আসসালামু আলাইকুম। আশা করি সবাই ভালো আছেন। আমিও ভালো আছি।

অনেক দিন পর আজকে ট্রিকবিডিতে লিখতে বসলাম। আজকে আমি আপনাদের জন্য নিয়ে এসেছি মার্ভেলের সদ্য মুক্তি পাওয়া মুভি স্পাইডার ম্যান নো ওয়ে হোম এর হালকা রিভিউ ও ডাউনলোড লিংক। তো চলুন শুরু করা যাক।

Film Name: Spider-Man: No Way Home (2021)

language: English (Hindi Dubb Available)
Genre: Action, Adventure
imdb: 9.2/10

*** হালকা স্পয়লার ***

এই মুভি দেখার আগে আপনাকে আরো কিছু মুভি দেখতে হবে। যারা দেখেছেন তারা তো জানেনই কিন্তু যারা এখনো দেখেন নি তাদের জন্য লিস্ট বানিয়ে দিচ্ছি নিচে। যারা মুভিগুলো না দেখেই নো ওয়ে হোম বুঝতে চান তারা আর্টিকেলটি পুরোপুরি মনযোগ দিয়ে পড়ুন। এখানে নো ওয়ে হোম এর কোনো স্পয়লার নেই। জাস্ট আমি ভিলেনগুলোর বর্ণনা দিয়েছি।

➡️ SPIDERMAN
➡️ SPIDERMAN 2
➡️ SPIDERMAN 3
➡️ THE AMAZING SPIDERMAN
➡️ THE AMAZING SPIDERMAN 2
➡️ DOCTOR STRANGE
➡️ SPIDER-MAN: HOMECOMING
➡️ SPIDER-MAN: FAR FROM HOME

এই মুভিগুলা দেখে নিন তাহলে No Way Home বুঝতে সুবিধা হবে।

 

এবার ভিলেনদের আলোচনায় আসি।

GREEN GOBLIN

 

 

আগে একটা কথা বলি, সবাই মনে করছে এই মুভির ভিলেন হবে sinister Six। আসলে ভাই এই মুভি sinister six কে নিয়ে বানানো হয় নাই। এটা আসলে মুলত multiverse নিয়েই বানানো হয়েছে। এই মুভির রাইটার নিজেই কনফার্ম করেছে যে এটা sinister six কে নিয়ে বানানো হয় নাই, তিনি বলেছেন sinister six কে তারা ভবিষ্যৎ এর প্রজেক্টের জন্য বাচিয়ে রেখেছে। তাই এটাকে আর sinister six না বলে multiverse মুভি বলাটাই ভালো।

এবার আসি আসল কথায়, সবার আগে GREEN GOBLIN কে নিয়ে আলোচনা করবো।

GREEN GOBLIN কে বিভিন্ন কমিকে বিভিন্ন ভাবে আলোচনা করা হয়েছে কিন্ত আমি সবার আগে যে কমিকে আলোচনা করা হয়েছিলো সেটাই তুলে ধরছি।

১৯৬৪ সালের The Amazing Spiderman এর কমিকে প্রথম green goblin কে পরিচয় করানো হয়েছিলো। Norman Osborn যে কিনা ছিলো spiderman aka peter parker এর বন্ধু harry osborn এর বাবা । তিনি Oscorp কোম্পানির হেড ছিলো। এরপর soldiers দের আরো strong, capable এবং দ্রুত heal করার জন্য Norman osborn একটি serum বানায়। কিন্তু সে এটা যাচাই করার আগেই নিজের শরীরে ইনজেক করে দেয়। তখন তার শরীরের উপর কোন কিছুই প্রভাব পরে না তাই সে ভাবতে থাকে serum টা কাজ করে নি। এর কিছুদিন পর Norman অকারণে হেলোসিনেট করতে থাকে, তার কেনো যেন মনে হতে থাকে কেউ একজন তার সাথে কথা বলছে। সব জায়গায় একটা ভয়েজ সে শুনতে শুরু করে।

এক পর্যায়ে সে পাগলের মতো হয়ে যায় এবং নিজের উপর থেকে কন্ট্রোল হারিয়ে ফেলে। এরপর সে ছোট বেলায় ভয় পেতো ঝাড়ুর উপর বসে উড়ে বেরানো ডাইনির উপর inspire হয়ে নিজের জন্য একটি costume বানিয়ে নেয়। এরপর এটা পরিধান করে ঝাড়ুর পরিবর্তে gladder ব্যবহার করে সে উড়তে আরম্ব করে। কিছুদিন পর সে এই costume এর মাধ্যমে শহরে লুটপাট শুরু করে দেয়, আর শহরের সবার কাছে পরিচিত মুখ হয়ে উঠে শহরের ক্রাইম মাস্টার Green Goblin নামে। Norman Osborn যখন এগুলা করতো তখন সে নিজের কন্ট্রোলে থাকতো না।

