আসসালামু আলাইকুম। কেমন আছেন সবাই। আশা করি ভালো আছেন। আজকে আমি Virtual Machine বা Virtualization নিয়ে আপনাদের ধারনা এবং কিভাবে আপনি Virtualization এর মাধ্যেমে WIndows বা Mac এ Linux বা অন্য যেকোনো Operating System চালাতে পারবেন তা নিয়ে বিস্তারিত ধারনা এবং কিভাবে কি কি করতে হবে সে ব্যাপারে ধারনা দিতে আসছি।

আমার মনে হয়ে এটি সম্পর্কে ধারনা রাখা উচিত আমাদের সবার।

তো দেরী না কর মূল পোস্ট এ যাওয়া যাক।

আগেই ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছি পোস্ট একটু বড় । সময় নিয়ে পড়ার জন্য অনুরোধ রইলো 🙂

Windows এ Kali লিনাক্স Install এর জন্য আপনাকে প্রথমে Virtual Box ডাউনলোড করতে হবে। টেনশন এর কোনো কারন নাই। সম্পুর্ন ফ্রি এটি।

virtual box download

১. গুগলে এ গিয়ে Virtual Box লিখে সার্চ করলেই চলে আসবে প্রথম ওয়েবাসাইট টি । অথবা আমি ডিরেক্ট ডানলোড লিংক টি দিয়ে দিচ্ছি আপনারা চাইলে এখানে গিয়ে ডিরেক্ট ডাউনলোড করতে পারেন।

Download Link 

এরপর সফটওয়্যার টি ডাউনলোড হলে আর দশটা সফটওয়্যার এর মত ইনস্টল করে ফেলবেন।

 

২. ইনস্টল করার পর আপনি এরকম একটি environment দেখতে পারবেন পারবেন

 

৩. এবার নিউ তে ক্লিক করার পর আপনি এরকম একটি ডায়ালগ বক্স দেখতে পারবেন

virtual box

৪. ডায়ালগ বক্সে আপনি আপনার অপারেটিং সিস্টেমের যে নামটা দিতে চান সেটা দেবেন এবং কোন ফোল্ডারে রাখবেন আপনার ড্রাইভার সেটা নিশ্চিত করে দিবেন এবং এক্ষেত্রে একটা জিনিস খেয়াল রাখবেন আপনার অপারেটিং সিস্টেম ইনস্টল করতে যে পরিমাণ জায়গা প্রয়োজন সে পরিমান জায়গা উক্ত ফোল্ডারটি অথবা ড্রাইভে আছে কিনা ।

৫. Type Linux বা Windows সেট করার পর এখন আপনাকে করতে হবে মেইন কাজটি আপনাদের অনেকের ক্ষেত্রে হয়তো এমন হবে দেখবেন যে 32 বিট অপশনটি চলে আসছে কোন খানে  64-bit অপশনটি নাই নেই।

এক্ষেত্রে আপনাদেরকে একটা জিনিস চেক করে দেখতে হবে যে আপনার কম্পিউটারে অথবা মাদারবোর্ড থেকে অথবা বয়স থেকে Virtualization অপশনটি এনাবল করা আছে কিনা Virtualizationযদি না করে থাকে তাহলে আপনারা 64 বিটের ভার্চুয়াল বক্স ব্যবহার করতে পারবেন না তাই BIOS থেকে অবশ্যই Virtualization অপশনটি এনাবল করে নিতে হবে ।

এটি মাদারবোর্ড টু মাদারবোর্ড বিভিন্ন রকম হয়ে থাকে আপনি আপনার মাদারবোর্ডের মডেল অথবা ল্যাপটপের মডেল এ কিভাবে Virtualization অন করবেন সেটি দেখে সার্চ করলেই অনলাইনে অনেক রিসোর্স পেয়ে যাবেন ।

আপনারা অবশ্যই সেখান থেকে Virtualization করে নেবেন

virtualization

***Virtualization আছে কিনা তা চেক করার জন্য Task Manager থেকে Performance ট্যাবে যাবেন এবং ডান দিকের নিচের দিকে দেখবেন যে Virtualization যদি অন করা থাকে তাহলে লেখা থাকবে Enable আর যদি না থাকে তাহলে লেখা থাকবে Disable । 

