Be a Trainer! Share your knowledge.
Home » Islamic Stories » কোরআনের ছোট্ট সূরা ইখলাস দশবার পড়লে কি উপকার হয়।

কোরআনের ছোট্ট সূরা ইখলাস দশবার পড়লে কি উপকার হয়।

ইউটিউবে ট্রিকবিডিকে সাবস্ক্রাইব করুন

আসসালামু আলাইকুম সবাই কেমন আছেন…..? আশা করি সবাই ভালো আছেন । আমি আল্লাহর রহমতে ভালোই আছি ।আসলে কেউ ভালো না থাকলে TrickBD তে ভিজিট করেনা ।তাই আপনাকে TrickBD তে আসার জন্য ধন্যবাদ ।ভালো কিছু জানতে সবাই TrickBD এর সাথেই থাকুন ।

কোরআনের ছোট্ট সূরা ইখলাস দশবার পড়লে কি উপকার হয়।

মানুষ জাগতিক বিপদ আপদ তথা প্রয়োজনে আল্লাহর নিকট দোয়া করে থাকে। কারো দোয়া সঙ্গে সঙ্গে কবুল হয়ে যায় আবার কারো দোয়ার পরিণাম পরকালে প্রদান করা হবে। কিন্তু দোয়া করার আগে দোয়া কবুলের পরিবেশ তৈরি করতে হবে। যেভাবে দোয়া করলে আল্লাহ তায়ালা বান্দার দোয়া কবুল করবেন।

আল্লাহ তায়ালা বলেন → আমি কাউকে তার সাধ্যের বেশি দায়িত্ব দেইনা এবং আমার নিকট আছে এক গ্রন্হ যা সত্য ব্যক্ত করে এবং তাদের প্রতি জুলুম করা হবে না। (সূরা ২৩/আল মুমিনুন আয়াত ৬২)

আপনি ফরজ এবং সুন্নাত আদায়ের পর যতটুকু নফল ইবাদত কোরআন তেলওয়াত জিকির দোয়া ইত্যাদি করবেন সেটাই আল্লাহ কবুল করে নিবেন ইনশাআল্লাহ। আপনি সূরা ইখলাস একবার পাঠ করলে পবিত্র কোরআন পড়ার এক তৃতীয়াংশ সাওয়াব লাভ করতে পারেন।

হযরত আবু সাঈদ খুদরী রাদিয়াল্লাহ তায়ালা আনহু থেকে বর্ণিত তিনি বলেন → এক ব্যক্তি অপর ব্যক্তিকে বারবার সূরা ইখলাস পাঠ করতে শুনে রাসুলুল্লাহ (সাঃ) কাছে বিবৃত করা হলো। একথা শুনে রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেন → যার হাতে আমার জীবন তার শপথ করে বলছি সূরা ইখলাস কোরআনের এক তৃতীয়াংশ সমান।

অন্য বর্ণনায় এসেছে একবার রাসূল (সাঃ) বললেন → তোমরা সবাই একত্রিত হয়ে যাও। আমি তোমাদেরকে কোরআনের এক তৃতীয়াংশ শুনাব।অতঃপর যাদের পক্ষে সম্ভব ছিল তারা একত্রিত হয়ে গেল তিনি আগমন করলেন এবং সূরা ইখলাস পাঠ করে শুনালেন। তিনি আরোও বললেন এই সূরা ইখলাস কোরআনের এক তৃতীয়াংশ সমান। ( সহীহ বুখারী ৫০১৫, মুসলিম ৮১২,তিরমিজি ২৯০০,নাসায়ী ৯৯৫,আবু দাউদ ১৪৬১, আহমদ ১০৬৬৯)

অর্থাৎ এই হাদিস থেকে আমরা জানতে পরলাম এই সূরাটি ( সূরা ইখলাস) একবার পড়লে পবিত্র কোরআনের তিন ভাগের এক ভাগ পড়ার সমান সাওয়াব লাভ করা যায় সুবহানাল্লাহ।

হযরত আয়িশা রাদিআল্লাহু তাআ’লা আনহু থেকে বর্ননা করেন যে আয়িশা (রাঃ) বলেন → নবী করীম (সাঃ) ক্ষুদ্র একটি সৈন্যদলকে কোন এক অভিযানে প্রেরণ করেন। ফিরে আসার পর তারা সেনাপতির বিরুদ্ধে এই নালিশ দায়ের করলো যে তিনি নামাজের কিরাআতের শেষে সূরা ইখলাস পাঠ করতেন। (অথবা দুই রাকাতের এক রাকাআতে তিনি সূরা ইখলাস পাঠ করতেনই।)

একথা শুনে রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বললেন → তাকে জিজ্ঞেস করো তিনি কেন এমন করতেন। তখন তাঁকে জিজ্ঞেস করা হলো এবং তিনি বললেন কারণ এই সূরা আল্লাহর গুন ও পরিচয় বর্ণনা করা হয়েছে বিধায় এটি পড়তে আমার কাছে খুব ভালো লাগে।

তাঁর এই কথা শুনে রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বললেন → তাকে বলো যে আল্লাহ তায়ালাও তাকে ভালোবাসেন। ( সূত্র তাফসীরে ইবনে কাসীর)। অন্য বর্ণনায় তিনি লোকটিকে বললেন → এর ভালোবাসা তোমাকে জান্নাত দাখিল করাবে। সুবহানাল্লাহ। (মুসনাদে আহমদ ৩/১৪১,১৫০)