এরপর স্পাইডারম্যানের সাথে তার কয়েকবার লড়াই হয়। green goblin ই প্রথম ভিলেন ছিলো যে স্পাইডারম্যানের আইডেন্টিটি যেনে যায়। এরপর সে স্পাইডারম্যান কে ধরে তার আস্তানায় নিয়ে যায়। তারপর স্পাইডারম্যান কে তার মুখোস খুলে আসল আইডেন্টিটি রিভিল করে দেয় এবং স্পাইডারম্যানকে তার সাথে একই টিমে অংশ নিতে বলে। কিন্তু স্পাইডারম্যান রাজি হয় না এক পর্যায়ে তাদের মধ্যে লড়াই হয় আর স্পাইডারম্যান goblin কে হারিয়ে দেয় আর একটি বৈদ্যুতিক তারের উপর ছুড়ে ফেলে দেয়, যার ফলে goblin এর কস্টিউমস নষ্ট হয়ে যায় এবং norman osborn ব্যহুস হয়ে যায়। তার কিছুদিন পর Norman পুরোপুরি ভালো হয়ে যায়। সে আর হেলোসিনেট করতো না, কোন ভয়েজ শুনতে পেতো না।

সাধারণ ভাবেই জীবনযাপন করছিলো। এরপর স্পাইডারম্যানের সাথে লড়াইয়ের পর যখন তার কস্টিউমস নষ্ট হয়ে গিয়েছিলো তখন তার আইডেন্টিটি শহরের সবাই জেনে যায় আর norman osborn কে ক্রিমিনাল বলা শুরু করে। এটার জন্য সে স্পাইডারম্যান কে দায়ী ভাবতে থাকে তাই সে আবার সিরামের ব্যবহার করে আবার green goblin রুপে স্পাইডারম্যানের উপর প্রতিশোধ নিতে তার aunt কে কিডন্যাপ করে নেয় এবং স্পাইডারম্যানকে ব্ল্যাকমেইল করতে থাকে। এক পর্যায়ে তাদের মধ্যে অনেক ফাইট হতে থাকে, ফাইট করতে করতে goblin স্পাইডারম্যানের girlfriend Gwen Stacy কে বিল্ডিংয়ের উপর থেকে ফেলে দেয়, তখন স্পাইডারম্যান তার ওয়েব শুটিং করে gwen কে বাচিয়ে নেয় কিন্তু অনেক ঝাকুনির কারনে gwen এর ঘাড় ভেঙে যায় আর gwen মারা যায়।

এতে স্পাইডারম্যান নিজেকেই দায়ি ভাবতে থাকে। আর তাই সে আর প্রতিশোধ নেওয়ার জন্যও আগ্রহী ছিলোনা, এই সুযোগ কে কাজে লাগিয়ে Goblin তার gladder এ লাগানো সুচালো অংশ দিয়ে স্পাইডারম্যান কে মারতে গেলে সেই সুচালো অংশ উলটা goblin এর পেটে ডুকে যায় এতেই goblin মারা যায়। কিন্তু এরপর অন্য কমিকে দেখানো goblin aka Norman osborn নিজে নিজে হিল হয়ে যায় এবং বেচে যায়। এরপর Harry osborn ও এই goblin হয়েছে তবে এবার goblin নয় বরং harry নিজেই goblin কে কন্ট্রোল করতে পারছিলো।

DR OCTOPUS

DR OCTOPUS এর আসল নাম Otto octavious। সে ছোট বেলা থেকেই অনেক দুষ্ট প্রকৃতির ছিলো। আর এর কারনেই তার সাথে তার স্কুলের বন্ধুদের অনেক মারপিট হইতো। দুষ্টু প্রকৃতির হলেও সে ভীতু ছিলো তাই তার বন্ধুরা তাকে অনেক মারধর করতো কিন্তু সে মারতে পারতো না। এসব নিয়ে otto এর বাবার কাছে প্রতি নিয়তই বিচার যেতো। তার বাবা তাকে বলতো তোমার জন্য আমি বার বার স্কুল পাল্টাতে পারবো না, তাই সময় থাকতে মানুষ হয়ে যাও, সাহসী হয়ে যাও। otto এর বাবা সবসময় শাসন করলেও তার মা তাকে অনেক ভালোবাসতো আদর করতো।

একদিন construction সাইডে কাজ করতে গিয়ে এক দুর্ঘটনায় otto এর বাবা মারা যায়। এরপর তার মা তাকে atomic physics এ পড়িয়ে শিক্ষিত করতে সাহায্য করে। লেখাপড়া শেষ করে otto একটি Atomic Research Centre এ একজন সাইন্টিস্ট হিসেবে জয়েন করে। এরপর তার সকল research এর মাধ্যমে একটি mechanical four arms বানিয়ে নেয়, যার মাধ্যমে একজন মানুষ একসাথে ১০জনের কাজ একাই করতে পারতো। এই আবিষ্কারের জন্য সে পুরো শহরে জনপ্রিয় হয়ে যায় এবং তাকে DR OCTOPUS নামে আক্ষায়িত করা হয়।

