নোট বলতে আমরা সাধারণত বুঝে থাকি একটি বা অনেক বিষয় লিখিতভাবে সংরক্ষন করা| সেটা হতে পারে বই বা ক্লাসের কোনো পড়া, আবার হতে পারে দরকারি মোবাইল নম্বর,ঠিকানা, বাজার করার লিস্ট অথবা অন্য যেকোনো দরকারি তথ্য|
যুগ যতই সামনের দিকে এগোচ্ছে, মানুষ ততই তথ্য প্রযুক্তির আবহে জড়িয়ে যাচ্ছে| কেননা তথ্য প্রযুক্তি জীবনকে আরো প্রডাক্টিভ করছে, বিশ্বকে একটি গ্রামে রুপান্তরিত করেছে| তো, নোট আ্যপও এই‌ তথ্য প্রযুক্তিরই একটি অবিচ্ছেদ্দ‌ অংশ! কেননা এটি মানুষকে তার প্রয়োজনীয় তথ্য সংরক্ষনের সুযোগ দিয়ে প্রোডাক্টিভিটি বাড়িয়েছে| এই ডিজিটাল নোট আ্যপ‌গুলোতে শুধু লেখাই নয়, আরো সংরক্ষন করা‌ হয় অডিও, ভিডিও, ছবি সহ বিভিন্ন ডকুমেন্ট! এসব নোট লিখতে কাগজ, কলম লাগে‌না| থাকেনা নোট হারিয়ে যাওয়ার ভয়| বহন করা লাগেনা সারি সারি‌‌ কাগজ| অফলাইন বা অনলাইন যেখানেরই বলুন, লাখো তথ্য সংরক্ষন করতে শুধু একটি নোট আ্যপই যথেষ্ট| নিচের সব নোট আ্যপগুলোই‌ ক্লাউড স্টোরেজ,‌ মোবাইল, কম্পিউটারে সাপোর্ট করে| তাই পৃথীবির যেকোনো‌ ডিভাইসেই আপনার সংরক্ষন করা নোট এক্সেস করতে পারবেন শুধু একাউন্টে লগিন করতে পারলেই|

তো অনেক কথা বললাম, এবার দেখে নিন চমৎকার কিছু ডিজিটাল নোট করার আ্যপ| আর যেটা আপনার কাজে আসবে‌ বলে‌ মনে করেন, সেটা ব্যবহার করা শুরু করে দিন।

1/Google Keep – গুগল কিপ

Available On: Play Store, App Store, Chrome Web Store and Google Kepp Website

গুগল কিপ হলো গুগলের অফিসিয়াল একটি নোট আ্যপ| এই‌ আ্যপটিতে খুব সহজেই যেকেউ‌ লিখতে পারবে বা লেখা কপি পেষ্ট করতে পারবে| এই আ্যপটির ইন্টারফেস প্রায় স্টিকি নোট আ্যপ এর সাথে মিলে যায়| এই‌ গুগল কিপ আ্যপটি পারসনাল ও ব্যাবসায়িক ক্ষেত্রে ব্যাবহারের জন্য খুবই ‌উপযুক্ত ফ্রী একটি নোট বুক আ্যপ|

গুগল কিপের সুবিধাগুলো:

  • লিখার সাথে ছবি এবং ভয়েস রেকর্ড এড করা যায়
  • নোটের সাথে ড্রয়িং তৈরি করে এড করা যায়|
  • ইমেইলের মাধ্যমে সম্পূর্ণ নোট সেন্ড করা যায়‌ সহজে|
  • সব নোট গুগলের একাউন্টে সেভ থাকে, যা যেকোনো ডিভাইসে যকোনো স্থান হতে এক্সেস করা যাবে|
  • সব লেখায় Tag এড করতে পারবেন, যার মাধ্যমে সেভ করা একাধিক লিখা সহজেই খুঁজে পাওয়া যাবে|
  • নোটগুলোকে কালার কোডিং করে বিভক্ত করা যায়|
  • রিমাইন্ডার সেট করা যায় সময় এবং লোকেশনের উপর ভিত্তি করে|
  • ফটোর ভিতর থাকা টেক্সট বের করা যায়|
  • লিখা ও ছবিসহ পুরোটা নোট গুগল ডকস এ সেভ করা যায়|

