সালামু লাকু

 কে ছে বা? 
 আশা করি সবাই ভালোই আছেন
…………………….…………..…….…………………. …………..…..…..…………………….…………..…….…………………….………..…..…..
 প্রতিদিনের মতো আজকেও আপনাদের জন্য নতুন একটি পোস্ট
নিয়ে হাঁজির হয়েছি। আমি রেগুলার ট্রিকবিডি তে পোস্ট
পাবলিশ করি, এবং ভবিষ্যতেও করবো। কিন্তু একটা কথা হলো
আপনার যদি পোস্ট টি ভালো লাগে তাহলে লাইক দিয়ে পাশে
থাকবেন অথবা কোনো মন্তব্য বা পরমর্শের জন্য কমেন করে
জানাতে পাবেন। ……….………..…………….……………….……………… …….……….…………………………..………………………………………….……. ………………………………..………………..………………….……….…..
যাই হোক আজকের পোস্টের মূল বিষয় হলোঃ সাইবার ক্রাইম ( cyber crime) মানে কি | কত প্রকারের হয়।

তো চলুন বিস্তারিত পোস্টে চলে
যায়।
বিস্তারিত পোস্টঃ 

বিস্তারিত পোস্টঃ

আজকের টেকনোলজি যুগে কম্পিউটার এবং ইন্টারনেটের ব্যবহার ক্রমাগত বৃদ্ধি পাচ্ছে, এমন অবস্থায় কম্পিউটারের সাহায্য ছাড়া কোনো কাজ করা খুবই কঠিন মনে হয়। 
ইন্টারনেটের ক্ষেত্রে ক্রমাগত উন্নয়নের পরিপ্রেক্ষিতে অপরাধীরাও প্রযুক্তির মাধ্যমে হাইটেক হয়ে উঠছে। তারা কম্পিউটার, ইন্টারনেট, ডিজিটাল ডিভাইস এবং ওয়ার্ল্ড ওয়াইড ওয়েব ইত্যাদি ব্যবহার করে অপরাধ করছে, অনলাইন প্রতারণা বা চুরিও এই বিভাগে আসে। কারও ওয়েবসাইট হ্যাক করা বা সিস্টেমের ডেটা চুরি করা, এই সমস্ত পদ্ধতি সাইবার অপরাধের (Cyber Crime) আওতায় পড়ে।

সাইবার ক্রাইম মানে কি

 অনলাইনের মাধ্যমে সংঘটিত অপরাধ অর্থাৎ ইন্টারনেটকে সাইবার ক্রাইম বলা হয়, অর্থাৎ ইন্টারনেটের মাধ্যমে সংঘটিত অপরাধের হাই-টেক ফর্মকে বলা হয় সাইবার ক্রাইম। এর অধীনে, ক্রেডিট কার্ড চুরি, ব্ল্যাকমেইলিং, ডাকাতি মতো অপরাধগুলি ইন্টারনেটের সাহায্যে পরিচালিত হয়। 