এই আবিষ্কার করার সময় তার প্রেমে পরে তার সাথেই কাজ করা একটি মেয়ের। Dr Octopus ও তাকে ভালোবাসতে শুরু করে। এরপর সে তার girlfriend কে তার মায়ের সাথে পরিচয় করিয়ে দেয়। কিন্তু তার মা এই মেয়েকে বিয়ে করতে বারন করে দেয়। তাই Dr Octopus তার girlfriend এর সাথে break up করে দেয়। break up পর থেকে সে অনেক depression এ ভুগতে থাকে। এক সময় এই depression এর কারনে সে তার মায়ের সাথে ঝগড়াতে জরিয়ে পরে যার কারনে তার মা স্ট্রোক করে ফেলে এবং মারা যায়।

মাকে হারিয়ে dr octopus আরো বেশি depression আর কষ্ট পেতে থাকে। একদিন যখন সে তার mechanical arms নিয়ে ল্যাবে কাজ করছিলো তখন এই depression এর জন্য ল্যাবে অন্যমনস্কতার কারনে একটি blast হয়ে যায়। এরপর যখন তার sense ফিরে আসে তখন সে দেখে সে হস্পিটালে আছে এবং তার বানানো Mechanical Arms তার শরীরের সাথে parmenantly fit হয়ে গেছে, সে অনেক চেষ্টা করেও তা খুলতে পারছিলো না। তাই সে সেখান থেকে বেরিয়ে তার ল্যাবে চলে যায়, সেখানে গিয়ে দেখে তার ল্যাবের জায়গায় অন্য অফিস, তাই সেখানে থাকা স্টাফকে তার mechanical arms এর মাধ্যমে ধরে জিজ্ঞাসা করে তার ল্যাবের কথা। কোন উত্তর না পেয়ে সে পুরো অফিস ধ্বংস করে দেয় এবং বাসায় ফিরে যায়।

এদিকে Dr Octopus কে ফলো করতে করতে স্পাইডারম্যান তার বাসায় চলে আসে। Dr Octopus বুঝতে পেরে স্পাইডারম্যান কে তার Mechanical Arms দিয়ে ধরে বাসা থেকে জানালা দিয়ে ছুড়ে ফেলে দেয়। স্পাইডারম্যান এই প্রথমবার কারোর বিরুদ্ধে কুপোকাত হয়েছিলো। এরপর Dr Octopus আবার তার Atomic Research Centre নতুন করে বানানোর কাজে লেগে যায় আর তখনই সেখানে স্পাইডারম্যান চলে আসে এবং dr octopus এর চোখের উপরই ওয়েব শুটিং করে দেয়, এতে dr octopus কিছু দেখতে পাচ্ছিলো না, আর এই সুযোগে স্পাইডারম্যান তাকে ঘুশি মেরে বেহুশ করে দেয় এবং পুলিশের হাতে তুলে দেয়। কিন্তু otto octavious এর ভালো ব্যবহারের কারনে সে ছাড়া পেয়ে যায়। এরপর সে স্পাইডারম্যানের উপর প্রতিশোধ নিতে তার সাথে লড়াই করতে যায়৷ কিন্তু স্পাইডারম্যান এবারো তাকে হারিয়ে দেয় এবং পুলিশের কাছে তুলে দেয়। পুলিশ এবার প্রযুক্তির ব্যবহার করে dr octopus এর শরীর থেকে সেই mechanical arms কে আলাদা করে দেয় এবং তাকে জেলে বন্ধি করে দেয়।

এরপর dr octopus খেয়াল করে যে, সে তার মাইন্ড ব্যবহার করে mechanical arms কে কন্ট্রোল করতে পারছে। আর তাই সে মাইন্ডের ব্যবহারের মাধ্যমে mechanical arms কে নিজের কাছে ডেকে নেয় এবং সেগুলা দিয়ে জেল কে ভেঙে সেখান থেকে পালিয়ে যায়। এরপর সে আবার স্পাইডারম্যানের সাথে লড়াই করতে যায়। কিন্তু যতবারই সে লড়াই করে প্রত্যেক বারই সে স্পাইডারম্যানের সাথে পরাজিত হচ্ছিলো আর তাই আরো ৫ জন ভিলেন কে নিয়ে একটা টিম বানায় যাদের কে স্পাইডারম্যান হারিয়ে ছিলো। আর এই টিমের নাম দেয় Sinister Six।

THE SANDMAN

sandman এর যে অরিজিন spiderman 3 তে দেখানো হয়েছিলো তা কমিক এর স্টোরি লাইন থেকে পুরোপুরি আলাদা। তাই আজই আপনারা জানতে চলেছেন sandman এর আসল অরিজিন।

