আসসালামু আলাইকুম

(এই পোস্টটি কিছুটা বড় হতে যাচ্ছে পোস্ট পড়তে যদি কারো অধৈর্য্য লাগে পোস্টের শেষে ভিডিও দেয়া আছে দেখে নিতে পারেন)

আমরা যারা অনলাইনে কাজ করে থাকি তাদের অনেকেই আমার মনে হয় ইউটিউবার হবার স্বপ্ন দেখেন। আমারও ইচ্ছা আছে একজন ইউটিউবার হবার। অনলাইনে নিজের একটা পজিশন তৈরি করার।

তবে ইউটিউবের এত রুলস এর সম্মুখিন হয়ে অনেকেই ইউটিউব মাঝ পথে ছেড়ে দেন।

১২ মাসে ইউটিউবের ১০০০ সাবস্ক্রাইবার আর ৪০০০ ঘন্টা ওয়াচ টাইম করতে গিয়ে অনেকেই অধৈর্য্য হয়ে পড়েন। ভালো মানের ভিডিও তৈরি করেও আশা অনুরুপ সাবস্ক্রাইবার ও ভিউস পান না।

আপনাদের কাছে একটি প্রশ্ন ইউটিউবে ভিডিও কনটেন্ট, থাম্বনেইল আর ট্যাগ সঠিক ভাবে করাই কি যথেষ্ট।

আমি বলব, না! কারন আপনি যদি আপনার ভিডিও বা চ্যানেল প্রচার না করেন সেক্ষেত্রে আপনি তেমন ভালো কোন রেসপন্স পাবেন না। “কথায় আছে প্রচারেই প্রসার”

এখন আসি একজন নতুন ইউটিউবার ইউটিউবিং করার প্রাথমিক পর্যায়ে যেই ভুল গুলো করে থাকেন।

সেটি হলো Person 2 Person অর্থাৎ ব্যক্তির সাথে Sub 4 Sub এবং ওয়াচ টাইম শেয়ার করেন এমনকি বিভিন্ন থার্ড পার্টি Apps ও Websites ব্যবহার করে থাকেন।

যা ইউটিউব সহজেই ধরতে পারে এবং আপনার সাবস্ক্রাইবার ও ভিওস স্পেম হবার ফলে আপনার চ্যানেল র‌্যাঙ্ক কমতে থাকে।
ব্যাপারটি আপনাদের সাথে আরেকটু পরিষ্কার করা যাক।

ধরুন,

আপনি আপনার চ্যানেলের লিংক বা ভিডিও লিংক সাবসক্রাইব ও ওয়াচ টাইমের জন্য কোন নির্দিষ্ট ব্যক্তির সাথে শেয়ার করলেন।

সেই ব্যক্তি সাব করে রেখে দিল এক্ষেত্রে ইউটিউব বুঝতে পারে আপনার চ্যানেলে এই ভিজিটর বা সাবস্ক্রাইবার টি স্পেম করেছে।

আর তাছাড়া আপনার এই সাবস্ক্রাইবার যদি আপনার চ্যানেলের কনটেন্ট এর উপর আগ্রহি না হয় তাহলে পরবর্তিতে আপনার ভিডিও দেখবেনা। সেক্ষেত্রে ইউটিউব অটোমেটিক আপনার সাবস্ক্রাইবার টি সরিয়ে ফেলবে।

ইউটিউবের এটি বুঝার কারন হচ্ছে রোবোটিক্স অ্যালগোরিদম প্রোগ্রামের ব্যবহার।

কি বিশ্বাস হচ্ছে না?

আচ্ছা দেখুন তো আপনি যখন কোন ভিডিও মিউজিক বা অন্য কারো কনটেন্ট সহকারে আপলোড করেন ঠিক সেই সময়ই ধরে ফেলে আপনি কপি করেছেন।

এখানে ইউটিউবের পর্যবেক্ষকরা নিজ হাতে পর্যবেক্ষন করে না বরং অটোমেটিক ডিটেক্ট অ্যালগোরিদম প্রোগামের মাধ্যমে করা হয়।

আবার কখনো যদি আপনার চ্যানেল মনিটাইজেশন অন হয়েও যায় আপনার ইনকাম অবশ্যই কম হবে কারন আপনার অধিকাংশ সাবস্ক্রাইবার আপনার চ্যানেলের প্রতি আগ্রহি নন।

তাই sub 4 sub এবং person to person শেয়ার বন্ধ করুন। এতে আপনার চ্যানেল র‌্যাঙ্ক তো বাড়বেই না বরং কমতে থাকবে।

আচ্ছা কখনো লক্ষ্য করেছেন কি? যখন আপনি নতুন ইউটিউবে প্রবেশ করেন তখন আপনার জন্য ইউটিউব নিজ হতে স্ক্রিনে কিছু ভিডিও সাজেস্ট করে থাকে।

অথচ আপনি সেই ভিডিও ওয়াচ বা চ্যানেল সাবস্ক্রাইব কখনই করেন নি। তবে ইউটিউব এমন টি কেনো করে থাকে?

