আসসালামু আলাইকুম। আশা করি সবাই ভালো আছেন। আজ আমি আপনাদের মাঝে শেয়ার করবো পরীক্ষায় maximum students এর করা কিছু ভুল নিয়ে। আমাদের মধ্যে অনেক students নিজের অজান্তেই না চাইলেও পরীক্ষা চলাকালীন সময়ে কিছু mistake করে থাকি। আর এই mistake গুলোর কারণে প্রায় সময় আমাদের exam খারাপ হয়ে যায়। তো আজ এই আর্টিকেলটিতে আমি পরীক্ষার দিনগুলোতে করা সেইসব কমন mistake গুলো সম্পর্কে আলোচনা করবো। এবং এগুলো করা থেকে বিরত থাকার কিছু effective solution ও তুলে ধরবো। তো চলুন শুরু করা যা।

Don’t compare your answer with other students


এমন অনেক শিক্ষার্থী আছে যারা পরীক্ষার হলে প্রশ্নপত্রের maximum question এর উত্তর জানার পরও নিজের answer গুলো সঠিক আছে কি-না সেগুলো পুরোপুরি কনফার্ম হওয়ার জন্য আশেপাশের শিক্ষার্থীকে সেগুলো জিজ্ঞেস করে। যেটা করা একদমই ঠিক না। কারণ আপনি যাকে প্রশ্নটি জিজ্ঞেস করছেন সে যে উত্তরটি সঠিক জানে তার কিন্তু কোন গ্যারান্টি নেই। তাছাড়া যদি সে এমন কোন answer বলে যেটা আপনার answer এর সাথে match না হয় তখন আরও বেশি problem create হয়। কারণ ব্যাতিক্রম উত্তর শুনে আপনারা ওই answer related confusion হতে থাকে। ফলে অনেক সময় নষ্ট হয়। এক্ষেত্রে students নিজের answer টি ভুল মনে করে না লিখে অন্যের কাছ থেকে শোনা answer টি সঠিক মনে করে সেটিকে পরীক্ষার খাতায় লিখে আসে। আর তারপর পরীক্ষার হল থেকে বেরিয়ে যখন সে জানতে পারে যে সে যে উত্তর জানতো সেটা সঠিক তখন তার আর আফসোসের সীমা থাকে না। কারণ তখন আর কিছু করারও থাকে না। তাছাড়া প্রত্যেক ক্লাসে এমন কিছু দুষ্ট student যারা ইচ্ছা করে কেউ কোন প্রশ্নের উত্তর জিজ্ঞাসা করলে তাকে ভুল উত্তর বলে দেয়। যাতে করে সেই সহজ সরল student ই পরীক্ষার খাতায় কম নম্বর পাই। তবে তারা ভুল বললেও নিজের পরীক্ষার খাতায় সঠিক উত্তরটিই লেখে। আর পরবর্তী তে তাদের exams এর রেজাল্ট দেখলে আপনি তা এমনিতেই বুঝতে পারবেন।
তাই, এক্ষেত্রে আমি extremely recommend করবো নিজে যে উত্তর গুলো ভালো পারেন সেগুলো কখনোই অন্য কারো কাছ থেকে জিজ্ঞেস করবেন না। আর যে উত্তর গুলো আপনি পারেন না সেগুলো সম্পর্কে যতটুকু জানেন সেগুলো মনে করে উত্তর গুলো বানিয়ে লেখার জন্য সর্বোচ্চ চেষ্টা করুণ। অন্য কোন student এর কাছে পরীক্ষার হলে সাহায্য না নেওয়ায় উত্তম।

Avoid cheking out answer of previous day question


আমাদের মধ্যে maximum student পরীক্ষা দিয়ে বাসায় এসে রেস্ট না নিয়েই তাড়াহুড়ো করে প্রশ্নপত্র বের করে সেগুলোর solution খুজতে বসে যায়। যেটি করা একদম ঠিক কাজ নয়। আসলে তখন আমারা পরীক্ষায় আসা প্রশ্ন গুলোকে পাই টু পাই text book এবং Solution এর সাথে দেখতে থাকি কয়টি প্রশ্নের উত্তর সঠিক হয়েছে আর কয়টি হয়নি।আর তারপর মোট ১০০ নম্বরের মধ্যে আনুমানিক কত পাবো সেগুলো হিসাব করতে বসে যায়। আর যদি হিসাবের পর নম্বর বেশি আসে তাহলে তো ভালো। আর যদি কম নম্বর আসে তাহলে তো আর কোনো কথায় নেই। তখন নম্বর কম আসলো কেন সেটা হিসাব করতে বসে যায়। যেটি পরবর্তী পরীক্ষার জন্য মারাত্মক ক্ষতি করে।
তাই পরীক্ষা দিয়ে বাসায় এসে কিছু সময় রেস্ট নিয়ে পরবর্তী পরীক্ষার জন্য প্রস্তুতি নেওয়া উচিত। আগের পরীক্ষার প্রশ্ন দেখে মন খারাপ করা উচিত না। এতে করে পরবর্তী পরীক্ষাগুলোও খারাপ হয়ে যায়। টপার student পরীক্ষা দিয়ে বাসায় এসে আগের পরীক্ষার প্রশ্ন দেখে মন খারাপ না করে। তারা পরবর্তী পরীক্ষার জন্য প্রস্তুতি নেওয়া শুরু করে।

তো বন্ধুরা আজ এই পর্যন্ত। সবাই ভালো থাকবেন। ভালো লাগলে একটা লাইক দিয়ে যাবেন। বিদায়।

4 thoughts on "পরীক্ষায় দুটি কমন mistake। যার কারণে প্রায় সময় আমাদের রেজাল্ট খারাপ হয়ে যায়।"

  1. MD FAYSAL Contributor says:
    ধন্যবাদ পোস্ট টা করার জন্য
  2. MD Nazmul Islam Author says:
    Informative article
  3. S Contributor says:
    Last problem ta amar ache exam dia aisa answer na milaile santi pai na😂. Beses kore public exam gula te

Leave a Reply