Sandman এর প্রথম এ্যাপিয়ারেন্স হয় ১৯৬৩ সালে আসা The amazing spiderman কমিকে। sandman এর আসল নাম হচ্ছে William baker। সে যখন অনেক ছোট তখন তার বাবা মারা যায়, এতে তার মা অনেক depression এ চলে যায়। তাই নিজের একাকিত্ব কাটানোর জন্য সে স্কুলের পরীক্ষা আর ক্লাস নিয়ে ব্যস্ত ছিলো। স্কুলের একজন শিক্ষিকার উপর William এর ক্রাশ ছিলো আর তাই সে প্রতিদিন স্কুলে যেতো শুধু সেই ম্যাডামকে দেখার জন্য। সবকিছু ঠিকই চলছিলো কিন্তু একদিন সেই ম্যাডামের একটি টাকা ওয়ালা ছেলের সাথে বিয়ে হয়ে যায়। এতে william অনেক ভেঙে পরে আর ভাবতে থাকে হয়তো টাকাই সবকিছু। এর কিছুদিন পর সিনিয়র ক্লাসের ছেলেরা William আর তার কিছু বন্ধুদের নিয়ে অন্যান্য ক্লাসের সকল ছাত্রদের সামনে মজা করে এবং মারধর করে। এরপর William আর তার কিছু বন্ধুদের নিয়ে স্কুলে একটি গ্যাং বানিয়ে নেয়। আর এই গ্যাংয়ের লিডার ছিলো william। এই গ্যাং এর মাধ্যমে সে পুরো স্কুলে ফেমাস হয়ে যায়।

এরপর William এর বেস্ট ফ্রেন্ড একটি ক্রিমিনাল থেকে কিছু টাকা ধার নেয় জুয়া খেলার জন্য, কিন্তু সে জুয়াতে সকল টাকা হারিয়ে ফেলে। এরপর সেই বন্ধু এসে william কে সব বলে। william এটা শুনে তার বন্ধুকে সাহায্য করার জন্য একটি ব্যাংক লুট করতে যায়, কিন্তু সে পুলিশের কাছে ধরা খেয়ে যায়। আর তার জেল হয়ে যায়। এর কিছুদিন পর যখন সে জেল থেকে ছাড়া পেয়ে যায় তখন সে তার বন্ধুর বাসায় চলে যায় আর সে তার বন্ধুর সাজানো সব নাটক শুনে ফেলে, আসলে তার বন্ধু William এর জায়গায় নিজে leader হতে চেয়েছিলো এবং william এর পছন্দের মেয়েকে নিজের girlfriend বানিয়ে নিয়েছে। তার বন্ধুর এই cheat করা দেখে সে নিজেকে কন্ট্রোল করতে পারেনি এবং সে বাসায় ডুকে তার বন্ধুকে অনেক মারধর করতে থাকে।

এই মারামারির জন্য William কে আবার পুলিশ ধরে নিয়ে যায়। এর কিছুদিন পর William জেল থেকে পালিয়ে যায় এবং পালাতে পালাতে সে একটি secret facility তে চলে যায় যেখানে কিছু সাইন্টিস্ট sand এর উপর ব্লাস্টের মাধ্যমে একটি এক্সপেরিমেন্ট করছিলো, William অনাকাঙ্ক্ষিত ভাবে সেই ব্লাস্টের মধ্যেই পরে যায় এবং ব্যহুস হয়ে যায়। এরপর যখন তার সেন্স ফিরে তখন সে দেখে ব্লাস্টে তার কোন ক্ষতিই হয় নাই এবং তার শরীর এতবড় ব্লাস হওয়া স্বত্তেও অক্ষত ছিলো। কিন্তু যখন সে হাটতে যাচ্ছিলো তখন সে খেয়াল করে তার শরীর পুরোপুরি sand এ রুপান্তর হয়ে গিয়েছে। সে বুঝতে পারে sand তার সাথে বন্ড বানিয়ে নিয়েছে।

এরপর এই পাওয়ার কে ব্যবহার করে সে সকল ব্যাংক লুটপাট করতে থাকে এবং টাকা জমাতে থাকে। এই ঘটনার জন্যই সে সবার কাছে sandman হিসেবে পরিচিতি লাব করে। এরপর william নিউইয়র্কে চলে আসে আর এখানে এসেও ব্যাংক লুট করতে থাকে। আর এতেই সে স্পাইডারম্যানের নজরে পড়ে যায়। এরপর william সেই কলেজে যায় যেখানে peter parker aka spiderman পড়তো। সেখানে গিয়ে সেখানের প্রিন্সিপাল কে ধরে মারতে থাকে এবং নিজের জন্য একটি ডিপ্লোমা চাইতে থাকে।

তখনই সেখানে স্পাইডারম্যান এসে যায় এবং এতোদিন William কে ফলো করতে করতে বুঝতে পারে william পুরোপুরি বালু দিয়ে তৈরি আর তাই সে একটি ব্যাকিউম ক্লিনার দিয়ে sandman কে আটকিয়ে ফেলে এবং পুলিশের কাছে ধরিয়ে দেয়। কিন্তু sandman জেল থেকে পালিয়ে যায় এবং প্রতিশোধ নিতে স্পাইডারম্যানের সাথে লড়াই করতে যায়। অনেক বার লড়াই করার পরও সে স্পাইডারম্যানকে হারাতে পারে না। আর তাই সে স্পাইডারম্যানকে ঘৃনা করতে থাকে। এর কিছুদিন পরই Dr Octopus তার সাথে দেখা করতে আসে এবং sinister six এ যোগ দেওয়ার প্রস্তাব দেয়। এরপর william aka sandman sinister six এ যোগ দেয়।