****সে ক্ষেত্রে Enable যদি করে থাকে তাহলে আপনাদেরকে নতুন করে Virtualization করতে হচ্ছেনা কিন্তু ডিজেবল থাকলে অবশ্যই Virtualization On করবেন ।  না হলে আপনি ভার্চুয়াল বক্স এর Full Facilities নিতে পারবেন না ।

virualization

৬. নেক্সট অপশনে ক্লিক করার পর আপনাদের কাছে অপশনটি চলে আসবে সেটি হচ্ছে  Memory Size  অর্থাৎ RAM সাইজ নির্ধারণ করার জন্য । এক্ষেত্রে একটা সর্তকতা অবলম্বন করতে হবে আপনার RAM সাইজের কখনো অর্ধেকের বেশি ভার্চুয়াল বক্স এ Allocate করবেন না যতটা পারবেন কম করবেন আমি এক্ষেত্রে 2BG রম ব্যবহার করছি ভার্চুয়াল বক্স এর জন্য। সিলেক্ট  করার সময় দেখবেন ওখানে একটি লাল দাগ বা ইন্ডিকেটর রয়েছে কখনোই সবুজ দাগ পার করে হলুদ দাগ বা লাল দাগ এ  যাবেন না সেক্ষেত্রে আপনার ডিভাইসটি দেখা যাবে যে Virtual Box  রান করার জন্য Requirements সেটি আপনার নিজস্ব যে PC রয়েছে সেটিকে ওভারল্যাপ করে ফেলবে তখন আপনি আসলে ভার্চুয়াল মেশিনটি প্রপারলি চালাতে পারবেন না তাই এদিকটা একটু সাবধান থাকবেন।

virtualization

৭. এরপর যে অপশনটা আসবে তাতে Create A Virtual Disk অপশন টি ক্লিক করে নিচের ক্রিয়েট অপশনে চাপ দিবেন

virtualbox

৮. Hard Disk File Type অপশানে Virtual Disk Image বা VDI অপশনটি সিলেক্ট করে দিবেন

virtualbox

৯. এই পার্ট  টি তে দুইটি অপশন রয়েছে একটি হচ্ছে Dynamically Allocated  আরেকটি হচ্ছে Fixed Size যদি আপনি Fixzed Size করেন তাহলে একটি নির্দিষ্ট পরিমান জায়গায় দখল করবে
***কিন্তু এক্ষেত্রে আমি সাজেস্ট করবো Dynamically Allocated করার জন্য কারণ এক্ষেত্রে দেখা যাবে যে আপনি ভার্চুয়াল মেশিন টা যতোটুকু ইউজ করবেন সে অনুযায়ী তার নিজস্ব প্রয়োজন অনুযায়ী সে তার ইচ্ছামত স্পেস বাড়ায় নিবে এবং  এটা কখনোই প্রয়োজনের চেয়ে বেশি নিবে না এটা নিয়ে টেনশন করার দরকার নেই 

আমার সাজেশন থাকবে Dynamically Allocated করার ।

virutalboxvirtualization / virtual machine

১০ . এরপর যে অপশনটি আসবে আপনার ভার্চুয়াল ফাইলটি আপনি কোথায় রাখতে চান আপনি আগে থেকেই যে ফোল্ডারটি সিলেক্ট করে রেখেছেন সেখানেই থাকবে কিন্তু এবার বেসিক্যালি সাইজ নির্ধারণ করতে হবে ।আপনি যদি Fix দিয়ে থাকেন তাহলে আপনি এটলিস্ট 25GB দিবেন অথবা যদি আপনি Dynamically Allocated করে দিয়ে থাকেন সেক্ষেত্রে সমস্যা নেই তারা নিজে নিজে Space বাড়ায় নিবে

