ব্যাকলিঙ্ক আসলে কি?

Search Engine Optimization (SEO) এর পরিভাষায় Backlinks বলতে বুঝায় অন্যের ব্লগ কিংবা ওয়েবসাইটের সাথে নিজের ব্লগটির Hyperlink তৈরী করা, যার মাধ্যমে উক্ত লিংক থেকে আপনার ব্লগে ভিজিটর আসার সম্ভাবনা তৈরী করে দেয়।

তাছাড়া আরো সহজ ভাষায় বললে বলা যায় যে- আপনি আপনার ডোমেইনটিকে আরো পপুলার করার জন্য অন্য আরেকটি ওয়েবসাইটের সাথে আপনার ওয়েবসাইটটিকে সংযুক্ত করা!

তোহ আজ এই পোষ্টে আমি আপনাদেরকে Backlinks সম্পর্ক সম্পুর্ণভাবে বুঝানোর চেষ্টা করবো! আশা করি শেষ পর্যন্ত পড়বেন!

আসলে গুগলের সার্চ ইন্জিনে আপনার ওয়েবসাইটটি রেঙ্ক করানোর জন্য গুগলের কাছে প্রায় ২০০টিরও বেশি নিয়ম আছে!

যার মধ্যে সবচেয়ে অন্যতম হলো Backlinks! কথায় আছে The more backlink you have that means You well get More rank! যার কারনে আপনাকে অনেক বেকলিঙ্ক তৈরী করতে হয়!

তবে বেকলিঙ্ক তৈরী করারও অনেক নিয়ম আছে! আমি যেকোন ওয়েবসাইটে বেকলিঙ্ক তৈরী করলে হবে নাহ! বেকলিঙ্ক তৈরী করার ক্ষেত্রে একটি বিষয় খুবই গুরুত্বপুর্ন!

আর তা হলো বেকলিঙ্ক এর কুয়ালিটি! আপনি যেকোন ওয়েবসাইটের সাথে আপনার ওয়েবসাইটটি সংযুক্ত করার আছে সেই ওয়েবসাইটের DA AND PA এর দিকে নজর দিতে হবে!

এখন প্রশ্ন হতে পারে da, pa আসলে কি?

DA means Domain Authority! Domain Authority সাধারনত ০-১০০ পর্যন্ত হয়ে থাকে! যার মধ্যে ১-৩০ Domain Authority খুবই নিম্নের! যেই সাইটগুলোর লিঙ্ক ততটা কার্যকরী নাহ!

অর্থাৎ যে ওয়েবসাইটের Domain Authority যতো বেশি সেই ওয়েবসাইটের লিঙ্কগুলো ততটাই ভালো!
তাই আপনাকে অবশ্যই একটি ভালো Domain Authority সাইট থেকে লিঙ্ক তৈরী করতে হবে!

Pa- pa means Page Authority! এটাও সাধারনত ০-১০০ পর্যন্ত হয়ে থাকে! আপনাকে অবশ্যই High pa সাইট থেকে লিঙ্ক বিল্ডিং তৈরী করতে হবে!

অতঃপর আপনাকে অবশ্যই ভালো DA PA সাইট থেকে বেকলিঙ্ক তৈরী করতে হবে! যাহ আপনাকে ভালো রেঙ্কিং এ সহায়তা করবে!

এখন প্রশ্ন হলো বেকলিঙ্ক কিভাবে পাবেন?

উদাহরণ স্বরুপ বলা যায়! আপনি যখন কোন ওয়েবসাইটে গিয়ে আপনার ওয়েবসাইটের লিঙ্কটা দিয়ে দিলেন এবং তা এপরোভ হয়ে গেলো তাহলে আপনি একটি বেকলিঙ্ক পেয়ে যাবেন!

তাছাড়াও বেকলিঙ্ক তৈরী করার কয়েকটি উপায় আছে! যার মধ্যে অন্যতম ২টি উপায় হলোঃ-

১- Guest Posting
2- Comment

– Guest Posting ঃ- লিঙ্ক বিল্ডিং এর ক্ষেত্রে সবচেয়ে ভালো মাধ্যম হলো Guest Posting! অর্থাৎ আপনি এরকম অনেক ভালো ভালো ওয়েবসাইট পাবেন যেখানে আপনি আপনার নিজস্ব পোষ্ট করতে পারবেন!

অর্থাৎ আপনি আপনার পোষ্টটি করতে পারবেন! যার দ্বারা আপনি পোষ্টের যেকোন একটি অংশে আপনি আপনার ওয়েবসাইটের লিঙ্ক যুক্ত করতে পারেন!

এবং এর দ্বারা আপনি একটি বেকলিঙ্ক পেয়ে যাবেন! এবং এই বেকলিঙ্কটা হবে অনেকটা কুয়ালিটি বেকলিঙ্ক!

অতএব আপনি চেষ্টা করবে Guest Post করার! যার দ্বারা আপনি অনেকটা ভালো এবং কুয়ালিটি বেকলিঙ্ক পাবেন! যাহ আপনার রেঙ্কিং এ যাদুকরী ভুমিকা পালন করবে!

