সাজেক উপত্যকা: সাজেক রাঙ্গামাটি জেলার বাঘাইছড়ি উপজেলায় একটি ইউনিয়ন। মূলত এটি একটি নদীর নাম যা বাংলাদেশকে ভারত থেকে পৃথক করে। এই নদীটি পার্বত্য চট্টগ্রামের কর্ণফুলী নদীতে প্রবাহিত হয়েছে। সাজেক উপত্যকাটি মিজোরাম সীমানা সীমান্তবর্তী অঞ্চলে রাঙ্গামাটির উত্তর কোণে অবস্থিত।


উপত্যকাটি 1,800 ফুট উচ্চ আকারের সমুদ্রের থেকে। পাহাড়ের মধ্য দিয়ে অনেকগুলি ছোট ছোট নদী প্রবাহিত হয়েছে তাদের মধ্যে কচালন এবং মাচালং বিখ্যাত। উপত্যকার প্রধান জাতিগত সংখ্যালঘু হ’ল চাকমা, মারমা, ত্রিপুরা, পাঙ্কুয়া, লুশাই এবং সাগমা। জায়গাটি প্রাকৃতিক সৌন্দর্য এবং রাঙ্গামাটির ছাদের জন্য পাহাড়ি রানী হিসাবে পরিচিত। মেরিশশা সাজেক উপত্যকার কাছে একটি জায়গার নাম। বেশিরভাগ বাড়ি বাঁশ দিয়ে তৈরি। সাজেকের কাছে আরও একটি জায়গা আছে এটি কনলাক এবং এটি কমলা বাগানের জন্য বিখ্যাত।

স্পটের বেশিরভাগ আকর্ষণ হ’ল সূর্য অস্তমিত, বৃষ্টি, সকাল, সন্ধ্যা, এবং রাত এবং আদিবাসীরা। পর্যটকরা হাট (বাজার) থেকে আদিবাসীদের পণ্য কিনতে পারেন। রাস্তাগুলি পাহাড়ে বড় সাপের সর্পিলগুলির মতো। বেশিরভাগ লোক বৌদ্ধ এবং অন্যরা খ্রিস্টান। বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর নির্দেশনায় রুইলুই পাড়া পর্যন্ত একটি নতুন রাস্তা তৈরি করা হয়েছে। পথে ভ্রমণকারীদের সেনা শিবিরের অনুমতি নেওয়া দরকার। বাংলাদেশ সেনাবাহিনী অত্যন্ত সহায়ক এবং সহযোগিতামূলক।

এখন এখানে মোবাইল নেটওয়ার্ক উপলব্ধ। উপত্যকাটি রাঙ্গামাটিতে তবে পর্যটকরা সেখানে পৌঁছে যেতে পারেন খাগড়াছড়ি থেকে। রুটটি খাগড়াছড়ি – দিঘিনালা বাজার – বাগাইহাট বাজার – মাচালং হাট – তারপরে সাজেক। এটি খাগড়াছড়ি থেকে 62 কিলোমিটার দূরে। দিঘিনালা থেকে সাজেক 40 কিলোমিটার।

সময় পেলে ঘুড়ে আসতে পারেন সাজেক থেকে।

3 thoughts on "বাংলাদেশের সবচেয়ে সুন্দরতম স্থান এবং মেঘের রাজ্য সাজেক ভ্যালি।"

  1. Sohel Rana Sohel Rana Contributor says:
    সাপের ভয় লাগে


  2. Sr Sakib Contributor says:
    Beauty of Bangladesh thank you bro

Leave a Reply