অটোমেটেড টেলার মেশিন বা এটিএম প্রযুক্তি সময়ের সাথ সাথে বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। ব্যাংকগুলো তাদের শাখা থেকে টাকা উইথড্র এর চাপ কমাতে এটিএম ব্যবস্থার উন্নতির উপর অধিক জোর প্রদান করা আসছে। তবে এই প্রযুক্তি ব্যবহারে রয়েছে যথেষ্ট সচেতনার প্রয়োজনীয়তা।

এটিএম বা ডেবিট কার্ড এটিএম মেশিনে আটকে যাওয়া এটিএম ব্যবহারের সাধারণ সমস্যাগুলোর মধ্যে একটি। অবস্থা বিবেচনায় এই বিষয়টি বেশ বিরক্তির কারণ হতে পারে। এমনকি নগদ টাকার প্রয়োজনে বিপদেও ফেলে দিতে পারে। বিশেষ করে ব্যাংক বন্ধের দিনে এমন সমস্যা হলে গ্রাহককে বেশ বিড়ম্বনায় পড়তে হয়।

তাছাড়া যদি এক ব্যাংকের এটিএম কার্ড অন্য ব্যাংকের বুথে আটকে যায় তাহলে কয়েক সপ্তাহ পর্যন্ত সময় লাগতে পারে সমস্যা সমাধান করতে। সুতরাং প্রত্যেক এটিএম কার্ড ব্যবহারকারীর উচিত এই সমস্যাটি সম্পর্কে আগে থেকে জেনে রাখা এবং সেই অনুযায়ী কার্ড ব্যবহার করা।

এটিএম বুথে কার্ড আটকে যায় কেনো?

একটি ডেবিট বা ক্রেডিট কার্ড এটিএম বুথে থাকা মেশিনে আটকে যেতে পারে বিভিন্ন কারণে। এটিএম বুথে কার্ড আটকে যাওয়ার সচরাচর কারণগুলো হলোঃ

  • যদি একজন কাস্টমার একটি কার্ডের পিন পরপর তিনবার ভুল প্রদান করেন তাহলে কার্ড আটকে যাবে
  • কার্ড ব্যবহারের সময় পাওয়ার সাপ্লাই বা নেটওয়ার্ক কানেকশনে সমস্যা হলে ইনফরমেশন লেনদেনে ব্যাঘাত ঘটতে পারে, যার কারণে এটিএম বুথে কার্ড আটকে যেতে পারে
  • ব্লক করা কার্ড ব্যবহারের চেষ্টা করা হলে কার্ড আটকে যেতে পারে
  • কার্ডের যদি বাহ্যিক কোনো ক্ষতি হয়, সেক্ষেত্রে কার্ড আটকে যেতে পারে
  • লেনদেন করার পর নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে কার্ড বের করে না নিলেও কার্ড আটকে যেতে পারে

এছাড়া বেশিরভাগ এটিএম ভিসা, মাস্টারকার্ড, ইত্যাদি সার্ভিস সাপোর্ট করে। যদি আনসাপোর্টেড কোনো কার্ড মেশিনে ব্যবহার করা হয়, তবে তা আটকে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

এটিএম বুথে কার্ড আটকে গেলে করণীয়

এটিএম মেশিনে কার্ড আটকে গেলে সর্বপ্রথম তৎক্ষণাৎ ব্যাংকের কাস্টমার কেয়ার ডিপার্টমেন্টকে কল করে ব্যাপারটি জানান।। এটিএম বুথ এর স্থান ও অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ তথ্য সম্পর্কে ব্যাংককে অভিহিত করুন। এমন অবস্থায় আপনার হাতে দুইটি উপায় থাকবে – কার্ডটি উদ্ধার করা কিংবা ব্লক করা।

তবে সবচেয়ে ভালো হয় উক্ত কার্ড ব্লক করে দেওয়া। এতে কার্ডটি অন্য কারো দ্বারা ব্যবহারের মত অনাকাঙ্ক্ষিত বিষয় থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। ব্যাংক থেকে রিপ্লেসমেন্ট কার্ড ও কার্ডের পিন আপনার রেজিস্টার্ড এড্রেসে ৭ থেকে ১০দিনের মধ্যে পাঠানো হবে।

এছাড়া নিকটস্থ ব্যাংকের শাখায় যোগাযোগ করে কার্ড রিপ্লেস করতে পারেন অল্পসময়ের মধ্যে। এক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সাথে নিয়ে যেতে ভুলবেন না।

আবার আপনি চাইলে আটকে যাওয়া কার্ড উদ্ধারের সিদ্ধান্ত নিতে পারেন। মেশিনের লোকেশন ব্যাংকে জানালে ব্যাংক উক্ত কার্ড উদ্ধারের ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারে। উদ্ধারকৃত কার্ড আপনার কাছে সরাসরি পাঠানোর সিদ্ধান্ত নিতে পারেন, কিংবা ব্যাংকের শাখা থেকেও তুলতে পারেন।

