আসসালামু অয়ালাইকুম

সবাই কেমন আছেন,??
আশাকরি ভালই আছেন,,,

Lets Start

আমরা অনেকজন হয়ত বারকোড এবং কিউ আর কোড কি? তা জানি না।
তাই আপনাদের বুঝার সুবিধার্থে আলোচনা করছি।
চলুন তাহলে শুরু করি
বারকোড (Barcode):

বারকোড হল মেশিনে তৈরি এক প্রকারের সাংকেতিক কোড। বারকোডকে সোর্স কোডও বলা হয়,যার জনক হল বিজ্ঞানি মোর্স। বড় বড় শপিংমলে শপিং করতে গেলে আমরা দেখি জিনিসের সাথে লাগানো ছোট্ট কাগজ যেখানে দাম লেখা আছে তার একটু উপরেই কালো কালো কিছু দাগ আছে।
যেমন ::–

সেগুলো হল বারকোড। একটি ছোট্ট যন্ত কম্পিটারের সাথে কান্টেট করা থাকে যার মধ্য থেকে লাল আলো বের হয়; সেই আলোকে কালো কালো দাগগুলোর উপরে ধরলে কম্পিউটারে জিনিসটির নাম এবং মূল্য চলে আসে।মূলত কোন বড় কাজ করতে যেন ভুল না হয় তার জন্য বারকোড ব্যবহার করা হয়।বারকোড খালি চোখে পড়া সম্ভব নয়। তার জন্য কম্পিউটার আছে আছে Android App।
কিছু কিছু ওয়েব সাইটের মাধ্যমে এগুলো তৈরি করা যায়।
১৯৬০ সাল সালে প্রথম বারকেড ব্যবার করা হয়।
কিউ আর কোড (QR CODE):
QR CODE বা কুইক রেসপন্স কোড এক ধরনের ম্যাট্রিক / 2D বারকোড। সহজে বলতে গেলে এটি আমাদের বহু পরিচিত বারকোডের উন্নত সংস্করণ।
QR কোডে মেসেজ,নম্র বা অক্ষর দিয়ে তৈরি ডেটা,সাইটের Url, ফোন নাম্বার ইত্যাদি ছবির আকারে রাখা হয়।এটি প্রথম ডিজাইন করে জাপানের অটোমোবাইল কোম্পানির টয়োটার অধিনস্থ ডেনসো। তার পর ধিরে ধিরে জনপ্রিয় হয়ে উঠে।
যেমন::

কুইক রেসেন্স কোডে সঙ্কেতাক্ষরে লেখা কোন তথ্য নিদিষ্ট করে চারটির নমুনার ওপর ভিত্তি করে তৈরি করা হয়েছিল,সংখ্যাসূচক,বর্ণসূচক,বাইনার ( কম্পিউটার এর দ্বিপদ সঙ্কেত বা মেশিন ল্যাঙ্গুয়েজ),কাজ্ঞি ( এক ধরনের জাপানি লিপিবিদ্যা বা চায়না থেকে গ্রহন করা)।
কুইক রেসপন্স কোড গঠিত হয় সাদা পটভূমিতে বর্গাকৃতির গ্রিড এ সুবিন্যস্ত কালো উপাদান ( বর্গাকৃতির বিন্দু) যা পড়া যায় যে কোন ক্যামেরা দিয়ে।
আজ এই পর্যন্ত। সবাই ভালো থাকবেন। ট্রিকবিডির সাথেই থাকবেন।।

9 thoughts on "বারকোড এনং কিউ আর কোড কি? [বিস্তারিত পোস্টে]"

  1. MD Shakib Hasan MD Shakib Hasan Author says:
    🙂


    1. Saimum Raihan Saimum Raihan Author Post Creator says:
      tnx
  2. Jemes Faruk khan Contributor says:
    Ohhhhhhhhh tai naki
  3. Saimum Raihan Saimum Raihan Author Post Creator says:
    Wlc Bro

Leave a Reply