আসসালামু আলাইকুম সবাই কেমন আছেন…..? আশা করি সবাই ভালো আছেন । আমি আল্লাহর রহমতে ভালোই আছি ।আসলে কেউ ভালো না থাকলে TrickBD তে ভিজিট করেনা ।তাই আপনাকে TrickBD তে আসার জন্য ধন্যবাদ ।ভালো কিছু জানতে সবাই TrickBD এর সাথেই থাকুন ।

কষ্টহীন জীবনের আশায় | ইহুদীর নেকীর বদলা

হাকীমুল উম্মত মুজাদ্দিদুল মিল্লাত হযরত মাওলানা শাহ আশরাফ আলী থানবী (রহ.)-এর মাওয়ায়েযে ঘটনাটি বর্ণিত রয়েছে।

জনৈক ব্যক্তি একদা হযরত খিযর (আ.)-এর সাক্ষাৎ লাভ করেন। লােকটি হযরত খিজির (আ.)-এর নিকট আবেদন করে, হুযূর আপনি আমার জন্য দু’আ করুন।

ঘটনা০১.

হযরত খিযর (আ.) বললেন, কী দুআ করবাে? লােকটি বলল, আল্লাহ পাক যেন আমাকে চিন্তা মুক্ত জীবন দান করেন, গোটা যিন্দেগীতে কোন পেরেশানীর সম্মুখীন না হই।

হযরত খিযর (আ.) বললেন, দুনিয়াতে এমন লোক খুঁজে পাবেনা তুমি যার কোন চিন্তা নেই। তবে তুমি তোমার পছন্দ মত একজনকে বাছাই কর আমি দু’আ করবো আল্লাহ পাক যেন তোমাকে তার মত বানিয়ে দেন। লোকটি ভাবলো বেশ ভালই হল। আমি একটা দারুণ সুযোগ পেয়ে গেছি। এখন দেখা দরকার কে কত ধনী সুখী মানুষ।

বেরিয়ে পড়ে লোকটি আনন্দে আত্মহারা হয়ে খুঁজে পেয়ে যায় এমন বিত্তশালী কাউকে। ভাবে এর মতো হওয়া চাই। অনুসন্ধানের পর তার চেয়েও বড় ধনকুবেরের সন্ধান পেয়ে যায়।

এবার বুঝি পেয়ে গেছি কাঙ্ক্ষিত লোকটি। কিছুদিন পর এলাকার সেরা ধনী যার ধন দৌলত প্রভাব প্রতিপত্তি সুপ্রসিদ্ধ, এর মত হলেও তো মন্দ না।

কিন্তু সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করার আগে তার দৃষ্টি কেড়ে নেয় নান্দনিক একটা মনি মুক্তার দোকান, যেখানে বসে মহামূল্যবান বিভিন্ন ধাতু অলংকারের সারি, স্বর্ণে রৌপ্যে বোঝাই দৃষ্টিনন্দন জুয়েলারী বিশাল দোকানটি, জুয়েলার্সের মালিক বসে আছেন তার সামনে, ভবনটি দেখার মত। বিলাসবহুল গাড়ি বাড়ির মালিক তিনি, সুদর্শন ছেলে পুত্র তার পাশে উপবিষ্ট, চাকর কর্মচারী সবাই হাস্যোজ্জল চঞ্চল, এসব দৃশ্যে কার নজর না কাড়ে।

যাক এবার সিদ্ধান্ত নেয়া যায়, এ প্রতিষ্ঠানের সাচ্ছন্দময় মালিকের মত হলে অতি সুখে কাটবে আমার সারা জীবন! হঠাৎ লোকটি চিন্তা করে এসব তো বাহ্যিক অবস্থা, অভ্যন্তরীণ কোন সমস্যা আছে কী না? নতুবা আমার বর্তমান অবস্থাটাও তো হারাবে।

চাকচিক্যময় জুয়েলার্সে গিয়ে মালিকের নিকট মনের অভিব্যক্তি পেশ করে, সে তার মত হতে চায়। লোকটিকে গোপনে ডেকে মালিক বর্ণনা করে তার দুর্বিষহ গ্লানিময় সংসারের অতি ভেতরের কাহিনী।

