন। আপনারা এখনও রুট সম্পর্কে অনেকেই জানেন না। তাই একটু বলে নিতে চাই।পরে আমাকে গালি দিবেন না।

রুট করার সুবিধা
>> পারফরমেন্স বাড়ানোঃবিভিন্ন অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহার করে ডিভাইসের অব্যবহৃত ফাইল, টেমপোরারি ফাইল ইত্যাদি নিয়মিত মুছে ফোনের গতি ঠিক রাখা।
>> ওভারক্লকিংকরাঃ সিপিইউ স্পিড স্বাভাবিক অবস্থায় যতটা থাকে তারচেয়ে বেশি দ্রুত কাজ করানো। এর মাধ্যমে কোনো বিশেষ কাজে প্রসেসরের গতি বাড়ানোর প্রয়োজন পড়লে তা করা যায়।
>> আন্ডারক্লকিংকরাঃ যখন ডিভাইস এমনিতেই পড়ে থাকে, তখন সিপিইউ যেন অযথা কাজ না করে যে জন্য এর কাজের ক্ষমতা কমিয়ে আনা। এতে করে ব্যাটারি ব্যাকআপ বাড়ানো সম্ভব।
>> কাস্টমইউআই: আপনার ডিভাইসের হোমস্ক্রিন, লক স্ক্রিন, মেনু ইত্যাদি বিভিন্ন ইউজার ইন্টারফেসের ডিজাইন একটা সময় পর আর ভালো নাও লাগতে পারে। তখন আপনি ডিভাইসে নতুনত্ব আনতে পারবেন নতুন সব কাস্টম ইউজার ইন্টারফেসের মাধ্যমে। এগুলোকে অন্যভাবে রমও বলা হয়।
>> কাস্টম রম:ইন্সটল করার সুবিধা। অনেক ডেভেলপার বিভিন্ন জনপ্রিয় ডিভাইসের জন্য কাস্টম রম তৈরি করে থাকেন। এসব রম ইন্সটল করে আপনি আপনার সেটকে সম্পূর্ণ নতুন একটি সেটের রূপ দিতে পারবেন। বাইরে থেকে অবশ্যই এর ডানা-পাখনা গজাবে না বা ক্যামেরা ৫ মেগাপিক্সেল থেকে ৮ মেগাপিক্সেল হবে না, কিন্তু ভেতরের ডিজাইন ও ক্ষেত্রবিশেষে পারফরম্যান্সেও আসবে আমূল পরিবর্তন।
রুট করার অসুবিধা
>> ওয়ারেন্টি হারানোঃডিভাইস রুট করার মাধ্যমে আপনার ওয়ারেন্টি বাতিল হয়ে যাবে। তাই রুট করার আগে সাবধান। অবশ্য অনেক সেট আবার আনরুট করা যায়। আর সেট আনরুট করা হলে তা সার্ভিস সেন্টারে থাকা টেকনিশিয়ানরা অনেক সময়ই ধরতে পারেন না যে সেটটি রুট করা হয়েছিল। তবে কাস্টম রম থাকলে ধরা খাওয়া এড়ানোর উপায় নেই।
>> ফোনব্রিক করাঃ ব্রিক অর্থ ইট। আর ফোন ব্রিক মানে আপনার ডিভাইসকে ইটে রূপান্তরিত করা। অর্থাৎ, এর কাজ করার ক্ষমতা হারানো। রুট করা ও এর পরবর্তী বিভিন্ন কাজের সময় একটু এদিক-সেদিক হলেই ফোনে স্থায়ী বা অস্থায়ী সমস্যা হতে পারে। আপনার ফোনের প্রস্তুতকারক কোম্পানি ফোনটি আনরুট অবস্থায় দেন যেন এর ক্ষতি না হয়। রুট করার মাধ্যমে আপনি সেই নিশ্চয়তা ভেঙ্গে ফেলছেন।

3 thoughts on "[APP ] রুট করে নিন আন্ড্রয়েড ৪ . ২ . ২ থেকে শুরু করে ৫ . ০ . ২ ভার্সন"

  1. ssarker says:
    আসসালামু আলাইকুম।আশা করি আপনারা সবাই ভালো আছেন।যদি কোনো ভুল হয়ে থাকে তাহলে দয়া করে ক্ষমার চোখে দেখবেন।আজকে আমি আপনাদের সাথে একটু আয়ের ব্যাপার নিয়ে আলোচনা করবো।আজকে আমি তাদের আয়ের ব্যাপারে কথা বলব,যাদের পিসি নেই এবং পিসি থাকা সত্ত্বেও পিটিসি বা অন্যকোনো জায়গা থেকে আয় করতে পারছেন না।যারা জানেন এ সম্পর্কে তারা লগিন করে দেখুন,অনেক ভালো ডলারের এড দিচ্ছে।
    তো চলুন শুরু করা যাকঃ
    প্রথমে অ্যানড্রয়েড ব্যবহারকারিরা নিচে থেকে সফটওয়্যার টি ডাউনলোড করে নিন।
    Download WHAFF REWARDS app from Google PLay Store

