আসসালামুয়ালাইকুম প্রিয় মেম্বার গণ।

কেমন আছেন সবাই।

আশা করি আল্লাহর রহমতে ভালো আছেন সবাই।

আমিও আলহামদুলিল্লাহ ভালো আছি।

আজকের বিষয় হলো গ্রামীণফোন সিম

এর প্রিপেইড প্যাকেজ এবং পোস্টপেইড প্যাকেজ এর

মধ্যে সুবিধা অসুবিধা নিয়ে।

আমরা জানি বাংলাদেশের টেলিকমিউনিকেশন

এর ক্ষেত্রে গ্রামীণফোন এর অবদান

সবচেয়ে বেশি।

যেই সময় বাংলাদেশে প্রথম

যোগাযোগ ব্যবস্থা গড়ে ওঠে ঠিক তখন

গ্রামীণফোন এর মাধ্যমে দেশের প্রায় ৭০%

মানুষ টেলিযোগযোগ

এর মধ্যে সংযুক্ত হয়।

বর্তমানে গ্রামীণফোন অনেক ভালো

সার্ভিস দিয়ে যাচ্ছে আমাদের সবাইকে।

তাদের ২ টি প্যাকেজ আছে একটি প্রিপেইড প্যাকেজ অন্যটি

হলো পোস্টপেইড প্যাকেজ।

বাংলাদেশের ৮০% মানুষ প্রিপেইড প্যাকেজ ব্যাবহার করে

খুব কম সংখ্যক মানুষ পোস্টপেইড প্যাকেজ ব্যাবহার করে।

আমরা যারা গ্রামীণফোন সিম ইউজ করি

আমরা জানি এই সিম এর সব

ভালো কিন্তু খরচ একটু বেশি

অন্য সিম এর তুলনায়

আজকে আমি বলবো কোন প্যাকেজ এর সুবিধা বেশি।

গ্রামীণফোন প্রিপেইড এর সুবিধা অসুবিধা:

i) প্রিপেইড প্যাকেজ এ কল রেট বেশি

প্রতি মিনিটে প্রায় ২ টাকা এর মত চার্জ কাটে।

ii) প্রিপেইড প্যাকেজ এ বিভিন্ন অ্যামাউন্ট

রিচার্জ করার পর স্পেশাল কল রেট ব্যাবহার করা যায়।

iii) যেকোনো মোবাইল ফিনান্সিয়াল সার্ভিস এর মাধ্যমে

রিচার্জ করা যায়।

v) পোস্টপেইড এর চাইতে খরচ বেশি হয়

তাই সাশ্রয় কম হয়। ইমারজেন্সি ব্যালেন্স নেওয়া যায়।

গ্রামীণফোন পোস্ট পেইড এর সুবিধা এবং অসুবিধা:

i) My GP অ্যাপস থেকে প্রিপেইড প্যাকেজ থেকে

পোস্ট পেইড করলে পাওয়া যাবে

ফ্রি তে ৫০০ টাকা একাউন্ট ব্যালেন্স।

যেটি পরে পরিশোধ করতে হবে না ।

টাকা শেষ হওয়ার পরে প্রিপেইড প্যাকেজ এ যেভাবে

রিচার্জ করেন সেভাবে আবার রিচার্জ করে চালাতে পারবেন।

(বি.দ্র অনেক এ মনে করেন এই ৫০০ টাকা

পাওয়ার পরে টাকা শেষ হলে পরের রিচার্জ এ টাকা কেটে নিবে

কিন্তু না এই টাকা কাটবে না ,,

তাই নিশ্চিন্ত মনে পোস্টপেইড

প্যাকেজ ব্যাবহার করতে পারবেন।)

ii) কোন শর্ত ছাড়াই সকল লোকাল নম্বরে ৫৪ পয়সা প্রতি

মিনিট কথা বলতে পারবেন।

প্রিপেইড এর মত নির্দিষ্ট রিচার্জ করতে হবেনা

iii)

প্রিপেইড এর মত যেকোন মোবাইল ফিনান্সিয়াল

সার্ভিস এর মাধ্যমে আপনি রিচার্জ

করতে পারবেন।

iv) আপনি পোষ্ট পেইড এ ইমারজেন্সি

ব্যালেন্স নিতে পারবেন না

v) প্রিপেইড এর চাইতে খরচ অনেক কম।

মোবাইল রিচার্জ করার পর ২ মিনিট পর

টাকা অ্যাড হয়ে যায় একাউন্টে।

আমার মতে সবার পোষ্টপেইড ব্যাবহার করা উচিত।

তাহলে কম খরচে কথা বলতে

পারবেন।

আমি আমার নিজস্ব মন্তব্য করলাম

হতে পারে আপনাদের বিষয় টা আলাদা ।

ধন্যবাদ সবাইকে আমার পোস্টটি পড়ার জন্য।

দেখা হবে খুব জলদি নতুন পোস্ট নিয়ে।

আল্লাহ্ হাফেজ

যেকোনো প্রয়োজনে ফেসবুকে আমাকে পাবেন এই লিংকে

আমার ফেসবুক আইডি

9 thoughts on "গ্রামীণফোন প্রিপেইড এবং পোস্টপেইড এর সুবিধা অসুবিধা কী কী জানতে হলে পোস্টটি দেখুন!!"

  1. HM Masud Contributor says:
    প্রিপেইট সীম কি পোস্ট পেইটে রুপান্তর করা যায়,,,,
    গেলে কি ভাবে, কি করতে হয়।
    জানতে চাই।
    1. MD Musabbir Kabir Ovi Author Post Creator says:
      Next এ পোষ্ট করবো
    2. Apis Contributor says:
      প্রিপেইড সীম পোস্ট পেইড করার জন্য প্রথমে আপনাকে গ্রামীনফোন এর সরকার গ্রাহক হতে হবে তাহলেই আপনি প্রিপেইড থেকে পোস্ট পেইড এ মাইগ্রেড করতে পারবেন।
  2. MD FAYSAL Contributor says:
    Next post চাই কিভাবে prepaid কে পোস্ট পেইড সিমে রুপান্তর করবেন
  3. MD FAYSAL Contributor says:
    Next post চাই কিভাবে prepaid কে পোস্ট পেইড সিমে রুপান্তর করবেন
    1. MD Musabbir Kabir Ovi Author Post Creator says:
      Accha
  4. H. M. Mozammal Hoque Contributor says:
    ডাটার ব্যাপার টা খোলাসা করলেন না
    1. MD Musabbir Kabir Ovi Author Post Creator says:
      ভাইয়া প্রিপেইড প্যাকেজ আবং পোষ্টপেইড পাকেজ এর

      ডাটা প্যাক same তাই সমস্যা নাই।

      প্রিপেইড এর চাইতে পোষ্টপেইড এ ডাটা এর প্রাইস

      কিছুটা কম

Leave a Reply