আমরা যারা ল্যাপটপ ব্যবহারকারী যে সমস্যাটির সম্মুখীন হন সেটা হলো ল্যাপটপ অতিরিক্ত গরম হওয়া। ল্যাপটপ অতিরিক্ত গরম হওয়ার ফলে অনেক ক্ষেত্রেই হার্ডডিস্ক সহ ল্যাপটপের অনেক যন্ত্রাংশ ক্ষতিগ্রস্থ হতে পারে। অনেক ক্ষেত্রে আরো বড় দুর্ঘটনাও ঘটতে পারে।আমাদের ল্যাপটপের অতিরিক্ত গরম হয়ে ওঠা নিয়ে যেসব ব্যবহারকারী অতিমাত্রায় চিন্তিত।তাদের জন্য আজকের এই পোস্টটি আশা করি উপকারে আসবে ইনশাআল্লাহ।

 

Laptop অতিরিক্ত গরম হওয়ার সমাধান:-

১. ল্যাপটপ সমতলে রাখা।

অধিকাংশ ল্যাপটপের গরম হয়ে ওঠার পেছনে মূল কারণ ল্যাপটপ অসমতল কোন জায়গায় (যেমন: বিছানা বা বালিশের উপর) রেখে ব্যবহার করা। এর ফলে ল্যাপটপের নিচে বাতাস চলাচলের পথ বন্ধ হয়ে যায় এবং ল্যাপটপের অভ্যন্তরে তৈরি হওয়া তাপ বের হওয়ার সুযোগ পায় না। ফলে ল্যাপটপটি গরম হয়ে যায়। সুতরাং ল্যাপটপকে ঠান্ডা রাখতে সর্বপ্রথম কাজ হলো কোন সমতল স্থানে রেখে ব্যাবহার করা। আর বালিশ বা বিছানার উপর রাখতে হলে ল্যাপটপের দুই পাশে দুইটি বই দিয়ে বায়ু চলাচলের জায়গাটা উন্মুক্ত রেখে তারপর ব্যাবহার করতে পারেন।

২. বিরত থাকুন অনবরত চার্জ দেওয়া থেকে।

অনেক ব্যবহারকারীই ধারনা যে ল্যাপটপ ব্যাবহার করার সময় ফুল চার্জড অবস্থায় থাকলেও বিদ্যুতের সংযোগ দিয়ে ব্যাবহার করা উচিত। কিন্তু ধারণাটি আসলে ভুল। ফুল চার্জ  অবস্থায় থাকলে সবসময়ই উচিত চার্জিং ক্যাবলটি খুলে ফেলা। এরকম অবস্থায় সব সময় চার্জিং কেবল লাগিয়ে রাখলে কার্যত ব্যাটারির আয়ু তো বাড়েই না বরং ব্যাটারি ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। এছাড়া ব্যাটারি অতিরিক্ত গরম হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনাও থাকে যার ফলে ল্যাপটপটি গরম হয়ে যেতে পারে।

৩. অপ্রয়োজনীয় সফটওয়্যার বন্ধ রাখুন।

মাঝে মাঝেই আমরা কাজ করার সময় বিভিন্ন ধরনের সফটওয়্যার কাজে না লাগলেও চালু অবস্থায় মিনিমাইজ করে রাখি। ফলে অ্যাপটি ব্যাকগ্রাউন্ডে সচল থাকে এবং সিপিইউ এর উপর প্রভাব ফেলে। এতে করে অতিরিক্ত প্রেশার পড়ার ফলে গরম হয়ে যেতে পারে ল্যাপটপটি। এ কারণে সবসময়ই উচিত ল্যাপটপে যে কোন ধরনের কাজ করার সময় অপ্রয়োজনীয় অ্যাপগুলোকে মিনিমাইজ করে না রেখে বন্ধ করে রাখা উচিত।

৪. ব্রাউজারের ট্যাব সংখ্যা নিয়ন্ত্রণে।

অধিকাংশ ক্ষেত্রেই আমরা স্লো ইন্টারনেট স্পিড বা বিভিন্ন কারণে একসাথে ইন্টারনেট ব্রাউজারের অনেকগুলো ট্যাব ওপেন করে রাখি। এটা নিয়ে কারো কারো মধ্যে এরকম ভুল ধারনাও আছে যে যে ট্যাবটিতে কাজ করছি শুধুমাত্র সেটিই সচল অবস্থায় আছে। সত্য হলো ব্রাউজারে অনেক গুলো ট্যাব একসাথে ওপেন করলে প্রত্যেকটি ট্যাবই চালু থাকে এবং সিপিইউ এর উপর প্রভাব ফেলে। অপ্রয়োজনীয়ভাবে একসাথে অনেক গুলো ট্যাব খোলা রাখলে সিপিইউ এর উপর অতিরিক্ত চাপ পড়ে অতিরিক্ত গরম হয়ে যেতে পারে ল্যাপটপটি।

৫. কুলিং প্যাড ব্যবহারে।

অনেকের কাছেই ল্যাপটপে কাজ করার সময় কুলিং প্যাড ব্যাবহার করাটা বিরক্তিকর একটা ব্যাপার। আসলেই এটা একটা অতিরিক্ত ঝামেলা । তবে ল্যাপটপ দীর্ঘসময় ব্যাবহারের ক্ষেত্রে কুলিং প্যাড ব্যবহারে অভ্যস্ত হওয়াটা ল্যাপটপের জন্য বেশ কাজের। কুলিং প্যাড ল্যাপটপের মধ্যে থেকে গরম বাতাস বাইরে বের করে দেয় এবং ঠান্ডা বাতাস ভিতরে যাওয়ার ব্যবস্থা করে দেয়, ফলে ল্যাপটপ ঠান্ডা থাকে। এ কারণে ল্যাপটপের সুস্থতার কথা চিন্তা করে হলেও আমাদের উচিত কুলিং প্যাড ব্যবহারে অভ্যস্ত হওয়া। কুলিং প্যাডে অভ্যস্ত হতে সুবিধামত আকৃতির বিভিন্ন ধরনের কুলিং প্যাড নির্বাচন করতে পারেন।

ধন্যবাদ ভাল থাকবেন এবং আমার ইউটিউব চ্যানেল থেকে একটু ঘুরে আসবেন এবং কৃপণতা না করে প্লিজ সাবস্ক্রাইব করবেন।

আবার দেখা হবে  পোস্টের মাধ্যমে যদি সামান্য উপকৃত ও কিছু জানতেশিখতে পারেন তাহলে অবশ্যই কমেন্ট করে জানাবেন ধন্যবাদ

 

4 thoughts on "[Laptop] গরম হয়ে যায় সমাধান এক্ষুনি।"

  1. Shadin Subscriber says:
    নাইচ পোস্ট।
    1. Hasan420 Hasan420 Author Post Creator says:
      tnx
  2. Dark™ Rifat Raj Author says:
    2 নম্বর কারণটা একদম ভূল। বর্তমানে অর্থাৎ ২০০২ এর পর ৯০% ল্যাপটপ Advance Power Control বা Power cut Feature আছে। এতে Laptop গরম বা ব্যাটারির আয়ু কম হয় না।
    1. Hasan420 Hasan420 Author Post Creator says:
      r a vai apnar kotha thik.
      but 2 no ta vul na
      ok

Leave a Reply