এটি ব্যবহার করলেই বুঝতে পারবেন ডিজিটাল মেথডে নোট রাখা কত সহজ| যেহতু এনড্রয়েড, কম্পিউটার,ব্রাউজারে, ক্রোম এক্সটেনশন ও এপল স্টোরে এই‌ এপ পাওয়া যাবে তাই যেকোনো ডিভাইসেই আগের করা নোট গুলো ‌পেয়ে যাবেন শুধুমাত্র‌ সেই‌ গুগল একাউন্টে লগিন করলে, যে একাউন্টে আগের নোটগুলো তৈরি করা হয়েছে| গুগল কিপ আ্যপ যেহেতু গুগল ড্রাইভের ১৫ জিবি ক্লাউড স্টোরেজ ব্যবহার করবে, তাই এই স্টোরেজ পূর্ণ হওয়ার আগ পর্যোন্ত বিনা খরচে নোট করে যেতে পারবেন| সর্বোপরি এই নোট আ্যপটি খুবই ভালো লেগেছে |

2/Evernote – এভারনোট

Available On: Play Store, App Store, Chrome Web Store and Evernote Website

এভারনোট হলো লিখা, ছবি, ভিডিও এবং অডিও রেকর্ডিং নোট করার একটি জনপ্রিয় আ্যপ‌| সমস্ত ডাটা ক্লাউড স্টোরেজে সেভ রাখা হয়| যেগুলো খুব সহজেই অন্যান্য সব ডিভাইস এ পাওয়া যাবে শুধু একাউন্টে লগিন করলেই| এই আ্যপটি ব্যবহার করা খুবই সোজা| এটির ব্যবহার বুঝতে খুব বেশি সময়ও লাগবে না| কেননা, জনপ্রিয়তার কারনে এটির জানা অজানা অনেক টিউটোরিয়াল ইন্টারনেটে পাওয়া যাবে|
আ্যপটির অনেকগুলো‌ সুবিধার জন্যই এটি অনেক জনপ্রিয় হয়েছে,

 

এভারনোট এর কিছু সুবিধা হলো:

 

  • নোট লিখার সাথে ছবি, ভিডিও বা অডিও ফাইল সংযুক্ত করা যায়|
  • নোট লিংকের মাধ্যমে শেয়ার করার ‌সুবিধা|
  • রিমাইন্ডার এড করা যায় সময়ের উপর ভিত্তি করে|
  • লেখাকে মার্কডাউন করা যায়
  • কম্পিউটারে এভারনোট ওয়েব ক্লিপার সংযুক্ত করলে যেকোনো ওয়েবসাইটের ক্রিনশট, বুকমার্ক, আর্টিকেল বা ফুল পেইজ সেভ করা যায়|
  • নোটগুলো ট্যাগ করে রাখা যায়|
  • ফ্রি ভারসনে, প্রতিমাসে ৬০ এমবি স্টোরেজ পাবেন
  • ডার্ক মোড এ ব্যবহার করা যাবে|

তাছাড়া এভারনোট আ্যপটিতে আরো‌ অনেক কাজের সুবিধা‌ রয়েছে,‌যা আপনাকে অনলাইন বা অফলাইনে আরো‌ প্রোডাক্টিভ হতে কাজে লাগবে| যারা অনলাইনে বিভিন্ন জিনিস ঘাটাঘাটি করে‌ এবং সেভ রাখতে‌ চায়, তাদের জন্য এই আ্যপ একদম পারফেক্ট| এর ক্রোম এক্সটেনশন খুবই কাজের একটি টুল| এক্সটেনশনটির সাহায্যে যেকোনো ওয়েব পেইজের কাস্টম স্ক্রীনশট সহজেই পাওয়া যাবে| তা ও আবার স্ক্রীনশট এডিট করার সুবিধাসহ| এর কারনে ব্লগ লেখকরা এই নোট আ্যপটি পছন্দের শীর্ষে রাখে|

৩/One Note – ওয়ান নোট

Available On: Play Store, App Store, Mirosoft Store, Chrome Web Store

ওয়ান নোট হলো মাইক্রোসফটের অফিসিয়াল নোট করার এপ| এটিতে লিখা, ছবি, অডিও, ভিডিও, ফাইল, হেন্ডরাইটিং খুব সহজেই‌‌ সংরক্ষন করা যায়| এটিতে মাইক্রোসফট ওয়ার্ডের‌‌ মতো অনেক কিছু এডিট করার সুবিধা রয়েছে| এটি পারসনাল ও
‌ ব্যবসায়িক‌ কাজে ব্যবহারের জন্য যথেষ্ট সুবিধা সম্পন্ন| উইন্ডোজ কম্পিউটারে‌ এই‌ আ্যপটি বিল্টইন এপ‌ হিসেবেই‌ থাকে|

