আমরা প্রয়োজনে বিভিন্ন সফটওয়্যার পিসিতে ইন্সটল দিয়ে থাকি এবং ক্ষেত্র বিশেষে তা আবার আন ইন্সটলের দরকার হয়। আমরা সফটওয়্যার এভাবে আন ইন্সটলের পর দেখা যায় বেশ কিছু সফটওয়্যার রিলেটেড ফাইল, রেজিস্ট্রি আমাদের পিসিতে থেকে যায় এবং এর পরিমাণ বাড়ার কারনে একটা সময় পিসির গতি কিছুটা হ্রাস পাই। আমরা এই সমস্যাটির খুব সহজ সমাধান আনতে পারি রিভো আন-ইন্সটলার ব্যবহার করে।

নিচে কয়েকটি ধাপ অনুসরণ করে দেখুন কোনটি আপনার দরকার:

অটো রান ম্যানেজার:
প্রতিবার চালু করার সঙ্গে সঙ্গে আপনার পিসিতে স্বয়ংক্রিয়ভাবে চালু হয় অসংখ্য ফাইল। আমরা অনেকেই জানি স্টার্ট প্রোগ্রামস স্টার্ট-আপ ফাইলে থাকা যে কোনো প্রোগ্রামই উইন্ডোজ প্রতিবার চালু হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে চালু হবে। কিন্তু আপনি নিশ্চয়ই টের পেয়ে গেছেন যে, এর বাইরেও অনেক প্রোগ্রাম চালু হচ্ছে যখনই আপনি কম্পিউটার চালু করছেন। এ অতিরিক্ত ও অনাকাঙ্ক্ষিত প্রোগ্রাম গুলোর স্টার্ট হওয়া বন্ধ করা গেলে আপনার পিসি আরো দ্রুত স্টার্ট হবে। অটো রান ম্যানেজার অপশনে আপনি দেখতে পাবেন কোনো কোনো প্রোগ্রাম কম্পিউটার চালু হওয়ার সময় নিজেই চালু হয়ে যায়। আপনি তাদের টিক চিহ্ন উঠিয়ে দিয়ে অটো রান বন্ধ করতে পারেন।

ইজি আন-ইন্সটল:
আপনার কম্পিউটার ইন্সটল করা সব সফটওয়্যারের একটি তালিকা দেখতে পাবেন রিভো আন-ইন্সটলার রান করলে। এখান থেকে যে কোনো সফটওয়্যারের নামের ওপর ডাবল ক্লিক করে সম্পূর্ণ মুছে ফেলা যাবে সেই সফটওয়্যারটিকে আপনার হার্ডড্রাইভ থেকে। আপাতত দৃষ্টিতে উইন্ডোজের অ্যাড-রিমুভ প্রোগ্রামের মতো দেখা গেলেও এ দুয়ের মধ্যে রয়েছে এক বিশাল পার্থক্য, যা আপনি ব্যবহারের সময়ই বুঝবেন।

জাঙ্ক ফাইল ক্লিনার:
অধিকাংশ উইন্ডোজ অ্যাপ্লিকেশন ইন্সটল করার সময় আপনার কম্পিউটারে অপ্রয়োজনীয় ফাইল ইন্সটল হয়ে যায়, যা পরবর্তী সময়ে মুছে ফেললেও স্থায়ীভাবে বা সম্পূর্ণভাবে কম্পিউটার থেকে বিদায় হয়ে যায় না। ওইসব ফাইল আপনার কম্পিউটারে সক্রিয় থাকে এবং কম্পিউটারের গতিকে ধীর করতে থাকে যদিও আপনি ওইসব ফাইলের সন্ধান পাবেন না। রিভো আন-ইন্সটলারের জাঙ্ক ফাইল ক্লিনারের মাধ্যমে আপনি সেসব অপ্রয়োজনীয় ফাইল মুছে দিতে পারবেন।