LIZARD

Lizard এর প্রথম এ্যাপেয়ারেন্স হয় ১৯৬৩ সালে আসা The Amazing spiderman এর ইস্যু নাম্বার ৬ এ। lizard এর আসল নাম ছিলো Dr Curtis Connor। তিনি একজন gifted surgeon এবং us army এর জন্য কাজ করে। একদিন ল্যাবে কাজ করার সময় একটি অনাকাঙ্ক্ষিত ব্লাস্টের কারনে তার একটি হাত গুরুতরভাবে ইঞ্জুরি হয়। পরে ডাক্তাররা অপারেশন করে এই হাত কেটে বাদ দিতে বাধ্য হয়। এরপর connor যখন সাভাবিক জীবনযাপনে ফিরে আসে তখন সে তার হাতের জন্য অনেক আফসোস করতে থাকে।

তাই সে বাসায় us government থেকে লুকিয়ে লুকিয়ে reptile এর dna এর উপর research করতে থাকে। অনেক চেষ্টার পর সে reptile dna দিয়ে একটি serum বানিয়ে নেয়। এরপর সে এই সিরাম একটি খরগোশের উপর প্রয়োগ করে, এতে খরগোশটির মিসিং লিম্প গজিয়ে যায় আর খরগোশটিও সাভাবিক ছিলো। এরপর connor সেই সিরাম নিজের উপর প্রয়োগ করে দেয়। এতে তার একটি নতুন হাত গজিয়ে যায়।

কিন্তু তার কিছুক্ষন পরই সাইড এ্যাফেক্টের জন্য connor একটি Reptilian Humanoid Monster এ রুপান্তর হয়ে যায়। এটা দেখে তার ছেলে এবং স্ত্রী ভয় পেয়ে যায় এবং তার থেকে দূরে সরতে থাকে। এরপর dr connor সেখান থেকে পালিয়ে যায় যেন তার সন্তান এবং স্ত্রীকে সে কোন ক্ষতি করতে না পারে। এদিকে সে যখন পালাচ্ছিলো তখন পুরো শহরের মানুষ তাকে দেখে নেয় এবং এরপরের দিনই খবরের কাগজে খবর ছেপে যায় শহরে Reptile Human দেখা গিয়েছে এবং সবাই এটাকে lizard নামে ডাকছে। এরপর স্পাইডারম্যান Florida তে বেরাতে আসে এবং সেও এই খবর পায়, তখন The Daily Bugle পত্রিকায় খবর ছাপে, স্পাইডারম্যানকে lizard কে হারানোর চ্যালেঞ্জ জানানো হয়।

এরপর স্পাইডারম্যান lizard এর ব্যাপারে সকল ইনফরমেশন নিয়ে তার বাসায় যায়। সেখানে lizard এর স্ত্রী স্পাইডারম্যানকে সব খুলে বলে। এরপর স্পাইডারম্যান connor এর সকল research এর লিখিত কপি পড়ে পড়ে একটি antidote বানিয়ে নেয়। তখনই সেখানে lizard চলে আসে এবং মনে করে স্পাইডারম্যান তার পরিবারের ক্ষতি করতে এসেছে, তাই সে স্পাইডারম্যানের উপর হামলা করে দেয়। এরপর তাদের মধ্যে একটা লড়াই হয় এবং স্পাইডারম্যান কোন মতে antidote টি lizard এর শরীরে ইনজেক করে দেয়, এতে সাথে সাথেই dr connor তার human form এ ফিরে আসে। এতে dr connor কান্না করে দেয় এবং স্পাইডারম্যানকে ধন্যবাদ জানায়। এরপর স্পাইডারম্যান বলে কখনও আমার প্রয়োজন হলে সাহায্য করবেন, এটা বলে সে নিউইয়র্কে ফিরে যায়।

কিছুদিন পর dr connor নিউইয়র্কে আসে। peter parker aka spiderman এর aunt may এর surgery করে তাকে সাহায্য করার জন্য। surgery করে aunt may কে connor ভালো করে দেয়। এতে স্পাইডারম্যান তাকে ধন্যবাদ জানায়। এরপর dr connor যখন চলে যাচ্ছিলো তখন সে দেখে তার কাটা হাত আবার গজাতে শুরু করেছে। তার মানে স্পাইডারম্যানের antidote টা temporary তাকে human form এ আনতে পেরেছে শুধু। এরপর connor আবার lizard form এ রুপান্তর হয়ে যায়। এটা জানতে পেরে স্পাইডারম্যান আবার antidote বানিয়ে lizard এর সাথে ফাইট করতে করতে সেই antidote টি lizard এর মুখে ডুকিয়ে দেয়। এতে dr connor আবার human form এ ফিরে আসে। এবার dr connor স্পাইডারম্যানের কাছে অতিরিক্ত কিছু antidote চায়, যেন পরে ব্যবহার করতে পারে। স্পাইডারম্যান তাই করে।