ওয়ান নোট আ্যপের সুবিধা সমূহ:

  • লেখা, ছবি, ভিডিও, অডিও এবং সব ধরনের ফাইল নোটে সংযুক্ত করার‌ সুবিধা|
  • সময় ভিত্তিক রিমাইন্ডার সেট করার সুবিধা|
  • ট্যাগ সংযুক্ত‌ করার সুবিধা|
  • নোটে পাসওয়ার্ড প্রটেকশন এড করা যায়|
  • ডার্ক‌ মোড এর সুবিধা|
  • ওয়ার্ড, এক্সেল, পাওয়ার পয়েন্ট ফাইলের প্রিন্টআউট দেখার সুবিধা|
  • নোটের লিখা যেকোনো ভাষায় ট্রান্সলেট করার সুবিধা|
  • ওয়ান নোটের স্টোরেজ ৫ জিবি|
  • নোটের মধ্যে ড্রয়িং করার সুবিধা|
  • হ্যান্ডরাইটিং এ গনিত লিখে সলভ করা যায়|

এসব সুবিধা বা ফিচার ছাড়াও আছে আরো অনেক ধরনের সুবিধা যা নোট করার‌ মজাই বাড়িয়ে দেবে| যেহেতু এই‌ আ্যপটি সব ডিভাইসেই‌ ব্যবহার করা যাবে, তাই সব ডাটাই যেকোনো ডিভাইসে এক্সেস করতে পারবেন| সাধারন ইউজার থেকে‌‌ শুরু করে‌ একেবারে‌ ওয়েব ডেভেলপমেন্টর পরযোন্ত সবাই‌ এই‌ ওয়ান নোট আ্যপ সহজেই ব্যবহার করতে পারবে|

4/Notion – নোশন

Available On: Play Store, App Store, Mac, Windows, Chrome Web Store

নোশন এমন একটি আ্যপ, যেটায় শুধু নোটই নয়, গুগল ডকস এর প্রায় সব কাজই করতে পারবেন| এর সবথেকে ভালো ফিচারটি হলো অফিসিয়াল ও পারসনাল কাজ ম্যনেজ করার জন্য ট্যমপ্লেটগুলো| এটায় নোট লিখলে তা লিংক শেয়ার করে অন্যজন লিংক ব্রাউজার করে দেখতে পারবে|

নোশন আ্যপ এর সুবিধাগুলো:

  • মার্কডাউন পদ্ধতিতে লিখা যায়|
  • ডাটাবেজ এড করা যাবে|
  • যেকোনো মিডিয়া ফাইল ও কোড এড করা যায়|
  • পিডিএফ, ডক, টুইট, গিটহাব গিস্ট, গুগল ম্যাপ, ভিডিও ইত্যাদি এমবেড করা যায়|
  • নোটের মধ্যে টেবল, লিস্ট, ক্যালেন্ডার এড করার সুবিধা|
  • নোট করার জন্য বিভিন্ন টেমপ্লেট বাছাই করার সুবিধা|
  • নোট পিডিএফ, এইচটিএমএল ও মার্কডাউন ফরমেটে এক্সপোর্ট করা যায় সহজেই|
  • ৩ টি টেক্সট ফরমেট|
  • পেইজ লক করার সুবিধা|
  • ডার্ক মোড ব্যবহারের সুবিধা|

আসলে এসব সুবিধা পেলে আমার মনে হয়না অন্য কোনো নোট এপ ব্যবহার করার দরকার আছে| তাছাড়া আরো কিছু ফিচার আপনি দেখতে পাবেন, যখন আ্যপটি ইউজ করবেন| ফাইল আপলোডে লিমিটেশন থাকলেও আনলিমিটেড নোট করতে পারবেন ফ্রি ভারশনে|
আশা করি এটি ব্যবহার করে আপনাদের ভালো লাগবে|

5/Zoho Notebook – জোহো নোটবুক

Available On: Play Store, Apple Store, Microsoft Store, Chrome Web Store

জোহো নোটবুক হলো Zoho কোম্পানীর একটি সম্পূর্ণ ফ্রী এবং সবথেকে সুন্দর নোট আ্যপ| জোহো নোটবুকের সুবিধা কয়েকটি দিক থেকে উপরের সবগুলো নোট আ্যপকে ছাড়িয়ে গেছে| যার কারনে জোহো নোটবুক আ্যপটি খুবই জনপ্রিয়|

