আসসালামু আলাইকুম ওয়া রহমাতুল্লাহ ওয়া বারাকাতুহু,

কেমন আছেন সবাই? জিগেস করলেও কে কেমন আছেন জবাব মেলে না!

যাইহোক, কথাই ফিরে আসি গত পোস্ট এ অসিডি এর লক্ষণ সংক্রান্ত + পরিচিতিমুলক ছিল।
এই পোস্টটিতে ট্রিটমেন্ট এর ব্যাপারে লিখছি ইং শা আল্লাহ।পোস্টটি একটু বড় হয়ে যেতে পারে তবে সমস্যাটি কম বড় নয়।

হতাশার কিছু নাই প্রিয় ভাইয়েরা শুধু ধৈর্য ধরতে হবে কিছু নিয়ম ফলো করে।

আপনার মনে হতে পারে আল্লাহ আপনাকে সাহায্য করছেন না / করবেন না- ধারনা ভুল:- কুরআন পড়ুন। উত্তর টি পেয়ে যাবেন।আল্লাহ সব সমাধান দিয়েই দিয়েছেন শুধু খুজতে হবে ইং শা আল্লাহ।

আল্লাহর উপর খাটিভাবে ভরসা করুন।অন্তরে যা কিছু আশুক না কেন বাদ দিন।আপনি ঐ গুলো ইচ্ছা করে আনছেন না, তাই আপনার শাস্তি নয়। এমনকি, শয়তানের সাথে লড়ার জন্য ভাল টা বোঝার জন্য সাওয়াব ও পেতে পারেন ইং শা আল্লাহ।

সবার অসিডি একরকম নয় তবে সবার সমাধান একটাই। জাস্ট রিজেক্ট = যদি সমাজের সবথেকে খারাপ লোক আপনাকে খারাপ আইডিয়া দেয় শুনবেন? = নাহ,
তবে, শাইত্বনের কথা কেন শুনব। জাত শত্রু আমাদের তার ফিসফিসে কর্ণপাত করে কস্ট পাব কেন?

#মোটিভেশন: আচ্ছা ভাই বলুন তো : দুজন লোক একজন অনিচ্ছায় অন্যের প্রতি মনে খারাপ চিন্তা আচ্ছন্ন হয়ে যায়। তবে সে চেষ্টা করে, এই কথা গুলো/কাজ গুলো না করার।

আরেকজন: ইচ্ছায় করেই কাউকে আশালীন ভাষায় গালাগালি করে, অশান্তি তৈরি করে, মারপিট করে!
কে ভাল? = প্রথম ব্যাক্তি = অসিডি আক্রান্ত রা খারাপ না প্রমানিত হলো।

আল্লাহর ব্যাপারে কুমন্ত্রণা আসলে:আউযুবিল্লাহিমিনাশ শায়ত্বনির রজিম
বলবেন। আমানতুবিল্লাহ পড়বেন।

অন্তরে সন্দেহ: নিশ্চিত থাকুন শয়ত্বন যদি ইসলাম এর ব্যপারে সন্দেহ তৈরি করে এটাও প্রমাণ ইসলাম ঈ সত্য। সন্দেহর বিন্দু পরিমাণ জায়গা নেই।

অজুর ব্যাপারে সন্দেহ: বিসমিল্লাহ বলে অজু শুরু করবেন, সবগুলো আদায় করবেন। আল্লাহ চেষ্টা দেখছেন। ভুলে যাওয়ার প্রবনতায় : ভিডিও ক্যামেরা অন করবেন।

নামাজে সন্দেহ: এই বিষয়ে ইউটিউব এ অনেক সমাধান পাবেন।

মুল ট্রিটমেন্ট : খারাপ চিন্তা আসলেই আউযুবিল্লাহিমিনাশ শায়ত্বনির রজিম
বলে এই খারাপ চিন্তা নিয়ে আর ভাববেন না।দেখবেন সমাধান হয়ে যাবে ইং শা আল্লাহ।

