আমরা প্রায় সবাই এন্ড্রয়েড ব্যাবহার
করি। কিন্তু দেখা যায় ৭-৮ মাস যাবার পর
ফোনে চার্জ থাকে না। যার ফলে
ফোন আর ভালো লাগে না। তাই আজ
আমরা শেয়ার করব ঃ

১) নতুন মোবাইল কিনে কম পক্ষে
৮-১০ ঘন্টা চার্জ দিন।
২) খুব বেশী দরকার না হলে
ভাইব্রেশন ব্যবহার করবেন না।
ভাইব্রেশনের কারণে দ্রুত চার্জ
ফুরায়।
৩)মাসে একবার ব্যাটারীর সম্পূর্ণ
চার্জ শেষ হয়ে গেলে চার্জ দিন।
৪) চার্য দেওয়ার সময় Airplane mode
চালু করে রাখুন।তাড়াতাড়ি চার্য হবে।
৫) মোবাইলের ব্রাইটনেস কমিয়ে
রাখুন।বেশী আলো আপনার
চোখের সমস্যও করতে পারে!
৬) আমি ১৫ দিনে একবার factory data
reset দিই।আবার নতুন ভাবে সাজাই।
এতে ভাইরাস বা ম্যালওয়ার দূর হয়ে যায়
এবং মোবাইল ব্যাটারি দুটোই সুস্থ
থাকে। আপনারা যারা অতিরিক্ত
স্মার্টফোন ইউজার তারা প্রতি সাপ্তাহে
একবার রিসেট দিতে পারেন।
৭) সব সময় সেটের অরিজিনাল চার্জার
ব্যবহার করুন।
৮) যাদের গেমস খেলা বা মুভি দেখার
সময় বাইরে থেকে কল আসার
সম্ভাবনা কম তারা Airplane mode চালু
করে গেম খেলুন বা মুভি দেখুন।
৯) অকারণে ব্লু-
টুথ,ইন্টারনেট,ওয়াইফাই অন করে
রাখবেন না।

১০) নেটওয়ার্ক সিগন্যাল বারবার সার্চ
করলেও বেশি ব্যাটারি ক্ষয়। সুতরাং এটি
থেকে বিরত থাকুন।
১১) ঠাণ্ডা স্থানে মোবাইল ফোন
রাখুন। অর্থাৎ স্বাভাবিক তাপমাত্রায়। বেশি
গরম স্থানে মোবাইল ফোন রাখবে
না। আমি একটা আইপিএস-এর ওপর ব্যাটারি
রেখেছিলাম। পরে আমার
ফোনের ১৩টা বাজছে।
১২) চার্জ থেকে খুলার জন্য আগে
সকেট থেকে চার্জার খুলবেন
তারপর মোবাইলের কেব্ল খুলবেন

১৩) চার্জের সময় মোবাইল অফ রাখা
ভাল ( বিশেষ করে নতুন
মোবাইলের জন্য ) ।
১৪) ব্যাটারির আয়ু ১৫-৩০% থাকলে
চার্জ দিবেন এর আগেও না পরেও না