আটকে যাওয়া এটিএম কার্ড রিপ্লেসের প্রক্রিয়া উপরে উল্লেখিত প্রক্রিয়ার মত প্রায় একই। রিপ্লেসমেন্ট কার্ডের ক্ষেত্রে নতুন পিন থাকে, আর কার্ড উদ্ধার করা হলে একই কার্ড থাকে বলে পিন আগের মতোই থাকে।

👉 নতুন ক্রেডিট কার্ড নেয়ার পর যে কাজগুলো অবশ্যই করবেন

নিরাপদে এটিএম কার্ড ব্যবহারের জন্য করণীয়

কার্ডনির্ভর ব্যাংকিং ব্যবস্থা দিনেদিনে অধিক জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। এছাড়া সুবিধার খাতিরে গ্রাহক ও মার্চেন্টগণ কার্ডের ব্যবহারকে অধিক পছন্দ করেন। নিয়মিত কার্ড ব্যবহারকারীদের কাছে তো কার্ড ছাড়া চলা বেশ কঠিন বিষয়।

সাধারণত বেশিরভাগ বাণিজ্যিক ব্যাংক তাদের সাথে ব্যাংক একাউন্ট খোলা হলে আপনাকে ডেবিট কার্ড দিবে। এটি হতে পারে একটি ভিসা কার্ড বা মাস্টারকার্ড। অথবা অন্য কোনো নেটওয়ার্কও হতে পারে। এর পিন সব সময় মনে রাখুন। আরো জানুনঃ এটিএম বুথ থেকে টাকা তোলার সময় যা খেয়াল রাখা জরুরি।

ব্যাংক থেকে কার্ড না দিলে এরপর আপনার যদি কার্ডের প্রয়োজন হয়, তবে ব্যাংকে যোগাযোগ করে কার্ডের জন্য আবেদন করতে পারেন। এই কার্ড ব্যবহারের সময় যদি কোনো সমস্যায় পড়েন  সেক্ষেত্রে কার্ড ব্লক করে দিয়ে নতুন রিপ্লেসমেন্ট কার্ডের জন্য ব্যাংকে যোগাযোগ করতে পারেন। তবে পরিচয় ভেরিফিকেশন ছাড়া ব্যাংক নতুন কার্ড ইস্যু করবেনা।

👉 ডেবিট কার্ড এবং ক্রেডিট কার্ড এর মধ্যে পার্থক্য কী?

কোনো কারণে কার্ডে কোনো সমস্যা হলে তখন যদি জরুরি টাকা তোলার প্রয়োজন হয়৷ সেক্ষেত্রে ব্যাংকের নিকটস্থ শাখায় যোগাযোগ করুন। আবার আপনি চাইলে ব্যাংকের চেকবই ব্যবহার করে ব্যাংক থেকে টাকা তুলতে পারবেন।

ব্যাংকে থাকা কোনো এটিএম থেকে টাকা তুলতে গিয়ে এটিএম মেশিনে টাকা আটকে গেলে সেক্ষেত্রে ব্যাংকের কর্মীদের সাহায্য নিতে পারেন। ব্যাংকের কর্মীগণ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবে আপনার আটকে যাওয়ার কার্ড উদ্ধার বা রিপ্লেস করতে।

👉 ক্রেডিট কার্ড কি ও কিভাবে পাবেন

আবার আপনার হাতের কাছে যদি উক্ত ব্যাংকের শাখা না থাকে তাহলে অনলাইন ব্যাংকিং বা মোবাইল ব্যাংকিং এর সাহায্যে দ্রুত টাকা তুলতে পারবেন একই কার্ডের সাহায্যে। তবে ব্যাংক ভেদে এই সুবিধা ভিন্ন হয়ে থাকে।

উল্লেখিত কোনো উপায় কাজ না করায় আপনি যদি কার্ড ব্যবহারে অপারগ হন, সেক্ষেত্রে বন্ধু বা পরিবারের কারো কাছ থেকে অর্থ ধার নিতে পারেন। তবে মনে রাখবেন কার্ড হারিয়ে গেলে বা এটিএম মেশিনে আটকে গেলে আপনার প্রথম কাজ হবে ব্যাংককে উক্ত বিষয়ে জানানো।

এই পোস্ট পড়ে এটিএম বুথে কার্ড আটকে গেলে করণীয় সম্পর্কে তো জানলেন। পরবর্তীতে যদি এটিএম মেশিনে আপনার ডেবিট কার্ড বা ক্রেডিট কার্ড আটকে যায়, তবে বিভ্রান্ত না হয়ে ব্যাংকের সাথে যোগাযোগ করে কার্ড উদ্ধার বা রিপ্লেস এর ব্যবস্থা করুন।

আরো শিখুন:  রবি নাম্বার দেখার নিয়ম

4 thoughts on "এটিএম বুথে কার্ড আটকে গেলে করণীয়"

  1. Md Saif Hasan Contributor says:
    Vai Your Fb Link Dan.Kotha Ase.
  2. ডেবিট কার্ড এবং ক্রেডিট কার্ড এর মধ্যে পার্থক্য কী?
  3. MD Shakib Hasan Author says:
    অনেক সুন্দর লিখেছেন 🥀

Leave a Reply