আর যদি ওটা ভাবতে থাকেন শয়তান দুর্বলতা পেয়ে যাবে আরো বিভ্রান্তিতে ফেলবে।

আল্লাহর ব্যাপারে, রসুলদের ব্যাপারে কুর আন এর ব্যাপারে কুমন্ত্রণা দেওয়া কি প্রমাণ করে আল্লাহর ওয়াদা সত্য। তাই সন্দেহবাদীদের অন্তর্ভূক্ত হবেন না।

স্বপ্নে নিজেকে হস্তমৈথন+ পর্ণগ্রাফি দেখতে দেখলে: এর জন্য গুনাহ হবে না ঘুমানোর সময় গুনাহ লেখা হয় না। শয়তান এগুলো করছে যাতে আপ্নাকে পাপের দিকে নিয়ে যেতে পারে। আমরা উল্টোটা করব পর্ণগ্রাফির বিরুদ্ধতা করব। সমাজ থেকে দুর করার চেষ্টা করব ইং শা আল্লাহ।অতিরিক্ত পর্ণগ্রাফি আসক্তিতে ওসিডি হওয়ার একটি আশংকা আছে সবার ক্ষেত্রে নয় কারণ – পর্ণ দেখলে শয়তান ঘিরে ধরে, ভাল ফেরেশতা তারা এমন পাপাচার দেখে তার সাথে কিভাবে থাকতে চাইবে? শয়তান /তার সাথে থাকা সহচর শয়তান শক্তিশালী হয় তার উপর তার। নিজের আত্তা দুর্বল হয়ে যায়।এরপর শয়তান অত্যাচার করার সুযোগ পেয়ে যায়।পর্ণগ্রাফি এভাবেও একটা মানুষকে ধ্বংস করে
।আল্লাহর রহমত থেকে নিরাশ হবেন না। আল্লাহর কাছে খাটি ভাবে ক্ষমা চাইলে শির্ক পর্যন্ত ক্ষমা করেদেন।অতিতের জন্য ক্ষমা চাইব।আর করব না। আল্লাহ ক্ষমা করতে ভালবাসেন। হতাশাবোধ করবেন না- শায়েখ মানসুর সালিমি এর ভিডিও দেখবেন ইং শা আল্লাহ।

তবে, ওসিডি কখনো পর্ণগ্রাফি না দেখা ব্যাক্তির ও হয়।উপরেরটি একটি কারণ মাত্র।চিকিৎসা বিজ্ঞান এই রোগের আসল সঠিক কারণ বলতে পারেনি= তবে আমরা জানি শাইত্বন। ১০০% শাইত্বন – নাস্তিকদের জন্য নিদর্শন। কিভাবে একটা মানুষ এমন হয়ে যাচ্ছে।কেন সে নিয়ন্ত্রণ হারাচ্ছে।

সুরা আল মুমিনুন ২৩ নম্বর সুরা এর ৯৭-৯৮ আয়াত এর যে দোয়া রয়েছে এটি বেশি বেশি পড়া, যারা আক্রান্ত নন।তারাও বেশি পড়বেন। যাতে শাইত্বনের কুমন্ত্রণা থেকে আল্লাহ হেফাজত করেন।

★★★সকাল সন্ধার দোয়া – এটি সেরা মেডিসিন।দোয়া পড়লে
কার্যকারিতা দেখতে পাবেন ইং শা আল্লাহ। এটি সকাল এ ফজরের পর থেকে আমরা পড়া চেষ্টা করব এবং আসরের পর মাগরিবের আগে পড়ব ইং শা আল্লাহ।
যারা আক্রান্ত নয় তারাও করব ইং শা আল্লাহ।এটি হিসনুল মুসলিম এ্যাপ /বই এ পাব। এটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

নাস্তিকদের বিভ্রান্ত বই না পড়া/ ওদের কথা না শোনা। পরহেজগার মানুষের সাথে নেশা। তাহাজ্জদ পড়ার চেষ্টা করা।

শাইত্বন আকিদাগত আল্লাহর ব্যাপারে কুমন্ত্রণা পুশ করবে তাই সাবধান আকিদা শিখা শুরু করুন।আল্লাহ রব্বুল আ’লামিন কে নিয়ে শাইত্বন মারাত্মক পর্যায়ের কুমন্ত্রণা পুশ করতে চাইবে তাই আকিদা পরিস্কার থাকতে হবে, যাতে কোনো প্রভাব না পড়ে।