১৫) লম্বা সময় ধরে চার্জার লাগিয়ে
রাখবেন না । আমারা অনেকেই রাতে
ঘুমানোর সময় চার্জে দিয়ে ঘুমাই,
এতে করে ফুল চার্জ হওয়ার পরও
অনেক্ষন চার্জার কানেক্ট থাকে । এ
অভ্যাস ত্যাগ করুন, না হলে ব্যাটারীর
ক্ষতি হবে ।
১৬) WiFi, Location Services,
Bluetooth, কানেকশন মোবাইল
নেট কানেকশন থেকে বেশী
ব্যাটারি ব্যবহার হয় যদিও WiFi,
Location Services, Bluetooth,
কানেকশন অনেক যায়গায় সহজে ও
বিনা পয়সায় ব্যবহার করা যায়। তাই নেহাত
প্রয়োজন না হলে WiFi, Location
Services, Bluetooth, কানেকশন বন্ধ
করে রাখুন তাতে আপনার ব্যটারির লাইভ
সেইভ হবে।
১৭) Wall paper যদি animated বা
motion ওরিয়েন্টেড হয় তাহলে তা
ডিজেবল করে রাখুন।
১৮) বিভিন্ন ব্যাটারি সাপোর্টেড
ইউটিলিটি সফটওয়্যার ফ্রি পাওয়া যায় তা
ব্যবহার করতে পারেন।
১৯) ডেইলি মেইলে প্রকাশিত এক
রিপোর্টে জানা যায়, বিশেষজ্ঞদের
মতে, স্মার্টফোনের ব্যাটারি ১০০%
পর্যন্ত চার্জ করা ঠিক নয়! বরং এর চার্জ
সব সময় ৪০-৫০% এর উপরে রাখার
পরামর্শ দেয়া হয়েছে। অর্থাৎ,
আপনার ফোনের ব্যাটারির চার্জ
সবসময় ৪০-৮০ শতাংশের মধ্যে
রাখলে সেটাই তার পারফর্মেন্সের
জন্য সর্বোত্তম হবে। এমনকি
ওয়্যারলেস চার্জিং এড়িয়ে চলার
পরামর্শও দেয়া আছে এতে।
২০)লাইভ ওয়ালপেপার বা ভিবিন্ন
অপ্রয়োজনীয় সফটওয়ার ইনস্টল
থেকে বিরত থাকুন।মনে রাখবেন
যত কম< সফটওয়ার ইনস্টল থাকবে
মোবাইল তত বেশী দ্রুততর হবে
এবং ব্যাটারি কম খরছ হবে।
.

সর্বশেষ একটাই সমাধান সেটা হল
পাওয়ার ব্যাংক!

রানা ভাই এই পোস্টা আমার না। এই পোস্টা আমাকে দিয়ে এক ট্রিকবিডির ইউজার করিয়েছে। সে এই ট্রিকবিডিতে author হতে চায়।


নাম : Emon Hossain
User ID: 60461

10 thoughts on "কিভাবে আপনার ফোনের চার্জ ধরে রাখবেন।??? এর জন্য ২০ টি টিপস না দেখলে মিস করবেন! (আপনার লস)"

  1. Emon Hossain Emon Hossain Contributor says:
    এই পোস্টা আমার। ওমর ফারুক ভাইকে ধন্যবাদ। আমার পোস্টা ট্রিকবিডিতে করার জন্য।
    1. Sajjat Hossain Shanto Sajjat Hossain Shanto Author says:
      কি ভাই কপি ত ভালোই পারেন??
  2. . Contributor says:
    ওয়াও,,,, দারুণতো।
  3. badsha khan badsha khan Contributor says:
    আমি ১৫ দিনে একবার factory data
    reset দিই।আবার নতুন ভাবে সাজাই।
    এতে ভাইরাস বা ম্যালওয়ার দূর হয়ে যায়
    এবং মোবাইল ব্যাটারি দুটোই সুস্থ
    থাকে। আপনারা যারা অতিরিক্ত
    স্মার্টফোন ইউজার তারা প্রতি সাপ্তাহে
    একবার রিসেট দিতে পারেন।
    ?????
    Ai khota ta vul
    1. DM DM Contributor says:
      akmot barbar reset dewa valo na ate phm ar khoti hoi.
    2. Sajjat Hossain Shanto Sajjat Hossain Shanto Author says:
      কপি করলে আর কি করবে!!
  4. Astonnoor Astonnoor Contributor says:
    প্রত্যেক সাপ্তাহে একবার রিসেট দিবো। LOL
    রিসেট দেওয়ার পর আবার জিমেইল দেওয়া লাগে।
    আবার কত আ্যপ ইন্সটল দেওয়া লাগে।
    পাগলা নাকি।
  5. noyon.nr Contributor says:
    ভাই ইউটিলিটি সফটওয়্যার এর কাজ কি??
  6. Sajjat Hossain Shanto Sajjat Hossain Shanto Author says:
    Br0 এই পোস্ট ডিলেট করুন। এই পোস্ট সর্ব প্রথম আমি আমার ব্লগে করেছিলাম। আর কোথাও শেয়ার করি নি। আর তাছাড়া এই পোস্ট Html দিয়ে আরো সুন্দর ডিজাইন ছিল। কিন্তু কপি করায়! সেটা কি হইছে দেখছেন??

Leave a Reply