ব্রাউজার হিস্ট্রি ক্লিনার:
ইন্টারনেট এক্সপ্লোরার, ফায়ারফক্স ও অপেরা এ তিনটি ব্রাউজারের হিস্ট্রি, টেম্পোরারি ফাইল, কুকি, ডাউনলোড হিস্ট্রি ও ফরম হিস্ট্রি সম্পূর্ণভাবে মুছে ফেলতে অত্যন্ত কার্যকরী রিভো আন-ইন্সটলারের ব্রাউজার ক্লিনার অপশনটি। আপনি যা মুছে ফেলতে চান, সেসব অপশনের ওপর টিক চিহ্ন দিয়ে এক্সিকিউট বাটনে ক্লিক করলেই আপনার কাজ হয়ে যাবে।

এভিডেন্স রিমুভার:
আপনি যখন কোনো ফাইল বা ফোল্ডার ডিলিট করেন, তখন হয়তো তা রিসাইকেল বিনে যায় এবং সেখানে থেকে ডিলিট করলে সেটা পুরো কম্পিউটার থেকেই মুছে যায়। আপাতত দৃষ্টিতে এমনটা মনে হলেও আসলে কিন্তু তা নয়। আপনার ফাইলটি শুধু ডিলিটেড হিসেবে মার্ক করা হয়, সম্পূর্ণ ফাইলটি একেবারে মুছে যায় না। ইন্টারনেটে অসংখ্য ফ্রিওয়্যার আছে, যেগুলো ব্যবহার করে কয়েক বছর আগে মুছে ফেলা ফাইলও রিকভার বা ফেরত আনা সম্ভব। এতে করে আপনার অত্যন্ত গোপনীয় ও গুরুত্বপূর্ণ ফাইলও চলে যেতে পারে অন্যের হাতে। এভিডেন্স রিমুভার ব্যবহার করে সেসব ফাইলকে খুঁজে বের করে ডিলিট করার একটি সুযোগ পেতে পারেন আপনি। যেসব ড্রাইভ থেকে ফাইল ডিলিট করা হয়েছে, সেসব ড্রাইভেই আপনার সংশ্লিষ্ট ফাইলটি লুকানো থাকে, যা পরবর্তী রিকভারি সফটওয়্যার দ্বারা ফেরত আনা সম্ভব। রিভো আন-ইন্সটলারের এভিডেন্স রিমুভার ব্যবহার করতে পারেন সেসব মুছে ফেলা ফাইলের অবশিষ্টকেও ধ্বংস করতে।

আন-রিকভারেবল ডিলিট:
অত্যন্ত গোপনীয় বা গুরুত্বপূর্ণ ফাইল ডিলিটের সময় আপনি নিশ্চয়ই চাইবেন যাতে এটাকে সম্পূর্ণভাবে ডিলিট করা যায়, যাতে তা আর কখনোই রিকভার করা সম্ভব না হয়। রিভো আন-ইন্সটলারের আন-রিকভারেবল ডিলিট অপশন ব্যবহার করে আপনি যে কোনো ফাইল সম্পূর্ণভাবে ডিলিট করে দিতে পারেন।
এসব ছাড়াও রিভো আন-ইন্সটলার ব্যবহার করে আপনি উইন্ডোজ ক্লিপবোর্ড, রিসেন্ট ডকুমেন্ট হিস্ট্রি, রান হিস্ট্রি, মাইক্রোসফট ওয়ার্ড, এক্সেল, পাওয়ারপয়েন্ট, এক্সেস, ফ্রন্টপেজ ইত্যাদির রিসেন্ট ফাইল হিস্ট্রি ইত্যাদি সম্পূর্ণরূপে মুছে ফেলতে পারবেন। কম্পিউটারের সুরক্ষায় এ রিভো আন-ইন্সটলার ব্যবহার করতে পারেন বিনামূল্যে।

সফটওয়্যারটি নিচ থেকে ডাউনলোড করে নিতে পারেন।

Click Here to Download

One thought on "আপনার কম্পিউটারের পারফারমেন্স বাড়াতে দুর্দান্ত একটি সফটওয়্যার ।"

  1. Mostakin Alam mostakin99 Contributor says:
    ami iobit uninstaller use kore. dekhi ata kemon lage.


Leave a Reply