আকিদার জন্য: মাদানি আলেমদেরকে সাজেস্ট করব।বাংলাদেশে অনেক মাদানি আলেম আছেন।তাদেরকেই আকিদা বিষয়ক আলোচনা বেশি করতে দেখা যায়।

যদি কেউ বলে: আপনি ধ্বংস হয়ে গেছেন – তার কথা শোনার দরকার নেই।আল্লাহ সম্পর্কে
কুমন্ত্রণা আসা আর এটার জন্য কস্ট পাওয়া স্পস্ট ইমানের পরিচয়।

মনের ভিতর গুন গুন গান এর কুমন্ত্রণা : আউযুবিল্লাহিমিনাশ শাইত্বনির রজিম বলে।এড়িয়ে চলতে হবে।এর পরিবর্তে ভাল কিছু কুরআন তিলাওয়াত, ইস্তেগফার করা যায়।

বাথরুমে অনিচ্ছায় কুরআনের আয়াত পড়ার প্রতি শাইত্বনের আহবান : বাথরুমে কুরআন
তিলাওয়াত নিষিদ্ধ। তাই মন অন্যদিকে নিয়ে যাবেন। বাথরুমে যাওয়ার আগে দুআ পড়ে ঢুকবেন।

নবী রসুল এবং সাহাবীদের ব্যাপারে কুমন্ত্রণা :আউযুবিল্লাহিমিনাশ শাইত্বনির রজিম পড়ে। শাইত্বনের বিরোধিতা করা। শাইত্বনের কথায় কান না দেওয়া।

খারাপ সংগ গালিবাজ বন্ধুদের সাথে না মেশা।

নিজেকে মনে করা কারো গায়ে পানি ঢেলে দিচ্ছি অথবা নোংরা কিছু ফেলছি বা আরো খারাপ কিছু : আউযুবিল্লাহিমিনাশ শায়ত্বনির রজিম
বলে এই খারাপ চিন্তা নিয়ে আর ভাববেন না। তার জন্য কল্যাণের দোয়া করুন।

মৃত মানুষের প্রতি অতি খারাপ কিছু চিন্তা আসলে: আউযুবিল্লাহিমিনাশ শায়ত্বনির রজিম
বলে এই খারাপ চিন্তা নিয়ে আর ভাববেন না, তার জন্য দোয়া করবেন।

নিজেকে খুব পরহেজগার/অহংকারী মনে করা: আউযুবিল্লাহিমিনাশ শাইত্বনির রজিম পড়ে নিজেকে আল্লাহর গোলাম মনে করে বিনয় হওয়া।

★★★: নামাজে লোক দেখানোর প্রবনতা বোধ করা: এমন আসলেই সাথে সাথেই সতর্ক হওয়া আর নিয়ত খাটি রাখা যে আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য করছি।পাশে লোক রয়েছে তাই আমার মনে এমন হচ্ছে? আমাকে তো মহান আল্লাহ দেখছেন। তাকেই সন্তুষ্ট করতে হবে। রুকু সিজদাহ লম্বা করব একমাত্র আল্লাহকে দেখানোর জন্য।

নিজেকে কাফির/ শিরক কারী মনে করা: শাইত্বন আপনাকে এমন দেখতে চাইতেছে। আপনি ঠিক আছেন ইং শা আল্লাহ, টেনশন এর প্রয়োজন নেই। আকিদাহ সহিহ রাখবেন ইং শা আল্লাহ।

অন্যকে দেখলে মনে হওয়া: মুসলিমকে দেখলে চিন্তা আসা যে কাফির আসছে- আউযুবিল্লাহিমিনাশ শাইত্বনির রজিম বলে এড়িয়ে যান। সেও ঠিক আছে ইং শা আল্লাহ।তার জন্য ভালো দোয়া করে এড়িয়ে যান।

