বর্তমান সময়ে ইউটিউব হলো পৃথিবীর সবচেয়ে বড় ভিডিও শেয়ারিং প্ল্যাটফর্ম। ইউটিউবে প্রতিদিন প্রচুর পরিমাণে ভিডিও আপলোড হচ্ছে। কনটেন্ট ক্রিয়েটররা তাদের নিজস্ব মেধা দিয়ে ভিডিও তৈরি করে, এবং সেই ভিডিও ইউটিউবে আপলোড করে।

এছাড়া বিভিন্ন কোম্পানি তাদের নিজস্ব পণ্যের মার্কেটিং বা বিজ্ঞাপনের জন্য ও ইউটিউবকে ব্যবহার করে। ইউটিউব মার্কেটিং হল ডিজিটাল মার্কেটিং এর একটি অংশ। তাহলে চলুন ইউটিউব মার্কেটিং সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নেই…

• ইউটিউব (YouTube) মার্কেটিং কি?
পণ্যের বিজ্ঞাপনের ভিডিও ইউটিউব এর মাধ্যমে প্রচার করা কে ইউটিউব মার্কেটিং বলে। ইউটিউব এর প্রতিটি বিজ্ঞাপন যেহেতু ভিডিও আকারে থাকে, তাই ইউটিউব মার্কেটিংকে আমরা ভিডিও মার্কেটিং হিসেবেও ধরতে পারি।

• ইউটিউব মার্কেটিং এর প্রয়োজনীয়তা:
বর্তমানে গুগল সার্চ ইঞ্জিনের পরে মানুষ কোন কিছু জানার জন্য সবচেয়ে বেশি সার্চ করে ইউটিউবে। এছাড়া বর্তমানে মানুষ আর্টিকেল পড়ার থেকে ভিডিও দেখাকে বেশি পছন্দ করে।

যার ফলে কোনো ব্যক্তি বা কোম্পানি তাদের পণ্যের বিজ্ঞাপন যদি ভিডিও আকারে ইউটিউবে প্রকাশ করে, তাহলে তাদের পণ্যের বিক্রি বাড়ার সম্ভাবনা বেশি থাকবে (তবে বিজ্ঞাপনের ভিডিওকে ভালোভাবে এসইও করতে হবে)।

ইউটিউবে রয়েছে অনেক অ্যাডভান্স অ্যালগরিদম। যার কারণে আপনি যদি গুগোল এডস ব্যবহার করে আপনার বিজ্ঞাপনের ভিডিওটি প্রচার করেন সেক্ষেত্রে আপনার পণ্যের বিক্রি আরো বেশি বৃদ্ধি পাবে।

বিশ্বের সকল এসইও এক্সপার্টদের মতে অন্যান্য এডভার্টাইজিং সিস্টেমে তুলনায় ভিডিও এডভার্টাইজিং সিস্টেমে পণ্য সবচেয়ে বেশি বিক্রি হয়। এর কারণ হলো একটি ভিডিওর মধ্যে একটি পণ্যের সকল ডিটেলস সুন্দর ভাবে উল্লেখ করা হয়। এবং মানুষ সেগুলো সুন্দর ভাবে বুঝতে পারে, এতে করে কোম্পানির বেশি পণ্য বিক্রি হয়।

• ইউটিউব মার্কেটিং কিভাবে করবেন:

ইউটিউব মার্কেটিং করার জন্য অবশ্যই আপনার একটি ইউটিউব চ্যানেল থাকতে হবে। এবং সে চ্যানেলটিকে আপনাকে অবশ্যই প্রফেশনালি সাজাতে হবে।

তারপর আপনার পণ্যের একটি সুন্দর ভিডিও সম্পূর্ণ ডিটেলস সহ তৈরি করুন। সে ভিডিওটি আপনার ইউটিউব চ্যানেলে আপলোড করুন। এবার সেই ভিডিওটি আপনি অন্যান্য মানুষদের সাথে শেয়ার করুন।

আপনি চাইলে ইউটিউবে ফ্রিতে এডভার্টাইজিং করতে পারবেন। তবে আমি বলবো আপনার যদি ভালো ইনভেস্ট থাকে, তাহলে আপনার পণ্যের ভিডিওটি গুগলের এডভার্টাইজিং এর মাধ্যমে প্রচার করুন।

গুগলের অ্যাডভান্স অ্যালগরিদম থাকার কারণে আপনার ভিডিওটি সঠিক মানুষের কাছে পৌঁছে যাবে, এতে করে আপনার পণ্যের বিক্রি ও বেশি হবে।

ইউটিউব মার্কেটিং অন্যান্য মার্কেটিং এর তুলনায় একটু ব্যয়বহুল। আপনি চাইলে ফ্রিতে মার্কেটিং করতে পারবেন, তবে সেটা দিয়ে আশানুরূপ ফল পাবেন না।

• ইউটিউব মার্কেটিং এর সুবিধা সমূহ:
১. সারা জীবন নতুন নতুন গ্রাহক পাওয়ার সুযোগ রয়েছে।
২. ইউটিউবে আপলোড করা ভিডিওগুলি গুগল সার্চ থেকেও দেখা যাবে, তাই অর্গানিক ইউজার পাবেন।
৩. ইউটিউব মার্কেটিং এর মাধ্যমে আপনার প্রতিষ্ঠানটিকে বিশ্বব্যাপী প্রচার করতে পারবেন।
৪. গুগোল এডস বা ইউটিউব এডস ব্যবহার করে সঠিক ব্যবহারকারীকে খুঁজতে পারবেন।
৫. বর্তমানে ইন্টারনেটের অন্যান্য কম্পিউটার তুলনায় ভিডিও কনটেন্ট এর চাহিদা বেশি। তাই আপনার মার্কেটিং টাও সফলতা পাবার সুযোগ বেশি থাকবে।
৬. আপনার চ্যানেলে স্থায়ী সাবস্ক্রাইবার থাকবে। যার ফলে আপনি ভবিষ্যতে ও অন্যান্য পণ্য আপনার নির্দিষ্ট গ্রাহকদের কাছে বিক্রি করতে পারবেন, এর জন্য পরবর্তীতে আর আপনাকে টাকা খরচ করে গুগোল এডভেটাইজ এর ব্যবহার হবে না।

আশা করি আজকের পোস্টটি আপনাদের অনেক কাজে আসবে।

সবাই ভালো থাকবেন, সুস্থ থাকবেন‌। আল্লাহ হাফেজ।

 

রমজান মাসের গুরুত্ব, প্রস্তুতি, তাৎপর্য ও বিধি-নিষেধ গুলো কি কি

ই-সিম (Embedded Sim) কি? ই-সিম এর সুবিধা এবং অসুবিধা

2 thoughts on "ইউটিউব (YouTube) মার্কেটিং কি? ইউটিউব মার্কেটিং এর সুবিধা গুলো জেনে নিন"

    1. Md Nuhu Author Post Creator says:
      thanks

Leave a Reply