এরপর dr connor অনেকবার স্পাইডারম্যান কে সাহায্য করেছিলো বিভিন্ন ভিলেনকে হারাতে। কিন্তু যখন dr connor RHINO কে হারানোর জন্য স্পাইডারম্যানকে formula বানিয়ে দিচ্ছিলো তখন সে আবার lizard এ রুপান্তর হয়ে যায়। কিন্তু এবার স্পাইডারম্যানের দেওয়া অতিরিক্ত antidote থাকায় সে সেটি প্রয়োগ করে আবার human form এ ফিরে আসে। এর কিছুদিন পর dr connor কে কিডন্যাপ করা হয় যেন সে Silvermane কে একটি পাওয়ারফুল serum বানিয়ে দেয়। বেশি stress এ থাকার কারনে dr connor আবার lizard এ রুপান্তর হয়ে যায়, কিন্ত কিডন্যাপ করায় তার সাথে antidote ছিলো না। তাই সে lizard রুপে সেখানে সবাইকে মেরে ফেলে। এরপর স্পাইডারম্যান আবার antidote বানিয়ে human torch কে নিয়ে lizard এর বিরুদ্ধে লড়াই করে এবং কোনো মতে আবার lizard কে human form এ ফিরিয়ে আনে।

এর কিছুদিন পর স্পাইডারম্যান dr connor এর সাথে দেখা করতে আসে, যেন সে স্পাইডারম্যানের অতিরিক্ত ৪ টি হাত থেকে কিয়র করতে একটি সিরাম বানিয়ে দেয়। এই ৬ হাত ওয়ালা স্পাইডারম্যানের ব্যাপারে আমি MORBIUS origin এ বলেছি, না দেখে থাকলে দেখে আসেন। যাই হোক dr connor যখন স্পাইডারম্যানের জন্য serum বানাচ্ছিলো তখনই morbius স্পাইডারম্যানের উপর হামলা করে দেয়। এরপর dr connor স্পাইডারম্যান কে সাহায্য করার জন্য ইচ্ছা করে stress নিতে থাকে, যার ফলে সে lizard এ রুপান্তর হয়ে যায়।

lizard এ রুপান্তর হয়ে সেও morbius এর বিরুদ্ধে লড়াই করে, কিন্তু morbius lizard কে কামড়ে দিয়ে সেখান থেকে পালিয়ে যায়। morbius এর কামড়ের কারনে lizard আবার human form এ ফিরে আসে। এরপর dr connor দেখে এবার সে Permanently human form এ রুপান্তর হয়ে গিয়েছে মানে তার শরীরে আর সেই lizard serum এর সাইড এ্যাফেক্ট নেই এবং সে আর lizard এ রুপান্তর হবে না। এরপর dr connor স্পাইডারম্যানকে বলে morbius এর dna দিয়ে সে নিজেও তার অতিরিক্ত ৪ হাত থেকে কিয়র হতে পারবে। এরপর স্পাইডারম্যানও morbius এর dna নিয়ে নিজেকে কিয়র করে নেয়।

ELECTRO

 

Electro এর অরিজিন TASM2 মুভিতে যেটা দেখানো হয়েছে এটা একদমই Sony এর মনগড়া স্টোরিলাইন। আজ আপনারা এর আসল অরিজিন জানতে চলেছেন।

Electo এর প্রথম এ্যাপেয়ারেন্স হয়েছিলো ১৯৬৪ সালে আসা The Amazing Spiderman issue number 9 কমিকে। Electro এর আসল নাম হলো Maxwell Dillon। সে একজন ইলেক্ট্রিশিয়ান এবং একটি ইলেক্ট্রিক কোম্পানিতে লাইনম্যান হিসেবে কাজ করে। একদিন সে কাজ করার জন্য একটি ইলেক্ট্রিক পিলারে উঠে যায়। কাজ করার সময় অনেক বড় ধরনের একটি ইলেক্ট্রিক শক লেগে সে পিলারের উপর থেকে সোজা মাটিতে পরে যায়। এতো উপর থেকে পরেও সে দেখে তার কিছুই হয় নাই এবং এতবড় শক খাওয়ার পরও সে পুরোপুরি ভাবেই ভালো আছে।

এরপর সে বাসায় চলে যায়, যাওয়ার পর সে যখন একটি ইলেক্ট্রিক ডিভাইস এর কাছে যায় তখন তার পুরো শরীরে কারেন্ট একটিভ হয়ে যায় এবং সে দেখে তার হাতের আঙুল থেকে লাইটনিং এর মতো কিছু একটা দেখা যাচ্ছে। যখনই সে হাতের আঙুল উপরের দিকে তুলে তখনই তার আঙুল থেকে বিজলির মতো একটি লাইটনিং বের হয়। এরপরেই সে বুঝে অই শক খাওয়ার পর তার পুরো শরীর এখন ইলেক্ট্রিক হয়ে গেছে। এতে নিজেকে পাওয়ারফুল ভাবতে থাকে এবং আরো পাওয়ার বাড়ানোর জন্য সে তার বাসা থেকে একটু দূরে অবস্থিত একটি power plant এ যায় এবং সেখানের সব পাওয়ার নিজের ভিতর অবসার্ব করে নেয়। এরপর সে আরো পাওয়ারফুল হওয়ার জন্য STARK INDUSTRY এর একটি ভ্যান কে লুট করে নেয় এবং সেখান থেকে একটি Ark Reactor Device কে নিয়ে নিজের জন্য একটি কস্টিউমস বানিয়ে নেয়।