কেউ বাড়ি থেকে গাড়ি নিয়ে বা বের হলে কুমন্ত্রণা আসা যে মরন হোক/ এক্সিডেন্ট হোক: শাইত্বন খেলছে তার সাথে খেলুন।আউযুবিল্লাহিমিনাশ শাইত্বনির রজিম বলে এড়িয়ে যান বলুন আল্লাহ আপ্নাকে এক্সিডেন্ট থেকে হেফাজত করুন।

কাউকে দেখে অশ্লীল চিন্তা সে যে হোক না কেন, আউযুবিল্লাহিমিনাশ শাইত্বনির রজিম বলে এড়িয়ে যান।অশ্লীল চিত্র কারো নিয়ে আসলেও একই নিয়ম।

যৌনতামুলক অস্থিরতা: কমন একটা বিষয়। স্বাভাবিক অবস্থায় ও হতে পারে। সম্ভব হলে বিয়ে করে ফেলা।আউযুবিল্লাহিমিনাশ শায়ত্বনির রজিম
বলে এই খারাপ চিন্তা নিয়ে আর ভাববেন না।

শরীর দুর্বল লাগলে : ডাক্তারের থেকে ট্রিটমেন্ট নিন। ভেষজ ঔষধ সাজেস্ট করছি।

ঘুম না হওয়া: ঘুম না হলে অস্থির থাকবেন না। সমাধান ১: দু রাকায়াত নফল নামাজ পড়া।
সমাধান ২: কুরআন তিলাওয়াত শোনা।পরিক্ষিত।
ঘুমের ঔষধ না খাওয়া।

মাথাব্যথা : রুকিয়াহ শুনে ব্যাথা সেরে গেলে ইং শা আল্লাহ। পেইন কিলার অতিরিক্ত সমস্যায় ছাড়া না খাওয়া।

মারা যাচ্ছি এখনি মারা যাব আজকেই মারা যাব এমন চিন্তা+ ভয় আসলে: আল্লাহু আকবার। এটি আসলে আপনি আল্লাহর ওলি হয়ে যেতে পারবেন ইং শা আল্লাহ।সহজে পাপ করবেন না
খারাপ থেকে খুব সহজে ফিরে আসতে পারবেন
।এটাকে পজিটিভলি নিয়ে অতিতের পাপের ক্ষমা চাওয়ার শ্রেষ্ঠ একটা সময়।
সমস্যা বেশি বোধ করলে: রুকিয়াহ করবেন সুরা আত তাকাছুর পড়বেন/ শুনবেন ইং শা আল্লাহ।

অশান্তি বোধ: কোন কিছুতে শান্তি না পাওয়া ইবাদতে শান্তি না পাওয়া– রুকিয়াহ / কুর আন তিলাওয়াত করা /তিলাওয়াত শুনা – এতে যদি অন্তর প্রশান্ত হয় তবে চালয়ে যাবেন ইং শা আল্লাহ।

আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য রুকু সিজদাহ তে অনেক খন থাকবেন ইং শা আল্লাহ।
এছাড়াও: রসুনের কুয়া খেতে পারেন, হার্ট চেক করবেন। ব্যায়াম/পরিশ্রমী হয়ে যাবেন।
শয়তান হার্ট এ বাসা বাধে তাই হার্টে একটু জটিলতা বোধ করতে পারেন।প্রাকৃতিক উপায়ের চিকিৎসার প্রতি জোর দিবেন প্রথম পর্যায়ে।
কারো যদি বড় সমস্যা থাকে ডাক্তারের পরামর্শ নিবেন।তার থেকে ভাল উপায় : স্বাস্থ্যকর খাবার অনলাইন ইনফরমেশন এর জন্য: ডা: জাহাংগীর কবির ইউটিউব।যিকির করবেন।

রুকিয়াহ /কুরআন তিলাওয়াত শোনার সময় : আচরণের পরিবর্তন/ মাথার ভিতর দিয়ে কিছু চলাফেরা/ হার্টের ভিতর /মাথার /কানের কাছে ঠান্ডা অনুভব হওয়ার জন্য – জিন, যাদু বিষয়ের লেখাটি পড়বেন ইং শা আল্লাহ।