সাইবার ক্রাইম কত প্রকারের হয় 

সাইবার ক্রাইম সাধারণত অনেক রকমের হয়ে থাকে। তার মধ্যে থেকে কয়েকটির উল্লেখ করেছি। তাহলেই আপনি বুঝতে পারবেন।
Hacking হ্যাকিং ....
যখন কোন ব্যক্তি আপনার কম্পিউটার, নেটওয়ার্ক এবং সার্ভার ইত্যাদির ডেটা চুরি করে, নষ্ট করে বা সংশোধন করে প্রযুক্তি বা সফটওয়্যারের মাধ্যমে নিজের উদ্দেশ্যে কোন উদ্দেশ্যে, এই
প্রক্রিয়াটিকে হ্যাকিং বলা হয়। যে ব্যক্তির দ্বারা এই কৌশলটি সম্পন্ন করা হয়, সেই ব্যক্তিকে হ্যাকার বলা হয়। হ্যাকিং হচ্ছে এমন একটি প্রক্রিয়া যার অধীনে কোনো ব্যক্তি অনুমতি
ছাড়া কোনো ব্যক্তির ব্যক্তিগত তথ্যে অবৈধভাবে হস্তক্ষেপ করে।
এর জন্য, কিছু অপরাধী সংগঠন নৈতিক হ্যাকারের মাধ্যমে, তারা তাদের ওয়েবসাইটের নিরাপত্তা ভঙ্গ করে এবং সম্পূর্ণ হ্যাক করতে পারে। এর বাইরে, তারা তাদের সোশ্যাল মিডিয়া
অ্যাক্সেস হ্যাক করতে পারে এবং তাদের পরিচয় ব্যবহার করতে পারে। এই অপরাধের সবচেয়ে বড় কথা হল যে সেই কম্পিউটার মালিকও জানেন না যে কোন হ্যাকার তার কম্পিউটারে উপস্থিত সকল ধরনের তথ্য তার নিজের নামে ব্যবহার করছে।
এই ধরনের ঘটনা সাধারণত এমন ব্যক্তিদের সাথে ঘটে, যারা উচ্চ পদে থাকে এবং তারা ব্যাঙ্ক বা তাদের ক্লায়েন্টদের সাথে সব ধরনের নগদ লেনদেন করে থাকে। এইরকম পরিস্থিতিতে, তার যে কোন সহযোগী বা ঘনিষ্ঠ জ্ঞানী ব্যক্তি তার অ্যাকাউন্ট সম্পর্কিত সমস্ত তথ্য চুপচাপ চুরি করে, তারপর তার ব্যাংক ক্রেডিট কার্ড এটিএম কার্ড ইত্যাদি নম্বর পাওয়ার পরেও না, যদিও এটি একটি খুব বড় সাইবার অপরাধ।
এই ধরণের অপরাধ মূলত সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক, ইনস্টাগ্রাম, ইমেইল সাইট ইত্যাদির মাধ্যমে করা হয়। এর অধীনে, অপরাধীরা এমন লোকদের হয়রানি করে, যাদের হয় ছোট বাচ্চা বা কিশোর। তাদের সাথে গালাগাল টাইপ চ্যাট করুন অথবা তাদের উল্টানো ছবিও পাঠান। এমন
অবস্থায় শিশুদের মধ্যে বোঝাপড়া এবং জ্ঞানের অভাবের কারণে তারা এর শিকার হয় এবং সামনের অপরাধী তাদের বিভিন্ন আইডি দিয়ে বার বার হয়রানি করে এবং তাদের ব্ল্যাকমেইল করে।
অপরাধীরা এমন কিছু সফটওয়্যার ব্যবহার করে, যা দেখতে খুবই আকর্ষণীয়, কিন্তু যদি সেগুলো আপনার ফোনে বা কম্পিউটারে ক্লিক বা ডাউনলোড করা হয়, তাহলে আপনার কম্পিউটার এবং ফোন সম্পূর্ণ হ্যাক হয়ে যেতে পারে। এইরকম পরিস্থিতিতে, তারা সম্পূর্ণ তথ্য অর্থাৎ আপনার কম্পিউটার এবং ফোনের তথ্য পায় এবং তারা আপনার সমস্ত অ্যাকাউন্টে অ্যাক্সেসও পায়।
সাইবার গুপ্তচরবৃত্তির অধীনে, কিছু বড় হোটেলের বাথরুম এবং শোবার ঘরে কিছু ক্যামেরা চুপচাপ ইনস্টল করা আছে। সেই মেয়েদের কিছু অশ্লীল ছবি ও ভিডিও ওই ক্যামেরায় রেকর্ড করা হয়েছে। শপিং মল বা কিছু পোশাকের দোকানেও একই রকম
কিছু করা হয়, যেখানে মেয়েরা তাদের পোশাক পরিবর্তন করে এবং তাদের ফিটিং পরীক্ষা করে। সেই মেয়েদের তাদের ছবি ও ভিডিও তুলে ব্ল্যাকমেইল করা হয়, যা সাইবার ক্রাইমের অত্যন্ত শাস্তিযোগ্য অপরাধ।

conclusion

এছাড়াও আরো অনেক রকমের সাইবার ক্রাইম
রয়েছে। এই সমস্ত অপরাধ যদি আপনি করে থাকেন তাহলে
আপনার জেল এর মত বড় শাস্তি হতে পারে। তায় এই
সব ক্রাইম থেকে অবশ্যই নিজেকে দূরে রাখুন।

“”তারপরেও আপনারা যদি কোনো সময়ে সাইবার ক্রাইমের শিকার হয়ে থাকেন তাহলে নিম্নোক্ত সরকারি সহায়তা নিতে পাবেন।””

