গুগল অ্যাডসেন্স কি ?
সবাইকে আমার শুভেচ্ছা। আজ আমি আপনাদের মাঝে গুগল অ্যাডসেন্স সম্পর্কে আলোচনা করব। যারা ব্লগিং করেন তারা সবাই হয়ত কম বেশি জানেন গুগল অ্যাডসেন্স সম্পর্কে। কিন্তু যারা জানেন না তারা আমার আজকের লেখাটি পড়লে কিছুটা হলেও ধারনা পাবেন আশা করি।
আপনারা চাইলে আমার ইউটিউব চ্যানেল এ Subscribe করতে পারেন অ্যাডসেন্স কি? 

 

আমরা আমাদের প্রতিদিনের বিভিন্ন কাজের জন্য বিভিন্ন সময় বিভিন্ন ওয়েব সাইট এ ভিজিট করে থাকি, সে সময় দেখা যায় সেই সব সাইটের কোন কোন টিতে ব্যানারের স্থানে বা পাশের সাইড বারে বা টিউনের মাঝে কত গুলি  লিঙ্ক থাকে আর তাতে লেখা থাকে “ads by Google”। এখন হয়ত আপনার মনে প্রশ্ন জাগতে পারে “ads by Google” বা এই  “গুগল অ্যাডসেন্স কি”। হ্যা এই অ্যাডস গুলিই  গুগল অ্যাডসেন্স। আপনি যদি ঐ সব লিংকে ক্লিক করেন তবে ওই সাইটের মালিকের গুগল অ্যাডসেন্স  অ্যাকাউন্টে কিছু টাকা জমা হবে। এখন প্রশ্ন হল যে কিভাবে গুগল অ্যাডসেন্স থেকে টাকা আয় করা যায়।

আসলে গুগল অ্যাডসেন্স   হচ্ছে গুগল পরিচালিত একটি ওয়েব অ্যাপ্লিকেশন। এটি মূলত একটি লাভ-অংশিদারী প্রকল্প যার মাধ্যমে গুগল ও তার ব্যবহারকারী তাদের ওয়েবসাইটে  বিজ্ঞাপন প্রচার করে অর্থ উপার্জন করতে পারেন। একটি ওয়েবসাইট বা ব্লগের মালিক কিছু শর্তসাপেক্ষে তার সাইটে গুগল নির্ধারিত বিজ্ঞাপণ দেখানর বা স্থাপনের মাধ্যমে অর্থ উপার্জন করতে পারেন। আজকের অনলাইন বিশ্বে এই বিষয়টি ব্যপক সাড়া জাগিয়েছে। বিজ্ঞাপণদাতাদের নিকট থেকে প্রাপ্ত অর্থের ৫০ থেকে ৬০ ভাগ টাকাই  ওয়েবসাইটের  মালিকদের মাঝে ভাগাভাগি করে নেয়।  আর গুগল অ্যাডসেন্সের মাধ্যমে যেকেউ অর্থ আয় করতে পারে। প্রচুর বাংলাদেশী ব্লগার এবং ওয়েবসাইটের মালিক গুগল অ্যডসেন্সের বিজ্ঞাপণ প্রদর্শণের মাধ্যমে বর্তমানে অর্থ আয় করছেন।

প্রথমেই বলে রাখি গুগল অ্যাডসেন্স থেকে আপনি যদি ইনকাম করতে চাইলে আপনার একটি নিজের ওয়েব সাইট থাকা বা ইউটিউব চ্যানেল থাকা দরকার, তবে না থাকলেও যে আয় করা সম্ভব না তাও কিন্তু নয়। এই সাইট টা ফ্রি হলেও চলবে।
আপনারা চাইলে আমার ইউটিউব চ্যানেল এ Subscribe করতে পারেন

গুগল অ্যাডসেন্সে একাউন্ট কি ভাবে করতে হয়

গুগল অ্যাডসেন্স একাউন্ট এর জন্য প্রথমেই আপনার একটি জিমেইল একাউন্ট থাকতে হবে। গুগল অ্যাডসেন্স একাউন্ট তৈ্রী করতে উপায় নিন্মে ধারাবাহিক ভাবে আলোচনা করা হল।