নিজেকে যোদ্ধা ভাববেন : আপনি জিহাদ করছেন নফসের সাথে/ শয়তানের সাথে। আল্লাহর উপর তাওয়াককুল রেখে এগিয়ে যান বিজয় আপনারই।

যারা ওসিডিতে আক্রান্ত তারা হিরো আর শয়তান ভিলেন।ডোন্ট লেট শায়ত্বন উইন।
শায়ত্বন আপ্নার সাথে খেলছে আপনি তার সাথে খেলুন- তার পরাজয় সে যে খারাপ আদেশ করছে তার উল্টো করা।’

নিজেকে ব্যস্ত রাখুন, টিউশনিতে,মাঠের কাজে, নতুন কিছু আবিস্কারে, পড়াশোনায়।

প্রেমের সম্পর্কে লিপ্ত থাকলে বিয়ে করে ফেলুন অন্যথায় ফিরে আসুন। অতিতের জন্য তওবা করুন।

সামর্থ থাকলে বিয়ে করে ফেলুন,স্ত্রীর সাথে সময় কাটান।

জিনের জন্য ওসিডি হলে রুকিয়া করুন।জিনের আছরে কুমন্ত্রণা হয়। আগের পোস্ট দ্রস্টব্য:

মনে মনে গালি আসলে – এড়িয়ে যান: ততক্ষন গুনাহ লেখা হয় না যতক্ষন প্রকাশ করে বা কাজে পরিনত করে।

অতীতের পাপের সৃতি : এটাকে পজিটিভভাবে ব্যবহার করা যায়- যে ভুল করেছি তার জন্য আল্লাহর কাছে ক্ষমা চাইব ইং শা আল্লাহ।

সাইকাইট্রিস্ট এর কাছে যেতে পারেন। যদি কোনো পরবর্তিন না দেখেন তবে আর দরকার নেই।নিজের সংগ্রাম চালিয়ে যান।

★ _★★পুস্টিকর খাবার খেতে হবে, যদি শরীর দুর্বল থাকে তবে অসিডি চেপে ধরবে।+ খেলাধুলা+ একঘেয়েমি দুর করা+ পাপ থেকে দূরে থাকা হয়ে গেলে সাথে সাথে ক্ষমা চাওয়া।

গান বাজনা না শোনা, কুর আন তিলাওয়াত আর রুকিয়া শুনতে হবে– ইউটিউব।

#সমাধান একটাই মনে রাখবেন – এড়িয়ে চলা যত এড়িয়ে চলতে পারবেন তত তাড়াতাড়ি সুস্থ হয়ে যাবেন ইং শা আল্লাহ।।
অন্যথায়: এটি নিয়ে ভাবতে থাকলে আরেক ভাবনা আরেক ভাবনা থেকে আরেক এভাবে চলতে থাকবে।

এখানে সব বিষয় আনা সম্ভব হয়নি।
যদি কারো পরবর্তি পরামর্শ /এই সমস্যা সংক্রান্ত প্রশ্ন থাকে তবে অথবা বুঝতে সমস্যা হয় , আমার ফেইসবুকে নক করতে পারেন ইং শা আল্লাহ।
Contact me on facebook

2 thoughts on "Ocd /Waswasa রোগের সমাধান।"

  1. (Mr. Merciless) Dark_Superman (Mr. Merciless) Contributor says:
    আপনি আমার সমস্যার সমাধান তুলে ধরলেন বলে ধন্যবাদ।
    কিন্তু আপনি অনেক জায়গায় বাংলা শব্দ লিখতে ভুল করেছেন যা দৃষ্টিকটু লেগেছে।
    অনুরোধ রইবে, সেগুলো সংশোধন করে নিবেন ও ভবিষ্যতে লেখার সময়ে খেয়াল করবেন।
    ভালোবাসা ও শুভকামনা রইলো অবিরাম, আল্লাহ আপনার ভালো করবেন ইনশাআল্লাহ।


  2. Abdullah Al Sultan Abdullah Al Sultan Author Post Creator says:
    অনেক বড় লেখা তো একটু ভুল হয়ে গেছে
    সবাইকে স্বাভাবিকভাবে দেখার জন্য অনুরোধ করছি।

Leave a Reply