আমি এক্ষেত্রে 20 দিয়ে রাখতেছি

virtualization / virtual machine

১১. ক্রিয়েট অপশনে চাপার পর আপনি এরকম একটি উইন্ডো দেখতে পারবেন

virtualization / virtual machine

১২. এরপর উপরে থাকা সেটিং অপশনে ক্লিক করবেন

virtualization / virtual machine

১৩.  এখান থেকে আপনি এতক্ষণ যা যা সিলেট করছেন তা অবশ্য আরেকবার Overview করে নিতে পারবেন

virtualization / virtual machine

১৪. এরপর আপনি System অপশনে চাপ দিয়ে Processor ট্যাবে যাবেন

১৫.  এখান থেকে আপনি আপনার ভার্চুয়াল মেশিন এর জন্য কয়টি CPU Core বরাদ্দ করবেন সেটি নির্ধারণ করে দিবেন । এক্ষেত্রেও সতর্কবার্তা টি RAM এর মতই । লাল দাগ এর উপরে যাবেন না। আপনার মোট CPU Core এর অর্ধেকের বেশি দিবেন না।

virtualization / virtual machine

 

১৬. সব ঠিক করা হয়ে গেলে এবার আপনি স্টার্ট বাটনে চাপ দিবেন এবং এরকম একটি উইন্ডো দেখতে পারবেন 

***এখানে আপনাকে ISO ফাইল টি সিলেক্ট করে দিতে হবে। অর্থাত আপনি যে অপারেটিং সিস্টেম টি ইনস্টল করতে চান সেটির ISO ফাইল আগে সিলেক্ট করে দিতে হবে ।আপনি আপনার প্রয়োজন মত উইন্ডোজ  / লিনাক্স এর ISO ফাইল ডাউনলোড করে নির্দিষ্ট যায়গায় রেখে দিবেন এবং সেটি এখানে অ্যাড করে দিবেন ।

Kali Linux Iso

১৭. এরপর আপনি স্টার্ট বাটনে চাপ দেওয়ার পর ভার্চুয়াল মেশিন টি রান হওয়া শুরু করবে ।

 

virtualization / virtual machine

১৮. এক্ষেত্রে ভার্চুয়াল বক্স ইউজ করার ক্ষেত্রে কিছু Rule আছে যে আপনি যদি ভার্চুয়াল বক্সের ভিতরে মাউস একবার নিয়ে যান তাহলে তখন থেকে একটা মাউসটি কিন্তু ওই ভার্চুয়াল বক্স এর উইন্ডোতে থাকবে আর বাইরে বের হবেনা ।আপনাকে যদি বাইরে আসতে হয় তাহলে আপনার কি-বোর্ডের Right Control (Ctrl) বাটনটি চেপে সেখান থেকে বাইরে আসতে হবে নাহলে আপনার মাউসটি শুধু ওই Window এর ভিতর ঘোরাঘুরি করবেন

virtualization / virtual machine

*** চলুন শুরু করা যাক Kaali Linux Installation। এর জন্য স্ক্রিনশট গুলো ফলো করুন

আমি পয়েন্ট গুলো লিখে দিবো  ***

অথবা কঠিন লাগলে ভিডিও ফলো করুন  । সম্পুর্ন প্রোসেস আছে এখানে❤

 

virtualization / virtual machine

*** Graphical Install

virtualization / virtual machine

*** English

virtualization / virtual machine

*** United States

 

 

virtualization / virtual machine

***কিছুক্ষন সময় নিবে।

virtualization / virtual machine

*** আরো কিছুক্ষন

virtualization / virtual machine

*** Kali ই থাক

virtualization / virtual machine

*** ফাকা রাখতে পারেন

virtualization / virtual machine

**Username দিবেন নিজের মত করে।

****তবে মনে রাখবেন এটা। Login করার সময় এটা কাজে লাগবে। 

virtualization / virtual machine

 