এটির কারন হচ্ছে, সেই ভিডিও গুলো অনেক মানুষ দেখেছে সেই সাথে ইউটিউবে র‌্যাঙ্ক করেছে।

আপনাকেও ঠিক একই কাজ করতে হবে, চ্যানেল ও ভিডিও র‌্যাঙ্ক নিয়ে কাজ কর‍তে হবে।

তাহলে ইউটিউব নিজ হতে আপনার ভিডিও অন্যদের সাজেস্ট করবে আর তখনই সাব ও ওয়াচ টাইম বাড়তে থাকবে।

তাই সাবস্ক্রাইবার ও ওয়াচ টাইম এর পিছনে না পরে ভিডিও ও চ্যানেল র‌্যাঙ্ক নিয়ে কাজ করুন।

তো এখন আলোচনায় আসি কিভাবে ইউওটিউবে আপনার ভিডিও ও চ্যানেল র‌্যাঙ্ক নিয়ে কাজ করবেন। এর জন্য আপনার ইউটিউব মার্কেটিং এর উপর জ্ঞান থাকতে হবে।

তো প্রথমত অবশ্যই আপনাকে ভিডিওর কনটেন্ট, ট্যাগ, থাম্বনেইল এর উপর ধ্যান দিতে হবে।

যদি আপনি মনে করেন আপনার ভিডিও মানসম্মত তবুও ভিউ হচ্ছে না সেক্ষেত্রে ইউটিউব মার্কেটিং করতে পারেন।

ইউটিউব মার্কেটিং করতে হলে টাকা খরচ করতে হয়। আপনি আপনার ভিডিও এড এর মাধ্যমে প্রচার করতে পারেন বা টাকা দিয়ে বিভিন্ন মাইক্রো ফ্রিল্যান্সিং সাইটে ইউটিউবের প্রমোশন করতে পারেন।

তবে আমি একটি পদ্ধতি আবিষ্কার করেছি সেটি হলো “গ্রুপ মার্কেটিং”। যাতে কোন টাকা খরচ করা লাগবেনা।

গ্রুপ মার্কেটিং হলো একদল মিলে একে অপরের ভিডিও র‌্যাঙ্ক বাড়ানোর জন্য কাজ করা।

গ্রুপ মার্কেটিং এর জন্য অবশ্যই আপনাকে একটি নিয়ম অনুসরন কর‍তে হবে।

আমরা সাধারনত যেটি করে থাকি সেটি হলো ভিডিও ইউ আর এল শেয়ার করে ওয়াচ টাইম নিয়ে থাকি, এই ভাবে আপনার ভিডিও র‌্যাঙ্ক কখনোই বাড়বে না।

আচ্ছা দেখুন তো আপনার ভিডিও যেই টপিকের উপর তৈরি করেছেন সেই ট্যাগ গুলো দিয়ে সার্চ করলে কি আপনার ভিডিও প্রথম ১০ টি ভিডিওর মাঝে কি শো করে?

যদি না করে থাকে তাহলে আপনাকে যা যা করতে হবে-

১. আপনি আপনার ভিডিওর মেইন ১০ টি ট্যাগ কপি করুন।

২. সেগুলো ১০ জনের সাথে শেয়ার করুন।

৩. আপনার ভিডিওর একটি থাম্বনেইল শেয়ার করুন।

৪. এবং আপনার চ্যানেলের নাম শেয়ার করুন।

যখন আপনার সেই নির্দিষ্ট ব্যক্তিটি আপনার দেয়া তথ্য অনুযায়ি আপনার ভিডিও ইউটিউবে খুজে বের করে দেখবে তখনই আপনার ভিডিও র‌্যাঙ্ক বাড়তে থাকবে।

আপনার ভিডিও নিজ হতে ইউটিউব অন্যদের সাজেস্ট করবে।

সেই সাথে কখনো কোন ব্যক্তি যদি ইউটিউবে সেই টপিকের ভিডিও সার্চ করে আপনার ভিডিও প্রথম ১০ টি ভিডিওর মাঝে থাকবে।

পরবর্তি পোস্টে গ্রুপ মার্কেটিং ও ১২ মাসে ১০০০ সাব ও ৪০০০ ঘন্টা আসলে কিভাবে হিসেব করা হয় তা নিয়ে আলোচনা করব।

যদি না বুঝতে পারেন ভিডিও টি দেখতে পারেন ( সম্পূর্ন ভিডিও টি দেখার জন্য আপনার ফোন টি Rotate করুন)

টেলিগ্রামঃ Join Now
আমার চ্যানেলটি ঘুরে আসার অনুরোধ রইলঃ Visit My Channel
ধন্যবাদ

4 thoughts on "নতুন ইউটিউবাররা যেই কাজ গুলো ভুল করেন। সঠিক নিয়মে ইউটিউব মার্কেটিং করে ভিডিও র‌্যাঙ্ক করুন।[100% working]"

  1. Md. Siyam Hossen Siyam Hossain Contributor says:
    র্যাংক করানোর উপায় নিয়ে পোস্ট করবেন একটা।
  2. Md Alalhossain Md Alalhossain Contributor says:
    good vai next part post koren…..
  3. JOY MALAKAR 2018 Contributor says:
    137 views , 131 subscribers

    vai apnar video ta check korlam channel er video er seo 83%

    Thank You

Leave a Reply