তার স্ত্রীর স্বভাব সম্পর্কে বলতে গিয়ে ছেলেটিকে দেখিয়ে বলে এটা তার ঔরষজাত সন্তান নয় ইত্যাদি। আমার বাহ্যিক দৌলতের ছড়াছড়ি চাকর নওকর দেখে ধোঁকায় পড়ে যেওনা যে লোকটা মহাসুখী! বাস্তবিক পক্ষে আমার প্রত্যেকটা মুহূর্ত দুশ্চিন্তা পেরেশানী দুঃখ জ্বালার অন্ত নেই।

খবরদার আমার মত দুর্ভাগা হবার দু’আ কস্মিনকালেও করতে যেওনা। এখন লোকটি বুঝতে পারলো বাইরে ফিটফাট ভেতরে সদরঘাট-ভেজাবেড়ালের স্বরূপ। যতই আরাম আয়েশ দৃশ্যমান হোক না কেন কোন না কোন মুছীবত পেরেশানীতে গ্রেফতার রয়েছে সে।

পুনরায় হযরত খিযর (আ.)-এর সাথে দেখা হলে তিনি তাকে বললেন: এবার তুমি কোন্ সুখী ব্যক্তির মত হতে চাও বল। আমি কাউকেই চিন্তা ও পেরেশান মুক্ত পেলাম না। আপনি আমার জন্য দুআ করবেন যার মত হবার এমন পছন্দনীয় কেউ মিললোনা।

হযরত খিযর (আ.) বললেন। আমি তোমাকে আগেই বলেছিলাম, দুনিয়াতে চিন্তামুক্ত কাউকে তুমি পাবেনা। হ্যা অবশ্য আমি তোমার জন্য এই দুআ করি, আল্লাহ পাক তোমাকে নিরাপদ ও শান্তিময় জীবন দান করেন।

ঘটনা০২. ইহুদীর নেকীর বদলা

এক শহরে দুই ব্যক্তি মৃত্যু শয্যায় শায়িত, মুমূর্ষ অবস্থা। একজন মুসলমান, আরেকজন ইহুদী। ইহুদীর মনে মাছ খাওয়ার ইচ্ছা সৃষ্টি হয়; কিন্তু কোথাও পাওয়া যাচ্ছে না।

মুসলমানের মনে যায়তুন তেল খাওয়ার ইচ্ছা জাগে। আল্লাহ তা’আলা দুইজন ফেরেশতাকে ডাকেন। একজনকে বললেন, অমুক শহরে মৃত্যুমুখে পতিত এক ইহুদী মাছ খেতে ইচ্ছা করছে। তােমার দায়িত্ব একটি মাছ নিয়ে তার বাড়ির পুকুরে রেখে আস, যাতে মাছ খেয়ে তার মনের আশা পূরণ করে।

অন্যজনকে বললেন, অমুক শহরের একজন মুসলমান মৃত্যুর নিকটবর্তী। যায়তুন তেল খেতে তার মনে চায়। আর যায়তুন তেল তার আলমারীতেই আছে। তুমি গিয়ে তার তেল বের করে নষ্ট করে ফেল। যাতে সে তার চাহিদা মেটাতে না পারে।

দুই ফেরেশতা তাদের মিশন বাস্তবায়নে চলছে। রাস্তায় উভয়ের সাক্ষাৎ হয়। পরস্পর জিজ্ঞেস করে কে কি জন্যে যাচ্ছে? একজন উত্তরে বলল, অমুক ইহুদীকে মাছ খাওয়াতে যাচ্ছি। অপর জন বলল, অমুক মুসলমানের যায়তুন তেল নষ্ট করতে যাচ্ছি।

দুজনেই আশ্চার্যবােধ করে যে, আমাদের দুজনকে উল্টো দুটো কাজের নির্দেশ দেয়ার হেতু কি? কিন্তু যেহেতু আল্লাহ পাকের হুকুম তাই যার যার কাজ করতেই হল।

নির্দেশ পালন শেষে ফিরে উভয়ে আরজ করল হে আল্লাহ! আমরা আপনার হুকুম অনুযায়ী কাজ করেছি; কিন্তু আমাদের বুঝে আসছে না একজন মুসলমান যে আপনার আনুগত্যশীল এবং তার কাছে যায়তুন তেল মওজুদ ছিল তা সত্ত্বেও আপনি তার যায়তুন তেল নষ্ট করার নির্দেশ দিলেন!