২. Commentঃ– বেকলিঙ্ক তৈরী করার জন্য এটাও একটি মাধ্যম যার দ্বারা আপনি আপনার ওয়েবসাইটটিকে অন্য আরেকটি ওয়েবসাইটের সাথে সংযুক্ত করতে পারবেন!.

এই প্রসেস টা তাদের জন্য যারা খুব ভালো একটা পোষ্ট লিখতে পারছেন না! কিংবা আপনি অনেকটা গেষ্ট পোষ্ট করার পরেও এপরোভাল পাচ্ছেন নাহ!

যাদের এরকম হচ্ছে তারা এরকম ভাবে খুব ভালো ওয়েবসাইটের পোষ্টের নিচে গিয়ে কমেন্ট করতে পারেন! এবং কমেন্টের যেকোন অংশে আপনার ওয়েবসাইটের লিঙ্ক দিতে পারেন!

বেকলিঙ্ক গুগলের রেঙ্কিং এ কতটুকু ভুমিকা পালন করে তার একটি উদাহরন দেওয়া যাক! —

ধরেন আপনার একটি ওয়েবসাইট আছে! আপনি নিশ্চয়ই এটা কখনও চাইবেন নাহ! যে আপনার ওয়েবসাইটে কোন অযোগ্য ব্যক্তি অথর হোক!

এবং ঠিক এমনিভাবে গুগলও চায় নাহ! যে কোন অযোগ্য ওয়েবসাইটকে তাদের প্রথম পেজে যায়গা দিতে! তারা সবসময় এরকম ওয়েবসাইটকে যায়গা দিবে যার বেকলিঙ্ক সবচেয়ে বেশি!

তাছাড়া বেকলিঙ্ক এর মধ্যে আরো দুটি বিষয় আছে! যা হলো ঃ-

1. Do follow Backlink.
2.No follow backlink.

চলুন এই দুইটি নিয়ে সংক্ষিপ্ত আলোচনা করা যাক!

1. Do follow Backlink. এটা হলো আপনার লিঙ্কটিকে যখন তৈরী করবেন তখন লিঙ্কটিকে সরাররি দেখিয়ে তৈরী করা!

উদাহরন স্বরুপঃ <a href=”http://www.google.com/”>Google</a> এই লিঙ্কটি হলো Do follow Link! যদিও এই লিঙ্কগুলো আপনার রেঙ্কিং এ সবচেয়ে গুরুত্বপুর্ন ভুমিকা পালন করবে!

2.No follow backlink. এটা ব্যাকলিংক সম্পর্কে প্রাথমিক ধারণাহলো আপনার লিঙ্কটিকে কোন একটি টেক্সটের ভিতরে দেওয়া ! তবে সাবধান এই ধরনের লিঙ্ক খুব বেশি তৈরী করতে যাবেন নাহ!

কারন এই লিঙ্কগুলো আপনার রেঙ্কিং এ বিরুপ প্রভাব ফেলতে পারে! কারন এইসব লিঙ্ক সার্চ ইন্জিন ইগনোর করে! অর্থাৎ গুগল মনে করে এগুলা স্প্যাম!

example: <a href=”http://www.google.com” rel=”nofollow”>

তাই আপনাকে একটা বিষয় মাথায় রাখতে হবে! আপনাকে অবশ্যই Do follow link তৈরী করতে হবে! অবশ্য no follow link তৈরি করতে পারেন! তবে তা খুবই স্বল্প পরিমান তৈরী করলে ভালো হবে!

তোহ আজ এই পর্যন্ত! আমি চেষ্টা করেছি কিছুটা ধারনা দেওয়ার! আশা করি ভালো লেগেছে!

ধন্যবাদ সাথে থাকার জন্য!

Also Read: 

 

7 thoughts on "ব্যাকলিংক আসলে কি? ব্যাকলিংক সম্পর্কে প্রাথমিক ধারণা"

  1. Shahin Al Hasan Shahin Al Hasan Contributor says:
    Comment এর বিষটা জানলাম তাই কমেন্ট ও করলাম ।
    ধন্যবাদ।
    http://www.amadersomaj.com


  2. Md Jahid Md Jahid Contributor says:
    ধন্যবাদ খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটা বিষয় জানতে পারলাম
    1. Ahmed Parbes Ahmed Parbes Author Post Creator says:
      স্বাগতম আপনাকে!
  3. Shishir Shishir Author says:
    Accha vai ami jodi bivinno social media te amr post link share kori…tahole seta ki backlink hisebe gonno hobe?
    1. Ahmed Parbes Ahmed Parbes Author Post Creator says:
      কিছুকিছু সোসিয়াল গনমাধ্যম আছে যেগুলোতে সাইট লিংক শেয়ার করলে ডুফলো ব্যাকলিঙ্ক পাওয়ার সম্ভবনা রয়েছে। আর সেগুলোর মধ্য থেকে অন্যতম কয়েকটি হলোঃ Pinterest. BizSugar.YouTube. …LinkedIn. …Blogger (BlogSpot) …Hub Pages, Reddit ইত্যাদি
  4. Random Random Contributor says:
    Nice post 👌
  5. Luxman Contributor says:
    do follow আর no follow এর মাঝে পার্থক্যটা ভালো করে বুঝলাম না।একটু ভালো করে বুঝিয়ে দিবেন।

Leave a Reply