*** Input Password

**** Confirm Password

virtualization / virtual machine

*** Time Zone : Central দিয়ে রাখবেন বা যেকোন একটা । পরে চেঞ্জ করে নেয়া যাবে।

virtualization / virtual machine

*** Guided – Use Entire Disk

virtualization / virtual machine

*** যেটা আছে সেটাই দিবেন । এটা আপনি অই যতটুকু Allocate করে দিছিলেন সেটাই। এর বাইরে কোন ফাইল যাবেনা

virtualization / virtual machine

*** All files in one partition

virtualization / virtual machine

*** Finish partitioning and write changes to disk

virtualization / virtual machine

*** ফাইনাল চেক এর জন্য No টা প্রি সিলেক্টেড থাকবে । Yes করে দিবেন।

virtualization / virtual machine

*** চা / কফি নিয়ে বসেন। একটু সময় লাগবে ।

virtualization / virtual machine

*** যা যা প্রি সিলেক্টেড আছে সেভাবেই Continue করে দিবেন

virtualization / virtual machine

*** GRUB Bootloader এ Yes করে দিবেন

virtualization / virtual machine

*** Enter Drive Manually বাদে আর একটি ই থাকবে। সেটি সিলেক্ট করে দিবেন।

virtualization / virtual machine

*** ইনস্টলেশন শেষ। আপনার ডিভাইস এর পার্ফরমেন্স অনুযায়ি এক কাপ বা দুই কাপ চা খাওয়ার মত সময় লাগতে পারে  এতটুকু পর্যন্ত আসতে😁

Continue চাপ দিবেন । Restart হবে । আপনার পিসি না । Virtual Box Restart হবে ।

virtualization / virtual machine

***Kaali GNU /Linux

এরপর ব্লাক স্ক্রিন এ কিছু লেখা আসবে। কিছু করার দরকার নাই। পরবর্তী স্ক্রিন আসা পর্যন্ত কিছু করার দরকার নাই।

virtualization / virtual machine

*** Username আর Password যা মনে রাখতে বলছিলাম। দিয়ে Log In করবেন।

virtualization / virtual machine

*** Kali Linux ইনস্টল ডান। এবার আপনি এর ভেতর যা ইচ্ছা করেন ।ভাইরাস ইন্সটল করেন । উড়ায় দেন। কোনো কিছুর Effect আপনার মেইন পিসি তে পড়বে না। এটা পুরোটাই Isolated ❤

virtualization / virtual machine

এখন হয়ত দেখবেন কোনোভাবেই আপনি আপনার Virtual বক্স থেকে Windows এ যেতে পারছেন না। এজন্য ১৮ নং পয়েন্ট টি আবার Quote করে দিচ্ছি

virtualization / virtual machine

” এক্ষেত্রে ভার্চুয়াল বক্স ইউজ করার ক্ষেত্রে কিছু Rule আছে যে আপনি যদি ভার্চুয়াল বক্সের ভিতরে মাউস একবার নিয়ে যান তাহলে তখন থেকে একটা মাউসটি কিন্তু ওই ভার্চুয়াল বক্স এর উইন্ডোতে থাকবে আর বাইরে বের হবেনা ।আপনাকে যদি বাইরে আসতে হয় তাহলে আপনার কি-বোর্ডের Right Control (Ctrl) বাটনটি চেপে সেখান থেকে বাইরে আসতে হবে নাহলে আপনার মাউসটি শুধু ওই Window এর ভিতর ঘোরাঘুরি করবেন “

***জানিনা ঠিক কতটুকু বুঝাইতে পারলাম বা কতটুকু আপনাদের উপকার হলো। কিন্তু বর্তমান সময়ে Virtualization টা শিখে রাখা অনেক জরুরী বলে আমি মনে করি। অনেক কিছু টেস্ট করতে পারবেন , কোনো সফটওয়্যার ইনস্টল করতে সন্ধেও হলে বা ফাইল ওপেন করতে ভাইরাস সন্ধেও হলে Virtual Machine এ তা আগে প্রয়োগ করে দেখতে পারেন।

পরবর্তী পোস্ট বা ভিডিও তে আমি Virtual Machine কে কিভাবে আরো সিকিউর করা যায় বা এটি দিয়ে আরো কি কি করা সম্ভব তা নিয়ে করার চেষ্টা করবো ইনশাআল্লাহ।

ভূল ত্রুটি ক্ষমা করবেন , আর পারলে ভূল গুলো ধরিয়ে দিবেন যাতে আমি পরবর্তীতে তা শুধরায় নিতে পারি।