জোহো নোটবুক এর সুবিধাগুলো:

  • লিখা, ফটো, অডিও, ভিডিও সহ সবধরনের ফাইল সংযুক্ত করে নোট তৈরি|
  • নোটের মধ্যে টেবল তৈরি করে এডিট|
  • নোটের ভেতর ড্রয়িং তৈরি করে এড|
  • সব ডাটা ক্লাউড স্টোরেজে সেভ থাকবে|
  • আনলিমিটেড ফাইল আপলোড করা‌ যাবে ফ্রীতে|
  • নোটে ট্যাগ এডের সুবিধা|
  • সময় ভিত্তিক রিমাইন্ডার সেট করা|
  • ক্রোম এক্সটেনশনে যেকোনো ওয়েবপেইজের ছবিসমূহ নোট|
  • নোটসমূহ পিডিএফ এবং পাসওয়ার্ড প্রটেক্টেড জিপ ফাইলে কনভার্ট করে‌ শেয়ার|
  • একটি নোটের ভেতর আরেকটি নোট পেইজের লিংক এড করা|

যারা অনলাইনে অনেক ছবি, ভিডিও ও ফাইল নোট হিসেবে রাখতে চায়,একমাত্র আনলিমিটেড স্টোরেজ ও ওয়েব ক্লপার এর সুবিধার কারনে এটি ব্যবহার করতে পারে| জোহো নোটবুক আ্যপের এসব সুবিধা পেলে, আমার মনে হয় না কেউ উপরের নোট আ্যপগুলো ব্যবহার করতে চাইবে| শুধু পারসনাল ইউজের জন্যই নয়, প্রফেশনাল কাজেও এটি ইউজ করা যাবে খুবই সহজে|

6/ColorNote Notepad – কালারনোট 

Available On: Play Store, Microsoft App Store

কালার নোট হলো সবথেকে সোজা ও আকর্ষনীয় একটি নোট রাখার আ্যপ| এটি ব্যবহার করা খুবই সোজা সবধরনের মানুষের জন্য| এটি খুববেশি সুবিধা সম্পন্ন না হলেও এই ছোটো নোট আ্যপটি লেখালেখি বা দৈনন্দিন জীবনের প্রয়োজনীয় নোট লিখার জন্য খুবই উপযুক্ত| গুগল কিপ আ্যপের সাথে এর মূল পার্থক্য হলো, এতে ফটো, ড্রয়িং এবং অডিও নোট করা যায় না| কালারনোট নোটপ্যাড আ্যপটি শুধু লেখালেখি ও চেকলিষ্ট তৈরিতে ব্যবহার করা যায়|

কালারনোট নোটপ্যাডের সুবিধাসমূহ:

  • টেক্সট এবং চেকলিষ্ট তৈরি|
  • কালর কোডিং এর মাধ্যমে সাজানো|
  • হোম স্ক্রীনে স্টিকি নোট হিসেবে এড করা|
  • সময় ভিত্তিক রিমাইন্ডার সেট|
  • শিডিওল এড করে রিমাইন্ডার সেট|
  • নোট পাসওয়ার্ড লক|
  • নোট শেয়ার করা এসএমএস/এমএমএস, ইমেইল, মেসেনজার ইত্যাদি দ্বারা|
  • নোট অনলাইন ক্লাউড স্টোরেজে‌‌ সেভ থাকবে|

তাছাড়া আরো কয়েকটি সুবিধা রয়েছে যা ব্যবহার করলে বুঝতে পারবেন| আর এই আ্যপটিতে স্টোরেজ লিমিট নেই| এর সার্চ অপশন খুবই দ্রুত কাজ করে| তাই পারসনালি ব্যবহার করা খুবই সুবিধাজনক|

3 thoughts on "টপ ৬ টি প্রফেশনাল মানের নোট আ্যপ || যা বাড়িয়ে‌ দিবে আপনার কাজের প্রোডক্টিভিটি || Top 6 Note Taking Free Apps"

  1. MD Shakib Hasan MD Shakib Hasan Author says:
    Nice


  2. Prince Prince Contributor says:
    Good Post
  3. Akondo Akondo Contributor says:
    Keep my note এবং FolderNote আপনার দেওয়াগুলো থেকে অনেক ভালো, তবে ColorNote ও ভালো

Leave a Reply