কিছুদিন পর Electro এর সাথে magneto দেখা করতে আসে এবং magneto এর Brotherhood of evil mutants টিমে জয়েন করতে বলে, কিন্তু electo তাকে ফিরিয়ে দেয়। এরপর electro সে কস্টিউমস পরে নিজের আইডেন্টিটি লুকিয়ে ব্যাংক লুট করতে শুরু করে। এরপর একদিন সে J. Jonah jameson এর Daily Bugle বিল্ডিং এ হামলা করে দেয় এবং Jameson এর সামনেই তার সেভিংস এর সব টাকা নিয়ে যায়। Jameson মনে করে এটা স্পাইডারম্যান। তাই সে electro কে স্পাইডারম্যান বলে পত্রিকায় খবর ছাপিয়ে দেয়। এটা দেখার পর স্পাইডারম্যান নিজের রেপুটেশন বাচানোর জন্য electro কে খুজতে থাকে, খুজে পাওয়ার পর electro এর সাথে লড়াই করতে অগ্রসর হয়। কিন্তু যখনই স্পাইডারম্যান electro কে হাত দিয়ে ধরে তখন তার শরীরে অনেক জোরে ইলেক্ট্রিক শক লাগে এবং সেখানেই সে ব্যহুস হয়ে যায়। electro স্পাইডারম্যানের ফ্যান ছিলো তাই সে তার কোনো ক্ষতি না করে সেখান থেকে চলে যায়।

এরপর স্পাইডারম্যান পুরোপুরি তৈরি হয়ে আসে। রাবাবের গ্লাভস, রাবারের জুতা পরে। এবার সে electro কে অনেক খারাপ ভাবে মারতে থাকে এবং একটি পানির ট্যাংক থেকে electro এর উপর পানি ঢেলে দেয়, এতে electro এর শরীরে শর্ট সার্কিট হয়ে যায় এবং সেখানেই সে ব্যহুস হয়ে যায়, এই সুযোগে স্পাইডারম্যান electro কে পুলিশের কাছে ধরিয়ে দেয় এবং আবার সে সবার কাছে হিরো হয়ে যায় এবং নিজের রেপুটেশন রক্ষা করে দেয়।

এরপর electro জেল থেকে ছাড়া পাওয়ার পর আবারো electro এর কস্টিউমস পরে Baxter Building এ হামলা করে দেয় কিন্তু এবার তাকে হারিয়ে দেয় Daredevil। এর কিছুদিন পর Dr Octopus তার সাথে দেখা করতে আসে এবং তার টিম sinister six এর কথা বলে যারা সবাই এই স্পাইডারম্যানের সাথে কোন না কোন ভাবে পরাজিত হয়েছিলো। এবার স্পাইডারম্যানের উপর প্রতিশোধ নেওয়ার জন্য সে dr octopus এর প্রস্তাবে রাজি হয় এবং sinister six এর ম্যাম্বার হয়ে যায়।

No Way home এর সকল ভিলেন কে নিয়ে আলোচনা এখানেই শেষ করলাম, এবার আশা করি আপনাদের No Way Home কে বুঝার জন্য আর কোনো সমস্যাই হবে না কারন আপনারা এখন সব জানেন।

আরো বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করে পোস্টটা দেখে নিন।


Trailer


Screenshot

Mlwbd তে দেখুন

ডাউনলোড লিংকে ক্লিক করলেই ডাউনলোড শুরু হয়ে যাবে

ভালোভাবে ভিডিও প্লে করার জন্য VLC Player ব্যবহার করুন।


 

নতুন নতুন মিমস ও ফানি পোস্ট পেতে জয়েন করুন আমাদের ফেসবুক গ্রুপেঃ Facebook Group

 

আজকে এই পর্যন্তই। কোনো সমস্যা হলে অবশ্যই কমেন্ট বক্সে জানাবেন। সবাই ভালো থাকবেন সুস্থ থাকবেন। আল্লাহ হাফেজ।

 

29 thoughts on "🔥 = Spider Man: No Way Home বাংলা রিভিও ⚡️"

  1. Rider Author says:
    are vai, apni to screenshot ei onek boro spoiler diye disen. abar post e leksen spoiler free!! 😂
    1. Redwan Ahmed Sawkhin Author Post Creator says:
      vai ota spoiler na.ota nia oneker ee dharona chilo 😅
    2. Redwan Ahmed Sawkhin Author Post Creator says:
      স্পাইডারম্যান নো ওয়ে হোম স্পয়লার!

      আমিঃ- ৩ টা স্পাইডি আছে মুভিতে!

      ন্যাকা ফিল্ম লাভারঃ- ওই মিয়া, ইসপয়লার দেন ক্যান? তরে আইজ খাইছি!
      😂😂😂

    1. Redwan Ahmed Sawkhin Author Post Creator says:
      Thanks ❣️
  2. Ajarmam Contributor says:
    Eta ki cilo bhai ! Spoiler alert diben na ??
  3. Redwan Ahmed Sawkhin Author Post Creator says:
    যারা বলছে স্পয়লার দিয়েন না। তারা কি জানে যে গতকাল একটা ইন্টারভিউয়ের মাধ্যমে সবাই সামনে আসে….?

