বিশেষ ভাবে মনে রাখতে হবে
জারণ :

১. e- এর অপসারণ
২.ধনাত্মক চার্জ ↑
৩. ঋণাত্মক চার্জ ↓
৪.যোজ্যতা বৃদ্ধি ↑
বিজারণ :
১. e- এর সংযোজন
২.ধনাত্মক চার্জ ↓
৩. ঋণাত্মক চার্জ ↑
৪.যোজ্যতা হ্রাস ↓
জারণ = ইলেক্ট্রন ত্যাগ
জারক = ইলেক্ট্রন গ্রহণ
বিজারণ = ইলেক্ট্রন গ্রহণ
বিজারক = ইলেক্ট্রন ত্যাগ
জারণে ঘটে :
১. O2 সংযোজন : 2SO +O = SO
২. তড়িৎ ঋণাত্মক মৌলের সংযোজন :
2Fe+3C = 2FeC
৩. H অপসারণ : H S+Cl = 2HC +S
৪. ধনাত্মক মৌলের অপসারণ : 2Cu O
+O = 4CuO
৫. যোজ্যতা বৃদ্ধি : 2FeC +C = 2FeC
(Fe এর যোজনী 2 থেকে 3 হয়)
৬. ইলেক্ট্রন দান : Fe +-e- → Fe +
বিজারণে ঘটে :
১. O অপসারণ : CuO+H O = Cu+H O
২. তড়িৎ ঋণাত্মক মৌল/মূলক অপসারণ :
2FeC +H = 2FeC +2HCl
৩. ঋণাত্মক মূলক সংযোজন : HgC +Hg =
Hg C
৪. যোজ্যতা হ্রাস : 2FeC +H =
2FeC +2HC (Fe এর যোজনী 3 থেকে
2হয়)
৫. ইলেক্ট্রন দান : C +e- → C –

2 thoughts on "জারন-বিজারন,জারক-বিজারক মনে রাখার সহজ কৌশল"

  1. Mohammad Samiul Mohammad Samiul Contributor says:
    nice


    1. Asr Rifat ✅ Asr Rifat Contributor Post Creator says:
      tnx 😀

Leave a Reply