আসসালামুআলাইকুম। আশা করি সবাই ভালো আছেন। আমিও আল্লাহর রহমতে ভালো আছি। আজ আরেকটি নতুন আর্টিকেল নিয়ে আপনাদের সামনে হাজির হলাম। আর্টিকেলের টপিক দেখে হয়তো আপনারা বুঝে গেছেন আজকে কোন বিষয় নিয়ে আলোচনা করতে চলেছি। শুরুতে বলে রখি এ ধরণের আর্টিকেল সাধারণত অনেক বড় হয়। তাই অনুরূপভাবে আমার আর্টিকেলটাও একটু বড় হতে পারে। তাই যারা ধর্য সহকারে আমার এই আর্টিকেলটা পড়তে পারবে তাদের জন্য আজকে আমার এই আর্টিকেল। আর যারা ধর্য সহকারে পড়তে পারবে না তাদেকে এখনই বলে দিচ্ছি বন্ধু তুমি চলে যেতে পারো। যারা আমার এই আর্টিকেলটা ধর্য সহকারে পড়বে তাদের কিছুটা হলেও উপকারে আসবে। আর একটা কথা না বললে নয় যদি আর্টিকেলে কোন ভুল পান তাহলে ক্ষমার দৃষ্টিতে দেখবেন। অনেক কথা বলা হয়ে গেছে। আর কথা না বাড়িয়ে চলুন মূল বিষয় শুরু করা যাক।

তুমি আজকে এই আর্টিকেলটাতে ক্ক্লিক করেছো তার থেকে এটা পরিষ্কার যে তুমি পড়াশোনাকে ভালোবাসতে চাও। বইকে নিজের বন্ধু বানাতে চাও এবং পরীক্ষায় টপ করতে চাও। প্রথমেই তোমাকে জানায় Congratulations . তুমি Already তোমার ওই বন্ধুগুলোর থেকে এগিয়ে গেছো যারা এখনও Realize ই করতে পরেনি যে পড়াশোনা টা কতটা গুরুত্বপূর্ণ।

আজকে আমি তোমাদের ৩ টি এমন কাজের কথা বলবো যা টপার শিক্ষার্থীরা সারা বছর করে। আর পরীক্ষার আগেতো অবশ্যই করে। কিন্তু কখনও অন্যের সাথে শেয়ার করে না। আর্টিকেলটা খুব মন দিয়ে শেষ অব্দি পড়ো। কারণ আর্টিকেলটা শেষ হতে হতে তোমার মধ্যে ক্লাসে টপার হওয়ার ইচ্ছা অনেকগুন বেড়ে যেতে চলেছে। এবং তোমরা জানতে চলেছ যে টপাররা খুব আলাদা কিছু করে না। তারা তুমি আমি যেটা করি সেটাই একটু আলাদা ভাবে করে।

১. কাকের মতো কঠোর পরিশ্রম করা শিখতে হবে।

কথাটা শুনে একটু হাসি পেলেও এটাই সত্য। আমরা সবাই ছোট বেলায় যে কাক আর কলসির গল্পটা শুনেছিলাম সেটা মনে করো। সেখনে কাক পানি খাওয়ার জন্য কলসিতে ততক্ষন পাথর ফেলে গিয়েছিলো যতক্ষন না কলসির পানি তার নাগালে উঠে আসে। আমাদেরও ততক্ষন ধর্য সহকারে হার্ডওয়ার্ক করে যেতে হবে যতক্ষন না একটা বিষয় আমরা ভালোভাবে বুঝতে পারি। বেশি পড়তে গেলে যখন কষ্ট হবে, যখন মনে হবে যে আর পারছি না তখন তোমার স্বপ্নের কথা চিন্তা করো। নিজেকে নিজে প্রশ্ন করো যে তোমাত স্বপ্ন পূরণ করার জন্য তোমার কছে কি আর কোন অপশন আছে??? বড় স্বপ্নের কথা বারবার তোমাকে কঠোর পরিশ্রম করতে Motivate করবে। না পড়ে আজ পর্যন্ত কেউ টপ করতে পরেনি। টপাররা Extraordinary Talented হয় না। টপাররা Extraordinary Hard-Working হয়। কিন্তু তুমি তোমার স্কুলের First boy/First girl কে জিজ্ঞাসা করো, সে বলবে যে সে তোমার থেকে কম পড়ে। কিন্তু সত্য কথা হলো তারা… তোমার থেকে বেশিই পড়ে, তাই তার টপার।

