গোটা পৃথিবী এখন হাতের মুঠোয়। ঘরে বসে এখন চাইলে মুহূর্তেই পুরো বিশ্ব ঘুরে আসা যায়। চাইলেই বিশ্বের সব খবর নেওয়া যায় ইন্টারনেটের কল্যাণে। গোটা বিশ্ব আবদ্ধ ইন্টারনেটের জালে। ইন্টারনেট ছাড়া জীবন ভাবাটাই দায়। আর ওয়াই-ফাই ইন্টানেট সেবাকে করেছে আরও দ্রুত। বাসা-অফিসে ব্যবহার হচ্ছে দ্রুতগতি সম্পন্ন ওয়াই-ফাই। তবে ওয়াই-ফাইয় শরীরের জন্য ক্ষতিকর বলে জানিয়েছেন গবেষকরা।

তারা জানান, কোনো ডিভাইস এর সঙ্গে ওয়াই-ফাইকে কানেক্ট করতে হলে ক্যাবল লাগে না। ইলেক্ট্র ম্যাগনেটিক ওয়েভ মানব শরীরের জন্য স্বাস্থ্যকর মোটেই নয়। বরং এর জেরে মানব শরীরের বৃদ্ধির ক্ষতি হয়। সম্প্রতি এমনই দাবি করেছে এক ব্রিটিশ হেলথ্ এজেন্সি। শুধু প্রাণী নয়, উদ্ভিদও এর প্রভাব থেকে বাঁচতে পারে না।
ব্রিটিশ হেলথ্ এজেন্সি এজেন্সি জানিয়েছে, ওয়াই-ফাই ব্যবহারের কারণে মনোযোগের সমস্যা, ঘুমের সমস্যা, মাঝেমধ্যেই মাথা যন্ত্রণা, কানে ব্যথা, ক্লান্তিসহ শাররিক না সমস্যা দেখা দিতে পারে।
তবে ওয়াই-ফাই এর প্রভাব কমানোর কিছু উপায়ও আছে-
-বেডরুম বা রান্নাঘরে ওয়াই-ফাই এর রাউটার বসাবেন না।
-যখন ব্যবহার করছেন না ওয়াই-ফাই বন্ধ রাখুন
-মাঝেমধ্যে কেবল-এর সাহায্যে ফোন ব্যবহার করুন। ওয়াই-ফাই বন্ধ রাখুন সে সময়ে।
-শোওয়ার সময় ওয়াই-ফাই কানেকশন বন্ধ রাখুন।
.
সুত্রঃZoombangla

8 thoughts on "জেনে নিন `ওয়াই-ফাই` মানব দেহে কতটা মারাত্মক ক্ষতিকর!"

  1. Shaheen Uddoula Shaheen Uddoula Author says:
    WiFi এর পরে “,”(কমা) হবে।
  2. mdshaharia0 mdshaharia0 Contributor says:
    cable er sahajje phone kiva be calabo.
  3. Noman Qns Noman Qns Contributor says:
    Allah rehay koro sharadin office wifi…ki kori..1ta na abr 4 ta wifi ki kora jay…. !
  4. NahidDX Contributor says:
    aj t ame basay broadband nibo..allah ki hobe.

Leave a Reply