    Or,

    Download from Here-(Clear the space in the link)

    h t t p : / / b i t . l y / 1 M u T j j e

    ডাউনলোড করার পর যথারীতি ইনষ্টল করুন এবং ওপেন করুন।ওপেন করার পর দেখবেন পেজ আকারে আপনাকে টিউটোরিয়াল শেখাচ্ছে কিভাবে এখান থেকে আয় করবেন।দেখার পর আপনি উপরের মেনুর বামদিকে দেখবেন লগিন লেখা আছে,সেখানে ক্লিক করুন।করার পর দেখবেন ফেসবুক পেজ লোড হয়েছে।এখন আপনার ফেসবুক আইডি দিয়ে লগিন করুন।যদি কোনো Invitation Code চায় তাহলে এই কোড দিয়ে দিবেন।কোডটি হলঃBG42026.এটা না দিলে আপনি লগিন করতে পারবেন না।তবে কোনো কোনো মোবাইলে না ও চেতে পারে।আপনি যদি এই কোড দেন তাহলে আপনি ০.৩০$ ডলার পাবেন আপনার একাউন্টে।আর যদি কোড না দেন তাহলে কিছু পাবেন না।এটাকে রেফারেল লিঙ্ক মনে করবেন না।এটি দিলে আপনার আয়ের পরিমাণ অনেকটা বেড়ে যাবে আর কি।এই হচ্ছে বেসিক।
    এখন কথা আয় বাড়াবো কিভাবে?
    আপনি লগিন করার পর দেখতে পাবেন অনেকগুল গেম অথবা সফটওয়্যার এসেছে।এগুলো খুব ছোট এম্বির হয়।যদি কোনোটি বড় এম্বির হয় তাহলে প্যাকেজ ডাটা ব্যবহার কারিরা এড়িয়ে যান।আপনি এগুলো ডাউনলড করলে ০.২০ থেকে ০.৯০ এবং মাঝে মাঝে ১.৩০ ডলার ও পেতে পারেন।তাছাড়া ও এগুলো প্রতিদিন ব্যবহার করলে আপনাকে ০.০৫ থেকে ০.২৫ ডলার পর্যন্ত পে করবে।আবার আপনি যদি কোনো কিছু ডাউনলোড করেন এবং তা প্রতিদিন ওপেন করেন।তাহলে ২ দিন পর আপনি ০.১০ ডলার পাবেন।তাছাড়া আপনি প্রতিদিন Whaff এ ঢুকলে ০.০১ ফ্রিতে দিবে।এটাকে বলে রেগুলার এটেনডেন্স।
    মিনিমাম পেআউট কত?
    মিনিমাম পেআউট মাত্র ১০ ডলার।পেপাল এর ক্ষেত্রে ১০.৫০ ডলার।
    ১০ ডলার আয় করতে তো অনেক সময় লাগবে,তাই না?
    মোটে ও না।এটা শুধু দেখতে মনে হয়।ইনশাল্লাহ ৫-৯ দিনেই আপনি পৌছাতে পারবেন।আমার ৯.২৪ ডলার হয়েছে ৭ দিনে।
    পেমেন্ট কিভাবে নেব?
    তারা Paypal,Amazon Gift Card,League Of legends,Itunes,Playstation Store Giftcard,Steam Giftcard,Xbox Giftcard,Facebook Giftcard এ পে করে।Playstore Gift Card এর মাধ্যমে আপনি Clash Of Clans এর জেমস কিনতে পারবেন।
    পেমেন্ট দিতে কত সময় লাগে?
    সরবোচ্চ ৭২ ঘন্টা।কিছু কিছু সময় আরো ৫-৬ ঘণ্টা বেশি সময় নেয়।
    তারা পেমেন্ট দিবে তো?
    ১০০% দিবে।বিস্বাস না হলে গুগলে সার্চ করুন।অসঙ্খ্য পেমেন্ট প্রুফ পাবেন।
    আজ এ পর্যন্তই।যারা Whaff ইতিমধ্যে ব্যবহার করছেন তারা অপেক্ষায় থাকুন।আমি শীঘহ্রই আপনাদের সাথে একটি ট্রিক শেয়ার করব,প্রাণপ্রিয় টেকটিউনসের সাথে।
    কোনো সমস্যা হলে টিউমেন্টে জানাবেন।সাহায্য করার জন্য রয়েছি।ভালো থাকবেন,ভালো রাখবেন।
    আসসালামু আলাইকুম।



  2. Saidul Saidul Author says:
    পোস্ট করার পর আর দেখননা কি লিখলেন। মনে যা আসলো তাই লেখেন।
  3. Shihab Hasnain Shahad Shihab Hasnain Shahad Contributor says:
    ki bepar???kivabey root korte hoi shei tai to bollo nj…😮😮

Leave a Reply