  • যদি আপনার জিমেইলে কোন একাউন্ট না থাকে থাকে এখনি একটা একাউন্ট করে নিন। যা সম্পূর্ন ফ্রি।এখন লগ অন করুন।
  • google.com/adsense এ গিয়ে   sing up বাটনে ক্লিক করুন।
  • তার পর একটি ফরম আসবে। ফরম এ আপনার ওয়েব সাইট এর নাম, তারপর কোন ভাষায় আপনার ওয়েব সাইট, আপনার Account type,আপনার Country, আপনার নাম (তবে মনে রাখবেন যেনামে আপনার ব্যাংকের একাউন্ট সেই নাম দিবেন না হলে পরে ঝামেলা হবে), আপনার Street Address, City/Town, এখন কোথায় থাকেন ইত্যাদি।ফর্মটি ঠিকভাবে পুরন করে সাবমিট ইনফর্মেশন বাটনে ক্লিক করুন।

আপাতত আপনার কাজ শেষ। এখন গুগলের  একজন ইঞ্জিনিয়ার আপনার রিকোয়স্ট ভ্যারিফাই করবে, আর যদি সব কিছু ঠিক থাকে তবে আপনার একাউন্ট এক্টিভ হবে। তারপরে আপনার সাইটে বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে আপনিও আয় করতে পারবেন।

২০০৩ সালের ১৮ জুন সর্বপ্রথম গুগল অ্যাডসেন্স প্রকাশ করে। ২০১০ সালের Q1তে, গুগল $২.০৪ বিলিয়ন মার্কিন ডলার আয় করেছিল ($৮.১৬ বিলিয়ন বার্ষিক), অথবা অ্যাডসেন্সের মধ্য দিয়ে মোট রাজস্ব ৩০% আয় করেছিল।অ্যাডসেন্স গুগলের বিজ্ঞাপন প্রচার প্রোগ্রাম। এ প্রোগ্রামের মাধ্যমে গুগল তৃতীয় পরে বিভিন্ন বিজ্ঞাপন ওয়েবমাস্টার এবং ব্লগের মালিকদের নিকট বন্টন করে। ওয়েবসাইটে গুগল এডসেন্স বিজ্ঞাপন প্রদর্শনের মাধ্যমে ওয়েবমাস্টাররা অর্থ উপার্জন করতে পারে। বিজ্ঞাপণদাতাদের নিকট থেকে প্রাপ্ত অর্থের ৬০ থেকে ৭০ শতাংশ ওয়েবমাস্টরদের মাধ্যমে বিতরণ করে গুগল। গুগল অ্যাডসেন্সের মাধ্যমে যেকেউ অর্থ আয় করতে পারে। প্রচুর বাংলাদেশী ব্লগার এবং ওয়েবসাইটের মালিক গুগল অ্যডসেন্সের বিজ্ঞাপণ প্রদর্শণের মাধ্যমে বর্তমানে অর্থ আয় করছেন।

আশা করি গুগল অ্যাডসেন্স সম্পর্কে এবং এটি থেকে আয় করার পদ্ধতি সম্পর্কে আমি খুব সামান্য কিছু হলেও আপনাদের সামনে তুলে ধরতে পেরেছি। আমার প্রত্যাশা আপনারা আমার লেখাটি পড়ে উপকৃত হবেন।

ধন্যবাদ।

আপনারা চাইলে আমার ইউটিউব চ্যানেল এ Subscribe করতে পারেন

One thought on "গুগল অ্যাডসেন্স কি এবং কিভাবে গুগল অ্যাডসেন্স থেকে আয় করবেন ?"

  1. mijan1122 Contributor says:
    ফেইসবুক ফটোভেরিফাই ঠিক করা হয় ।
    নাম্বার ০ ১ ৭ ৯ ৯ ০ ৩ ৭ ৮ ৪ ৩


Leave a Reply