    Sony ও Marvel Studios যে আর কাকে কাকে আনছে এই ফিল্মে তা হল আসল স্পয়লার ও চমক।

    তাই স্পাইডারম্যান কয়টা আছে বা আছে কি না এটাকে স্পয়লার হিসেবে না নিয়ে শুধু ভাবুন যে মারভেলের কি কি চরিত্র আপনি এই ফিল্মে দেখতে পাবেন।

    [মনে হচ্ছে স্পয়লার কাকে বলে নিয়ে পোষ্ট করা উচিত]

    সবচেয়ে বড় কথা, এই ফিল্ম ফুল স্পয়লার খাওয়ার পরও দেখে মজা পাবেন। গ্যারান্টি দিচ্ছি।

  4. Redwan Ahmed Sawkhin Author Post Creator says:
    স্পাইডারম্যান নো ওয়ে হোম স্পয়লার!

    আমিঃ- ৩ টা স্পাইডি আছে মুভিতে!

    ন্যাকা ফিল্ম লাভারঃ- ওই মিয়া, ইসপয়লার দেন ক্যান? তরে আইজ খাইছি!

    1. Jubayer Tonu Contributor says:
      মুভি দেখার মজা বুঝেন?
      স্পয়লার দিবেন ই কেন?
    2. Redwan Ahmed Sawkhin Author Post Creator says:
      পোস্টে কোথায় স্পয়লার আছে বলেন।পোস্টে ৩ স্পাইডি থাকবে জাস্ট সেটা দেখানো হয়েছে। সেটা ইন্টারভিউ তেও তারা বলে দিয়েছে। আর মুভি দেখার মজা না বুঝলে আমি পোস্ট লিখতাম না।আপনি লিখতেন।
      ধন্যবাদ।
  5. Ajidur Rahman Subscriber says:
    Eta “No way home” sure to?1.3gb diye download dicci,pore jodi onno movie tahole ami sesh:(:(
  6. Bule Attack Contributor says:
    থ্যাংকস
    1. Redwan Ahmed Sawkhin Author Post Creator says:
      ওয়েলকাম
    1. Redwan Ahmed Sawkhin Author Post Creator says:
      Welcome 😊❣️
  7. Prince🔰 🇧🇩 Contributor says:
    Hall Print 😡😡
    1. Redwan Ahmed Sawkhin Author Post Creator says:
      clear hall print..onno jaygay je hall print chilo ta aro low quality chilo.
    2. Prince🔰 🇧🇩 Contributor says:
      টাইটেলে আপনার উচিৎ ছিলো হল প্রিন্ট উল্লেখ করা?
  8. mdmamunrahman Contributor says:
    Bhai
    Maje maje one click download link niye post korben
    Ekon website teke movie download Kora onek muskil er bepar
    Jai huk apnar deuya link a speeds r one click download dutai working
    Thanks
    R
    Review kom diben eto kicu bole dile deke ki moja nibo
    Ha ha ha ha
    Thanks
    1. Redwan Ahmed Sawkhin Author Post Creator says:
      Welcome vai😊❤️
  9. mdmamunrahman Contributor says:
    Bhai download link 400 mb asar por Ken exprid hoye gelo
    Abar notun kore download suru hol
    Bujlam bepar
    R push resame now working this website but why?????
  10. mdmamunrahman Contributor says:
    Amr 400 mb mair gelo 😭😭😭😭😭😭
    1. Redwan Ahmed Sawkhin Author Post Creator says:
      vai download link thik ee ache.but network connection stable rekhe download korben jeno minimum 1 mbps speed thake.taholei hobe.ar pause korte jaben na.
  11. Md Zakir Hossen Author says:
    English version den vaiya
    1. Redwan Ahmed Sawkhin Author Post Creator says:
      dual audio te english, hindi dutoi ache
  12. GHÕST FF 420 Contributor says:
    আপনাদের সাইট থেকে মুভি ডাউনলোড করতে গিয়ে আমার 5 জিবি ইন্টারনেট শেষ করছি। 99% ডাউনলোড হাওয়ার পর আবার প্রথম থেকে ডাউনলোড হই। এভাবে টোটাল 4 বার ডাউনলোড কিছু বাট হই নাই। এটা কতো কথা হলো ভাই 😥 বুঝলাম না কিছু।
    1. Redwan Ahmed Sawkhin Author Post Creator says:
      স্ট্যাবল নেট কানেকশন রেখে ট্রাই করবেন ভাই। যেহেতু ডিরেক্ট লিংক দিয়েছি ডিরেক্ট লিংক গুলো এমনই হয়।
  13. GHÕST FF 420 Contributor says:
    Site er server thik koren,,,ar eto porimaner ad, taw jodi Adsence er add hoto mene newa jeto 😥
    1. Redwan Ahmed Sawkhin Author Post Creator says:
      site e dhukte bolini. direct download link theke download korte bolechi.direct download link e konl ads nei.

Leave a Reply