বাংলাদেশ সাইবার সিকিউরিটি হেল্পলাইন নম্বর, ইমেইল ঠিকানা

বাংলাদেশ সাইবের সেকারিটি হেল্পলাইন নম্বর, ইমেইল ঠিকানা এবং যাবতীয় তথ্য এখানে উপলব্ধ । আপনি যদি অনলাইনে দুনিয়ায় সাইবার সম্পর্কিত কোন ভুল করে থাকেন, বা তা থেকে উদ্ধার হওয়ার উপায় খোঁজেন, তাহলে এই পোস্টটি আপনাকে গুরুত্বপূর্ণ ডাটা দিয়ে সহায়তা করবে ।
বাংলাদেশ সাইবার সিকিউরিটি হেল্পলাইন নম্বর, ইমেইল ঠিকানা, অবস্থান, কমপ্লেন ইত্যাদি বিষয় নিয়ে এখানে বিশদ আলোচনা করা হয়েছে । সুতরাং আপনি যদি হেল্পলাইন নম্বর খোঁজ করে থাকেন এবং কোন অভিযোগ পেশ করার জন্য মনস্থির করেন, তবে নো টেনশন ! আমাদের সংগ্রহীত নিম্নোক্ত নাম্বারে কল করে আপনি যাবতীয় পরিষেবা পেতে পারেন। বর্তমানে বাংলাদেশে সাইবার সম্পর্কিত সমস্যার বেড়াজাল ছিন্ন করে বেরিয়ে আসতে পেরেছে । সুতরাং বাংলাদেশ সাইবার সিকিউরিটি হেল্পলাইন নম্বর নিন, কল করুন এবং যাবতীয় পরিষেবা পান ।

বাংলাদেশ সাইবার সিকিউরিটি হেল্পলাইন নাম্বার ও ইমেল।

হেল্পলাইন নম্বর: 01766678888

ইমেল: [email protected] এবং [email protected]

……..….………….…….…………………….…… …………..…….……………….…………………..…… .………………..…...……….………….…………………. ……………..…….…………………….………..…..…..

তো আজ এই পর্যন্তই। আজকের পোস্টটি এখানেই শেষ করছি। এই পোস্টটি আপনাদের কেমন লাগলো কমেন্ট করে জানাতে ভুলবেন না। এই পোস্ট টি সম্পর্কে আপনাদের আরো কোনো কিছু জানার থাকলে অবশ্যই আমার সাথে যোগাযোগ করবেন অথবা ট্রিকবিডির কমেন্ট সেকশনে জানাবেন। এবং পোস্টটি তে লাইক দিতে ভুলবেন না। সবার সুসাস্থ্য কামনা করে আজকে এখানেই পোস্ট টি শেষ করছি। সবাই ভালো থাকবেন, সুস্থ্য থাকবেন।

ন্যবা



7 thoughts on "সাইবার ক্রাইম (Cyber Crime) মানে কি | কত প্রকারের হয়।"

  1. TrickBD Support Moderator says:
    আগেও ওয়ার্নিং দেয়া হয়েছে।
    এখন কপি-পেস্ট থাকলে এডমিন নিজে সরাসরি ট্রেইনার পদ বাতিল করছেন।
    আর যারা ইউনিক পোস্ট করছে তাদের রিওয়ার্ড কয়েকগুণ বাড়ানো হয়েছে।
    1. Akash_Ahmed4555 Contributor Post Creator says:
      কিছু কিছু অন্য সাইট থেকে নেওয়া এবং নিজের লেখা প্রায়ংশই। ঠিক আছে। এখন থেকে অন্য সাইট থেকে একটা ওয়ার্ড ও নেওয়া হবে না।
    2. TrickBD Support Moderator says:
      এডমিন নিজে একশন নিচ্ছেন নীতিমালা বহির্ভূত পোস্টে।
    3. Akash_Ahmed4555 Contributor Post Creator says:
      আর কোনো সুযোগ দেওয়া হবে না?🙃
    4. TrickBD Support Moderator says:
      এডমিনের সিদ্ধান্ত।
      গত ৩ দিনে ১০ জনের মতো ট্রেইনার পদ হারিয়েছে।

Leave a Reply