রাসূল (সাঃ) বলেছেন → যে ব্যক্তি সূরা ইখলাস ১০ বার পাঠ করবে তার জন্য জান্নাতে একটি ঘর বনানো হবে। ( সহীহ আল জামি,আস সগীর ৬৪৭২) অর্থাৎ আপনি যদি দৈনিক ১০ বার সূরা ইখলাস পাঠ করেন তাহলে জান্নাতে আপনার জন্য একটি প্রাসাদ তৈরি করা হবে সুবহানাল্লাহ।

এছাড়াও আরেকটি হাদিসে এসেছে → হযরত আয়েশা (রাঃ) আনহা বলেন → রাসূল (সাঃ) যখন বিছানায় ঘুমানোর জন্য যেতেন তখন তিনি তার দু’হাতের তালু একত্রিত করতেন। তারপর সেখানে সূরা ইখলাস, সূরা ফালাক এবং সূরা নাস এ তিনটি সূরা পড়ে ফুঁ দিতেন তারপর এ দু’হাতের তালু দিয়ে তার শরীরের যতটুকু সম্ভব মাসেহ করতেন। তার মাথা ও মুখ থেকে শুরু করে শরীরের সামনের অংশ তা করতেন। এমনটি রাসূল (সাঃ) তিনবার করতেন। (বুখারী ৫০১৭, আবু দাউদ ৫০৫৬, তিরমিজি ৩৪০২)

এর ফলে ঘুমের মধ্যে শয়তান আপনাকে বিরক্ত করতে পারবে না তবে এর সাথে সাথে আপনি যদি একবার আয়াতুল কুরসি পড়ে ঘুমান তাহলে আরো কার্যকর ফলাফল পাওয়া যায়। যেমন ঘুমের মধ্যে ভয়ানক স্বপ্ন দেখা, অশ্লীল স্বপ্ন দেখা বা স্বপ্নদোষ হওয়া, ঘুমের মধ্যে বোবায় ধরা ইত্যাদি শয়তানের ওসওয়াসা থেকে আপনি মুক্ত থাকবেন ইনশাআল্লাহ।

এছাড়াও হাদিসে এসেছে রাসূল (সাঃ) বলেন → যে ব্যক্তি সকাল বিকাল সূরা ইখলাস, সূরা ফালাক ও সূরা নাস পাঠ করে তা তাকে বালা মুসীবত থেকে বাঁচিয়ে রাখার জন্যে যথেষ্ট। ( আবু দাউদ ৫০৮২, তিরমিজি ৩৫,৭৫, নাসায়ী ৭৮৫২)

তাই আমরা দিনের যেকোনো সময় ফরজ নামাজ শেষ করে অন্তত একবার বা তিনবার কিংবা দশবার সূরা ইখলাস পাঠ করবো ইনশাআল্লাহ। আল্লাহ তায়ালা আমাদের বেশি বেশি সূরা ইখলাস পড়ার তৌফিক দান করুন আমিন।

আশা করি সবাই সবকিছু বুঝতে পেরেছেন। কোথাও সমস্যা হলে কমেন্ট করে জানাবেন অথবা ফেসবুকে জানাতে পারেন ফেসবুকে আমি

3 weeks ago (Apr 22, 2021)

About Author (283)

MD Shakib Hasan MD Shakib Hasan
author

একটি কথা মনে রাখবেন → জীবন কিন্তু একটাই পেয়ছেন। সামনে কিন্তু মৃত্যু আপনাকে ডাকছে। অতএব ভালো কাজ করেন। কারণ একদিন কিন্তু সৃষ্টিকর্তার কাছে সকল হিসাব দিতে হবে মনে রাইখেন।

13 responses to “কোরআনের ছোট্ট সূরা ইখলাস দশবার পড়লে কি উপকার হয়।”

  1. XR SABBIR KHAN XR SABBIR KHAN Contributor says:

    খুব সুন্দর পোস্ট। অনেক কিছু জানতে পারলাম।

  2. Likee King Oviraj Likee King Oviraj Contributor says:

    Ata Copy Post.. Somoy Tv Theke Copy Korce So Sobai Report Daw….

  3. shariyar shuvo Contributor says:

    ভাই খুব সুন্দর পোষ্ট পোরে ভালো লেগেছে আমার । তা ভাই আপনার কাছে একটু সাহয্য চাইছি । আপনি তো এখানে অথর হোয়েছেন । আমি হোতে পারিনাই তো প্রথম প্রথম পোষ্টটি পেন্ডিং হোতে কতো সময় লেগেছিল । ভাই একটু বোল্লে উপকার হয়।

    • MD Shakib Hasan MD Shakib Hasan Author Post Creator says:

      আমার এই একাউন্ট অনেক সময় লেগেছে। কিন্তু এখন এতো সময় লাগে না Support Team কে মেইল করলে খুব তাড়াতাড়ি হবে।

  4. shariyar shuvo Contributor says:

    ভাই মেইল কোরবো কি কোরে আপনি জদি লিংকটা দ্যান তা হোলে ভালো হয়। প্লিজ লিংকটা দ্যান।

  5. MD Shakib Hasan MD Shakib Hasan Author Post Creator says:

    সাইটের হোম পেইজে Hot Post এ সবকিছু দেওয়া আছে



Leave a Reply

Switch To Desktop Version