২. বগ এর মতো Focus এবং Concentrate করা শিখতে হবে।

কনো জলাশয়ের ধারে দেখতে পাবে একটা বগ Full Focus এবং Concentrate এর সাথে পানির দিকে তাকিয়ে থাকে। পানির মধ্যে তার আশপাশ দিয়ে ছোট ছোট অনেক মাছ ঘোরাফেরা করে। কিন্তু সে একাধারে অপেক্ষা করে থাকে ততক্ষন যতক্ষন না তার নাগালে বড় কোন মাছ আসছে। সে চাইলে নিজের Focus ভেঙ্গে ছোট মাছ শিকার করতে পারে। কিন্তু সে তা করে না কারণ তার উদ্দেশ্য বড়। সে জানে সে যদি বড় শিকার করতে চাই তাহলে তাকে ছোট শিকেরকে Ignore করতে হবে। তাদের দ্বারা বিরক্ত হলে চলবে না। ঠিক এরকমই আমরা যখন পড়তে বসি বিভিন্ন ছোট ছোট লোভনীয় আমাদের বিরক্ত করতে আসে। সোশাল মিডিয়া, গেমস , আড্ডা ,গল্প, টিভি ইত্যাদি আরো অনেক কিছু। কিন্তু আমরা যদি বড় কিছু অর্জন করতে চাই, টপার হতে চাই তাহলে এই ছোট খাটো লোভনীয় জিনিসকে আমাদের Ignore করতে হবে। যেতে দিতে হবে এবং বগের মতো Full Focus এবং Concentrate আমাদের পড়াশোনার উপর ততক্ষন রাখতে হবে যতক্ষন না আমরা আমদের লক্ষ অব্দি পৌছাতে পারছি এবং টপাররা এটাই করে।

খুব গুরুত্বপূর্ণ
৩. Comfort Zone এর বাইরে বেরোনো শিখতে হবে।

অল্পতেই খুশি হলে চলবে না। টপার দের মধ্যে একটা জিনিস কমন দেখা যায় যে তারা অল্পতে কখনও খুশি হয় না। তাই তারা কখনো Comfort Zone এর বাধনে বাধা থাকতে চাই না। তারা প্রতিনিয়ত নিজেকে Upgrade করার চেষ্টা করে। তারা যদি কোন বিষয় বুঝতে না পারে তাহলে তারা সেটাকে Skip করে যায় না। বরং mind এর comfort gone কে ত্যাগ করে তারা সেটসেটাকে বোঝার চেষ্টায় লেগে পড়ে। আমরা অনেকেই গনিত বা অন্য কোন Particular subject কে ভয় পাই। আর সেটাকে skip করে যাওয়ার চেষ্টা করি। কিন্তু একজন টপার জানে skip করে কোন লাভ নেই। এই ভয়কে Face করে তাকে solve করে সেই subject কে নিজের বন্ধু বানিয়ে নিতে হবে। টপাররা পরীক্ষার আগে রিভিশনের উপর অনেকটা জোর দেয়। আর আমরা সেই most important রিভিশন জিনিসটাকেই এড়িয়ে যায়।

তো বন্ধুরা আজ এ পর্যন্তই ।তোমাদের সবাইকে অনেক ধন্যবাদ শেষ পর্যন্ত পড়ার জন্য। আর উপরের নিয়ম গুলো মেনে চললে তুমিও হতে পারো একজন টপার। আর্টিকেলটি ভালো লাগলে একটা লাইক দাও। একটি ভালো কমেন্ট করে আমাদের এরকম আরো আর্টিকেল বানাতে উৎসাহিত করো। ধন্যবাদ।

3 thoughts on "জেনে Topper রা কি করে। এই গুন গুলো যদি আপনার মধ্যে থাকে তাহলে আপনিও হতে পারেন একজন Topper."

  1. Moderator Contributor says:
    Wow great 🙂
  2. Sakibur Rahman Contributor says:
    Ota gone nah zone hobe 🙂
    1. 242admin Author Post Creator says:
      ধন্যবাদ ভুলটা ধরিয়ে দেওয়ার জন্য।

Leave a Reply