পক্ষান্তরে একজন ইহুদী কাফের তার কাছে মাছ ছিল না অথচ তাকে মাছ খাওয়ার ব্যবস্থা করে দিলেন! আল্লাহ তাআলা উত্তরে বললেন, আমার কাজের হেকমতের খবর তােমাদের জানা নেই।

আসলে আমার আচরণ মুসলমানের সাথে একরকম আর কাফেরের সাথে অন্যরকম। কাফেরের সাথে আমার মুআমালা হলাে- যেহেতু কাফেরও দুনিয়াতে নেক আমল করে কখনও। যেমন ছদকা খয়রাত করে, ফকীরের সাহায্য করে। তার নেক আমল যদিও আখেরাতে অগ্রাহ্য আমি কবুল করিনা।

তবে আমি তার নেক আমলের হিসাব দুনিয়াতেই মিটিয়ে দেই। যাতে সে যখন আখেরাতে আমার নিকট আসে তখন কোন প্রাপ্য অবশিষ্ট না থাকে। কোন নেকীর প্রতিদান আমার নিকট বাকী না থাকে।

আর মুসলমানের সাথে। আমার আচরণ ভিন্ন আর তা হল, মুসলমানের গুনাহের হিসাব দুনিয়াতে থাকতেই আমি মিটাতে চাই যাতে সে যখন আমার নিকট আসবে তখন পাপমুক্ত পাক সাফ অবস্থায় আসতে পারে।

সুতরাং ইহুদী লােকটি যত নেক আমল করেছিল তার প্রতিদান দেয়া হয়েছে। শুধুমাত্র একটা নেকীর বদলা বাকী রয়েছে, আর সে এখন আমার কাছে আসছে। যখন তার দিলে মাছ খাওয়ার বাসনা হল, তখন আমি তার খাহেশ পূর্ণ করে তাকে মাছ খাইয়ে দিলাম, নেকীটির বদলা হিসেবে, যাতে সে আমার কাছে আসার আগেই তার নেকীর হিসাব সম্পন্ন থাকে। (দুনিয়াতে প্রাপ্তির পর আখেরাতে শূন্য হাত)

অপর দিকে মুসলমানের অসুস্থতা ভােগের মধ্যে তার সব গুনাহ মাফ করে দিয়েছি, শুধু একটি গুনাহ বাকী রয়েছে। এমতাবস্থায় সে আমার নিকট আসবে। যদি এভাবে এসে যায়, তবে তার আমলনামায় একটি গুনাহ থেকে যায়।

এজন্য আমার ইচ্ছা তার যায়তুন তেল ধ্বংস করে তার মনের আশা ভেঙ্গে দিয়ে তার দিলে আরও একটি আঘাত দেয়া। এর ফলে তার গুনাহটিও ক্ষমা করে দেয়া। যাতে সে আমার সাথে নিস্পাপ পবিত্র আমলনামা নিয়ে সাক্ষাৎ করতে পারে।

মােটকথা আল্লাহ পাকের হেকমত কে বুঝতে পারে? আমাদের জ্ঞানের ক্ষুদ্র পরিসরে তার হেকমত বেষ্টন করা সম্ভব নয়। আল্লাহর হেকমতের নিয়ন্ত্রণে জগতের সবকিছু পরিচালিত। সবখানেই তার হেকমতে পরিপূর্ণ।

মানুষের সাধ্য নেই তার হেকমত বুঝার। কখন তাঁর কী হেকমত কে জানে? আমাদের সবার ধারণার উর্ধ্বে তার হেকমত ও কুদরত।

হযরত হাকীমুল উম্মত মুজাদ্দিদুল মিল্লাত শাহ আশরাফ আলী থানবীর (রহ.) এর ৩০০ গল্প বই থেকে সংগৃহীত

দ্বীনি কথা শেয়ার করে আপনিও ইসলাম প্রচারে অংশগ্রহণ করুন।

সূত্র: islamientertainment.com

2 thoughts on "শিক্ষণীয় ইসলামিক গল্প । কষ্টহীন জীবনের আশায়। ইহুদীর নেকীর বদলা"

  1. Good post.

    But , copy post.



    1. MD Shakib Hasan MD Shakib Hasan Author Post Creator says:
      😊

Leave a Reply