Youtube এ আমি

Facebook  এ আমি

বুঝতে অসুবিধা হলে অবশ্যই আমাকে নক করবেন। সর্বোচ্চ চেষ্টা করবো হেল্প করার।

আল্লাহ হফেজ 😊

 

 

 

22 thoughts on "Kali লিনাক্স বা অন্য কোনো OS কিভাবে Windows এ Install করবেন | Virtual Machine"

  1. SagorSrkian Author says:
    Thanks for The Post. Though it is not for me Right Now.
    1. Tarek Author Post Creator says:
      জেনে রাখিয়েন। ভার্চুয়ালাইজেশন অবশ্যই কোনো না কোনো সময় কাজে লাগবে 😇
  2. MD Musabbir Kabir Ovi Author says:
    Thank you for your post bro
    1. Tarek Author Post Creator says:
      You are most welcome bro ❤️
    2. MD Musabbir Kabir Ovi Author says:
      ❣️❣️❣️
  3. xinli Contributor says:
    বেশ ভালো বললে বোধ হয় ভুল হবে………. একদম অনবদ্য লিখেছেন আপনি………😍😍
    আমার একটা প্রশ্ন ছিলো:
    Emulator, Remix Os/Phoenix Os………… এগুলো তে কি Virtual Mechine ইউজ করা হয় ?
    যদি একটু বিস্তারিত বলতেন……… 😌😌
    1. Tarek Author Post Creator says:
      আমি অনেক কে দেখছি পুরো আরেকটা বুট ড্রাইভ তৈরি করে এটার জন্য। অর্থাৎ ইনস্টলেশন এর সময় এ বুট ড্রাইভ সিলেক্ট করে ফুল পার্ফরমেন্স নেয়ার জন্য। কারন Remix Phoenix আমি গেমার দের ঈ ইনস্টল করা দেখছি বেশি। এগুলোর সবগুলোই Virtual Box এ ইনস্টল করা যাবে। কিন্তু কনফিগ ভালো না হলে বা এনাফ রেসোর্স আ্যলোকেট না করতে পারলে হয়তো পার্ফরমেন্স খারাপ দিবে। Virtual বক্স সাধারনত কোনো কিছু টেস্ট করা, নিজের ডিভাইস কে আইসোলেটেড রাখা , হ্যাকিং মেশিন হিসেবেই বেশি ইউজ করা হয়।
      Thanks for the compliment ❤️
    2. Ashraful Author says:
      Hmm. Asholei shundor
  4. TrickBD Support Moderator says:
    Good one.
    Keep it up.
    1. Tarek Author Post Creator says:
      Thanks for the support ❤️
  5. iT LeArNeR Contributor says:
    Android os ba rom use kora jai ki virtual box e?
    1. Prince🔰 🇧🇩 Contributor says:
      যাবে,
      আমি ব্যবহার করি Android OS VMএ
  6. Awesome Posr. vai er porer post e windows 10 e Android install niye koriyen. ami emulator use koreci , kintu lag kore.

    Konovabe ki Amar Laptop Dual Boot kora zabe? zeno Android and Windows duitai use kora zay? Laptop Model: Dell 3576
    ram: 4gb hdd: 1tb.

    1. Tarek Author Post Creator says:
      Dual Boot to kora jabe vai..Emulator er moddhe amar better laage Gameloop. Asole Android k virtual box a install deya jay..but game khelar moto effective bole mone hoy na.
    2. vai, ami prime os install dici. dual boot e. smoothly cole. kintu game khelte gele majhe moddhe ad ase.
  7. Rakib Author says:
    এক কথায় চমৎকার
    1. Tarek Author Post Creator says:
      Thanks a lot vai ❤️
    2. Rakib Author says:
      Pc nai . Next month nibo inshallh
  8. Xein Ahmed Author says:
    Kbe kinbo windows🥹
  9. Tarek Author Post Creator says:
    😇😇😇
  10. Ashraful Author says:
    Vai eto likhte to onek shomoi lagche mone hoi. Keep Posting. Nice
  11. Nishat Contributor says:
    pendrive sd card cara dual boot e kivabe install korbo?

Leave a Reply